bengal

চেন্নাই: একে এক কথায় বলা যেতে পারে, ‘দ্য গ্রেট এস্কেপ!’ গত কয়েকটা ম্যাচ ধরে যে রোগ বাংলাকে গ্রাস করেছে, সে রোগের মুক্তি এ বারও হয়নি। বরং আরও একটা লজ্জার দিকেই এগিয়ে যাচ্ছিল বাংলা। কিন্তু প্রথমে সুদীপ চট্টোপাধ্যায় এবং পরে প্রদীপ প্রামাণিকের ঠান্ডা মাথার ব্যাটিং-এ ম্যাচ জিতল বাংলা। তা-ও আবার মাত্র এক উইকেটে। তামিলভূম থেকে এল ছ’পয়েন্ট।

জয়ের জন্য খুব বেশি রান বাংলাকে করতে হত না। আগের দিনই বাংলার ব্যাটিংকে শক্ত ভিতের ওপরে দাঁড় করিয়ে দিয়েছিলেন অভিষেক রমন। কিন্তু এটা তো বাংলা! আশা থেকে নিরাশায় ডুবে যেতে বেশি সময় লাগে না।

তাই একটা সময়ে দুই উইকেটে ১১৪ থেকে বাংলার স্কোর গিয়ে পৌঁছোল সাত উইকেটে ১৫০। দাপট দেখাচ্ছেন তামিলনাড়ুর বোলাররা। বিশেষ করে রাহিল শাহ। চার জনকে ফিরিয়ে দিয়েছেন তিনি। আরও এক বার শূন্য হাতে ফেরার আশঙ্কা যখন ক্রমে বাড়ছে, ঠিক তখনই ক্রিজে এলেন স্পিনার প্রদীপ্ত প্রামাণিক। উলটো দিকে তখন সুদীপ। বাংলার সেরা ব্যাটসম্যানদের মধ্যে একজন হলেও, এই মরশুমে এখনও বিশেষ রান নেই তাঁর। তাই মনে করা হচ্ছিল, বাংলার স্থায়িত্ব আর বেশিক্ষণের জন্য নয়।

কিন্তু সুদীপ, প্রদীপ্তর ঠান্ডা মাথা বাংলাকে জয়ের কাছাকাছি পৌঁছে দিল। বাংলার জয়ের যখন প্রয়োজন আর মাত্র ৯ রান, ফের চাপে পড়ল বাংলা। প্যাভিলিয়নে ফিরে যান সুদীপ। এমন পরিস্থিতিতে যা খুশি হয়ে যেতে পারে। দিন্দা আর প্রদীপ্ত মিলে স্কোর টাই করে দেওয়ার পরে, আবার গণ্ডগোল। ফিরে যান দিন্দা। তবে তার দু’বল পরেই বাংলাকে কষ্টার্জিত জয় এনে দেন প্রদীপ্ত।

ম্যাচ জিতলেও, ব্যাটিং-এর এই রোগ কিন্তু বাংলাকে চাপে রাখবে। তবে ভবিষ্যতের ম্যাচগুলির জন্য বাংলাকে বড়ো অক্সিজেন দিল এই তামিলবিজয়।

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here