চেন্নাই: দিনের শেষে অপরাজিত রয়েছেন অধিনায়ক মনোজ তিওয়ারি। তাঁর সঙ্গে নাইট ওয়াচম্যান হিসেবে রয়েছেন আমির গনি। এখনও সুদীপ, ঋত্বিক, শ্রীবৎসদের ব্যাট করা বাকি। প্রথম ইনিংসের মতো দ্বিতীয় ইনিংসে ব্যাটসম্যানরা যদি না ডোবান তা হলে চেন্নাই থেকে ছ’পয়েন্ট নিয়েই ফিরতে চলেছে বাংলা।

অথচ শুক্রবার সকালেও এই আশা ছিল না বাংলা শিবিরে। ইংরেজিতে যাকে বলে, ‘ডাউন অ্যান্ড আউট,’ সেটাই হয়েছিল বাংলার। কিন্তু শুক্রবার প্রথম দু’টো সেশনে নাটকীয় ঘটনা ঘটল, যার জন্য সরাসরি জয়ের দরজা খুলে গেল বাংলার সামনে।

আরও পড়ুন প্রস্তুতি ম্যাচে ব্যর্থ বোলাররা, চাপ বাড়িয়ে প্রথম টেস্টের দল থেকে ছিটকে গেলেন এই ক্রিকেটার

প্রথম ইনিংসে বাংলার থেকে ৭৪ রানে এগিয়ে ছিল তামিলনাড়ু। কিন্তু দ্বিতীয় ইনিংসে তারা শেষ হয়ে গেল মাত্র ১৪১ রানে। না, অশোক দিন্দা, ঈশান পোড়েল বা আমির গনি নয়, বাংলার বোলিং-এ এ দিন নায়ক হিসেবে উদয় হলেন মূলত ব্যাটসম্যান ব্যাটসম্যান ঋত্বিক চট্টোপাধ্যায়। তাঁর ঘূর্ণি সামলাতে পারল না তামিলনাড়ু। একাই তুলে নিলেন পাঁচটা উইকেট। তবে তাঁকে সংগত দিয়েছেন বাকি বোলাররাও। গনি নিয়েছেন দু’টি উইকেট। একটি করে উইকেট নিয়েছেন দিন্দা, পোড়েল এবং প্রদীপ্ত প্রামাণিক।

২১৬ রানের লক্ষ্যমাত্রা নিয়ে ইনিংস শুরু করে বাংলা। প্রথম ইনিংসে যেখানে শেষ করেছিলেন সেখান থেকে শুরু করেন অভিষেক রমন। দুর্দান্ত স্ট্রোক-প্লে নিয়ে এই ইনিংসেও অর্ধশতরান পেরিয়ে যান তিনি। তবে দিনের শেষে বাংলার দু’টো উইকেট পড়ে যাওয়ায় কিঞ্চিৎ একটা চাপ রয়েছে। দিনের শেষে বাংলার স্কোর দুই উইকেটে ৮৭। জয়ের জন্য করতে হবে আর ১২৯ রান।

এমনিতে বাংলার জয় পাওয়া খুব একটা সমস্যার কথা নয়। কিন্তু কেরল ম্যাচ থেকে ব্যাটসম্যানরা যে পারফরম্যান্স করে যাচ্ছেন, তা থেকে অল্প হলেও একটা চিন্তা থেকেই যায়। আপাতত শনিবারের চেন্নাইয়ের ওপরেই তাকিয়ে গোটা বঙ্গ ক্রিকেট মহল।

dailyhunt

খবরের সব আপডেট পড়ুন খবর অনলাইনে। লাইক করুন আমাদের ফেসবুক পেজ। সাবস্ক্রাইব করুন আমাদের ইউটিউব চ্যানেল

বিজ্ঞাপন