30 C
Kolkata
Friday, June 18, 2021

Corona Crisis In IPL: জৈব বলয় ভেদ করে কী ভাবে ঢুকল করোনা, উঠে এল একাধিক কারণ

আরও পড়ুন

খবরঅনলাইন ডেস্ক: অস্ট্রেলিয়ার ক্রিকেটার অ্যাডাম জাম্পা এই সন্দেহটাই কিছু দিন আগে করেছিলেন। আইপিএল ছেড়ে দেশে ফিরে আসার কারণ হিসেবে তিনি বলেন, এই জৈব সুরক্ষা বলয়টি তাঁর আদৌ সুরক্ষিত মনে হয়নি। গত মরশুমে সংযুক্ত আরব আমিরশাহির সুরক্ষা বলয়টি যথেষ্ট নিরাপদ ছিল বলে মনে করেন তিনি।

জাম্পার সন্দেহকে সত্যি করেই আইপিএলে হানা দিল করোনা। আক্রান্ত হয়ে গেলেন ঋদ্ধিমান সাহা থেকে অমিত মিশ্র, সিভি বরুণ থেকে লক্ষ্মীপতি বালাজি। কিন্তু কী ভাবে জৈব সুরক্ষা বলয় ভেঙে ঢুকে পড়ল করোনা? এর জন্য একাধিক কারণকে তুলে ধরে টাইমস অব ইন্ডিয়া

Loading videos...
- Advertisement -

১. জৈব বলয় বারবার ভেঙেছে

জৈব সুরক্ষা বলয় অনেক ক্ষেত্রেই নষ্ট হয়েছে। হোটেল সংরক্ষণের ক্ষেত্রে নিয়ম মানা হয়নি। দৈনিকটি জানাচ্ছে একটি দল তাদের ক্রিকেটারদের শপিং মলের মধ্যে থাকা হোটেলে রেখেছিল। আর একটি দল গোটা হোটেল সংরক্ষণ করে রাখলেও অন্যত্র খেলতে যাওয়ায় ১২ দিন অন্য শহরে ছিল। কিন্তু সেই ১২ দিন ওই হোটেল তারা সংরক্ষিত করে রাখেনি। ফলে ওই দিনগুলোয় সেখানে অন্য মানুষের অবাধ যাতায়াত ছিল। এর ফলেও এই সুরক্ষা বলয় ভেঙে গিয়ে থাকতে পারে বলে মনে করা হচ্ছে।

২. মাঠকর্মী এবং ফ্র্যাঞ্চাইসি মালিকদের সংস্পর্শে

অনুশীলন চলাকালীন মাঠকর্মীদের সংস্পর্শে আসতে হয় ক্রিকেটারদের। কিন্তু মাঠকর্মীরা সুরক্ষা বলয়ের মধ্যে না থাকায় তাদের থেকেও আক্রান্ত হতে পারেন ক্রিকেটাররা। এমনটাও শোনা যাচ্ছে, মাঠকর্মীদের অনেকেই দীর্ঘদিন ধরে করোনা আক্রান্ত হলেও তাদের দিয়েই কাজ চালিয়ে যাওয়া হতে থাকে। মুম্বই, চেন্নাই ও দিল্লিতেও এই ঘটনা ঘটেছে।

এ ছাড়া, আইপিএলে গ্যালারি ফাঁকা থাকলেও ফ্রাঞ্চাইসি মালিকরা গ্যালারিতে থাকতেন। তাঁরা জৈব সুরক্ষা বলয়ের অংশ নন। ফলে সেখান থেকেও কোভিডে আক্রান্ত হওয়ার সম্ভাবনা থেকে যায়।

৩. বারবার শহর বদলানো

এক শহর থেকে অন্য শহরে বারবার যেতে হওয়ায় আক্রান্ত হওয়ায় সম্ভাবনা কিছুটা বেড়ে যায়। অনেক ক্ষেত্রেই দেখা গিয়েছে এক শহর থেকে অন্য শহরে আসার পরই আক্রান্ত হয়েছেন ক্রিকেটাররা। এর মূল কারণ হল বিমানবন্দর। ভিড় বিমানবন্দরে ক্রিকেটারদের জন্য বিশেষ ব্যবস্থা করে তাঁদের নিয়ে যাওয়া অনেক সময় সম্ভবপর হয়নি।

৪. অকেজো জিপিএস ব্যবস্থা

গত মরশুমে ক্রিকেটারদের গতিবিধি নজরে রাখার জন্য জিপিএস-এর ব্যবস্থা করা হলেও এ মরশুমে তা ঠিক ভাবে করা হয়নি। যাঁরা এই কাজের সঙ্গে যুক্ত ছিলেন তাঁদের কাছে একটি দল তাঁদের ক্রিকেটারদের তথ্য চেয়েছিল। সেই তথ্য যখন এসে পৌঁছোয়, তার দু’দিন আগেই সেই শহর ছেড়ে দিয়েছে ওই দল। এই অকেজো ব্যবস্থার কারণে ক্রিকেটারদের গতিবিধির ওপরে নজরই রাখা যায়নি।

- Advertisement -

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

- Advertisement -

আপডেট

পড়তে পারেন