আম্পায়াদের বদান্যতায় একটা বাড়তি রান পেয়ে গেল ইংল্যান্ড? ফাইনাল শেষ হতেই তুঙ্গে বিতর্ক

0

লন্ডন: গোটা ম্যাচ টাই, এমনকি সুপার ওভারও টাই। শেষে গোটা ম্যাচে বেশি বাউন্ডারি মারার নিরিখে বিশ্বচ্যাম্পিয়ন হয়ে গেল ইংল্যান্ড। বিশ্বকাপ ফাইনালকে কেন্দ্র করে লন্ডনের রবিবাসরীয় বিকেলে নাটকের অন্ত ছিল না। দু’দেশের ক্রিকেট ভক্তের পাশাপাশি নিরপেক্ষ ভক্তরাও যে প্রবল চাপে ছিলেন তা বলাই বাহুল্য।

কিন্তু এরই মধ্যে নতুন একটি বিতর্কের সৃষ্টি হয়েছে ইংল্যান্ড ব্যাটিংয়ের শেষ ওভারে সেই ওভার-থ্রোকে কেন্দ্র করে। মোক্ষম সময়ে যেই ওভার-থ্রোটিই ইংল্যান্ডকে ম্যাচ টাই করে দেওয়ার সুযোগ করে দেয়। প্রশ্ন উঠছে আম্পায়ারদের বদান্যতায় কি একটা বাড়তি রান পেয়ে গেল ইংল্যান্ড? আইসিসির নিয়ম অনুযায়ী ইংল্যান্ডের ৬ রানের বদলে কি ৫ রান প্রাপ্য ছিল?

ঘটনাটি ঘটেছিল শেষ ওভারের চতুর্থ বলে। তৃতীয় বল হয়ে যাওয়ার পর, ইংল্যান্ডের শেষ তিন বলে দরকার ছিল ৯। এই পরিস্থিতিতে ট্রেন্ট বোল্টের একটি বল ডিপ মিডউইকেটে পাঠিয়ে দুই রানের জন্য দৌড়োন স্টোক্স। বলটি থ্রো করেন ফিল্ডার মার্টিন গাপ্টিল। সেটা বেন স্টোক্সের ব্যাটে লেগে বাউন্ডারির বাইরে চলে যায়। সে সময়ে আম্পায়ার কুমার ধর্মসেনাকে দেখা যায়, ইংল্যান্ডকে দুটো ফিল্ড রান এবং বাউন্ডারির চারটে রান মিলিয়ে ইংল্যান্ডকে মোট ৬ রান উপহার দিতে। কিন্তু ক্রিকেটের নিয়ম না কি অন্য কথা বলে।

আরও পড়ুন ইতিহাসের শ্রেষ্ঠ ফাইনাল! সুপার ওভার টাই করে প্রথম বার বিশ্বকাপ ঘরে আনল ক্রিকেটের জনকরা

ক্রিকেটের জনপ্রিয় ওয়েবসাইট ক্রিকইনফো জানাচ্ছে, আইসিসির নিয়মাবলির ১৯.৮ ধারা অনুযায়ী ক্রিজে থাকা দুই ব্যাটসম্যান যদি একে অপরকে ক্রস করার আগেই ফিল্ডার বলটি থ্রো করেন এবং সেটা ওভার-থ্রো হয়, তা হলে ফিল্ড রানটি গ্রাহ্য হবে না। সে ক্ষেত্রে ওভার-থ্রোয়ে পাওয়া রানটিই গ্রাহ্য হবে।

টিভি রিপ্লেতে দেখা গিয়েছে যে ডিপ মিডউইকেট থেকে মার্টিন গাপ্তিল বল ছোড়ার সময় স্টোকস ও তাঁর নন-স্ট্রাইকার পার্টনার আদিল রশিদ দ্বিতীয় রানের জন্য পরস্পরকে ক্রস করেননি। ফলে আইসিসির নিয়ম অনুযায়ী তখন ইংল্যান্ডের প্রাপ্য ছিল একটি ফিল্ড রান, যে হেতু প্রথম রানটি দৌড়ে শেষ করেছিলেন স্টোক্স। অর্থাৎ ৬-এর বদলে ইংল্যান্ডের প্রাপ্য ছিল মোট ৫ রান।

নিয়ম যদি আম্পায়াররা মানতেন, তা হলে ইংল্যান্ডের জয়ের জন্য প্রয়োজন হত শেষ দুই বলে ৪। এমন নয় যে তখন নিউজিল্যান্ড এক রানে ম্যাচ জিততই, হয়তো বেন স্টোক্স অন্য কৌশল নিতেন। কিন্তু বিশ্বকাপের শেষ ওভারে এ রকম টানটান পরিস্থিতিতে এই ধরনের ব্যাপার যে আম্পায়ারিংয়ের পক্ষে ভালো বিজ্ঞাপন নয়, তা বলাই বাহুল্য।

dailyhunt

খবরের সব আপডেট পড়ুন খবর অনলাইনে। লাইক করুন আমাদের ফেসবুক পেজ। সাবস্ক্রাইব করুন আমাদের ইউটিউব চ্যানেল

বিজ্ঞাপন