Connect with us

ক্রিকেট

করোনা-উত্তর পৃথিবীতে ক্রিকেটে যুগান্তকারী পরিবর্তনের প্রস্তাব দিল অনিল কুম্বলেদের কমিটি

খবর অনলাইনডেস্ক: করোনা-উত্তর পৃথিবীর ক্রিকেটে যুগান্তকারী পরিবর্তন আসতে চলেছে। থুতু দিয়ে বল পালিশের পদ্ধতিতে নিষেধাজ্ঞার প্রস্তাব দিল আইসিসির (ICC) ক্রিকেট কমিটি। এই কমিটির নেতৃত্বে অনিল কুম্বলে (Anil Kumble)।

থুথু নিষিদ্ধ করার প্রস্তাব দেওয়া হলেও পালিশের ক্ষেত্রে ঘামের ব্যবহারে এখনও কোনো নিষেধাজ্ঞার প্রস্তাব দেওয়া হয়নি। একই দিনে পরামর্শ দেওয়া হয়, আন্তর্জাতিক ম্যাচে দু’ জন করে স্থানীয় আম্পায়ার রাখার।

একটি টেস্টের প্রতি ইনিংসে দু’টির পরিবর্তে তিনটি করে ডিআরএস (ডিসিশন রিভিউ সিস্টেম) নেওয়ার নিয়ম চালু করার পরামর্শও দেওয়া হয়। ভিডিও বৈঠকের মাধ্যমে এই প্রস্তাবগুলি দিয়েছে কমিটি।  

বল পালিশের ক্ষেত্রে থুতু ব্যবহারের পদ্ধতি নিয়ে আগেই বিতর্ক শোনা গিয়েছিল ক্রিকেটমহলে। যদিও এর বিরোধিতাও এসেছিল। বল পালিশ না করলে পেসাররা সুইং পাবেন না বলে জানিয়েছিলেন কিছু কিংবদন্তি পেসার।

নিয়ম পরিবর্তনের এই প্রস্তাব দিতে গিয়ে একটি বিবৃতিতে কুম্বলে বলেন, ‘‘আমরা লড়াইয়ের মধ্যে দিয়ে এগিয়ে চলেছি। তাই ক্রিকেট চলার পাশাপাশি কী ভাবে সচেতনতা বজায় রাখা যায়, সে বিষয়ে কিছু প্রস্তাব দিচ্ছে আইসিসির ক্রিকেট কমিটি। আইসিসির মেডিক্যাল অ্যাডভাইসরি কমিটির প্রধান ডা. পিটার হারবার্টের সঙ্গে আলোচনা করে জেনেছি, থুতুর ব্যবহারে সংক্রমণ ছড়ানোর সম্ভাবনা খুব বেশি। তাই আইসিসি কমিটির প্রস্তাব, বল পালিশের ক্ষেত্রে থুতুর ব্যবহারে নিষেধাজ্ঞা জারি হোক। কিন্তু ঘামের ব্যবহারে কোনো সমস্যা নেই।”

আইসিসি এই প্রস্তাব মেনে নেয় কি না, সেটাই দেখার।

ক্রিকেট

একদিনের ক্রিকেটে শ্রীসন্তের বাছাই করা সর্ব কালের সেরা একাদশের অধিনায়ক সৌরভ গাঙ্গুলি

খবর অনলাইন ডেস্ক: করোনাভাইরাস (coronavirus) সংক্রমণের জেরে দেশ জুড়ে যে লকডাউন (lockdown) চলছে, তাতে ঘরবন্দি বহু ক্রিকেটার সোশ্যাল মিডিয়ায় সক্রিয় হয়েছেন। এঁদের দলে নাম লেখালেন সান্তাকুমারন শ্রীসন্ত (S. Sreesanth)। আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে শ্রীসন্তের অভিষেক ২০০৫ সালে। ২০০৭ টি২০ বিশ্বকাপ ও ২০১১ বিশ্বকাপ ক্রিকেটে ভারতীয় দলের ক্রিকেটার শ্রীসন্ত বেছে নিয়েছেন একদিনের ক্রিকেটে সর্ব কালের সেরা একাদশ। এবং তাঁর সেই দলে স্থান পেয়েছেন ভারতের ৫ জন ক্রিকেটার। শ্রীসন্ত সেই দলের অধিনায়ক করেছেন সৌরভ গাঙ্গুলিকে (Sourav Ganguly) ।

শ্রীসন্ত তাঁর দলের ওপেনার হিসাবে বেছে নিয়েছেন সচিন তেন্ডুলকর ও সৌরভ গাঙ্গুলিকে। একদিনের ক্রিকেটে এই জুটি ভারতের হয়ে বহু ইনিংস ওপেন করেছেন। এবং এক দিনের ক্রিকেটে ওপেনিং জুটি হিসাবে এঁদের করা সর্বোচ্চ রানের রেকর্ডটি আজও অটুট।

শ্রীসন্তের দলে মিডল অর্ডারে তিন ও চার নম্বরে যথাক্রমে আছেন ওয়েস্ট ইন্ডিজের ব্রায়ান লারা এবং ভারতের বিরাট কোহলি। লারা তাঁর প্রজন্মের অন্যতম সেরা ব্যাটসম্যান যে ছিলেন তাতে সন্দেহ নেই। আর চলতি সময়ে একদিনের ফরম্যাটে বিরাটের শ্রেষ্ঠত্ব নিয়ে কোনো প্রশ্নই উঠবে না।

এর পর মিডল অর্ডারকে আরও শক্তপোক্ত করার জন্য্ শ্রীসন্ত পাঁচ ও ছ’ নম্বরে রেখেছেন যথাক্রমে সাউথ আফ্রিকার এবি ডেভিলিয়ার্স এবং ভারতের যুবরাজ সিংকে। ক্রিকেটের ইতিহাসে সাউথ আফ্রিকা যত জন ব্যাটসম্যান সৃষ্টি করেছে, ডেভিলিয়ার্স যে তাঁদের মধ্যে অন্যতম শ্রেষ্ঠ, তাতে সন্দেহ নেই। আর ভারতের ক্রিকেট ইতিহাসে যুবরাজকে সর্বশ্রেষ্ঠ মিডল অর্ডার ব্যাটসম্যান হিসাবে গণ্য করা হয়।

শ্রীসন্তের দলে উইকেটকিপার ভারতের মহেন্দ্র সিং ধোনি। উইকেটকিপারের জায়গায় ঠান্ডা মাথার ধোনির চেয়ে ভালো বাছাই আর হয় না। আর দলে আট নম্নরে আসবেন সেই সাউথ আফ্রিকার জাক কালিস, যিনি ব্যাট ও বলে অসামান্য পারফরম্যান্স দেখিয়ে ক্রিকেটের ইতিহাসে অল রাউন্ডারের সংজ্ঞাটাই পালটে দিয়েছেন।

শ্রীসন্তের টিমে একমাত্র স্পিনার অস্ট্রেলিয়ার শেন ওয়ার্ন। আর পেসার হিসাবে থাকছেন অ্যালান ডোনাল্ড এবং গ্লেন ম্যাকগ্রা। আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে ওয়ার্নের দখলে রয়েছে হাজারেরও বেশি উইকেট। আর পেস আক্রমণে সাউথ আফ্রিকার ডোনাল্ড ও অস্ট্রেলিয়ার ম্যাকগ্রার জুড়ি মেলা ভার।

শ্রীসন্ত তাঁর বাছাই করা দলে নিজেকে দ্বাদশ ব্যক্তি হিসাবে রেখেছেন।

একদিনের ক্রিকেটে শ্রীসন্তের বাছাই করা সর্ব কালের সেরা একাদশ –

সচিন তেন্ডুলকর, সৌরভ গাঙ্গুলি (অধিনায়ক), ব্রায়ান লারা, বিরাট কোহলি, এবি ডেভিলিয়ার্স, যুবরাজ সিং, মহেন্দ্র সিং ধোনি, জাক কালিস, শেন ওয়ার্ন, অ্যালান ডোনাল্ড, গ্লেন ম্যাকগ্রা এবং সান্তাকুমারন শ্রীসন্ত (দ্বাদশ ব্যক্তি)।                        

Continue Reading

ক্রিকেট

বঙ্গ ক্রিকেটে করোনার থাবা, আক্রান্ত রঞ্জিজয়ী প্রাক্তন

খবর অনলাইনডেস্ক: বাংলার ক্রিকেটমহলে ঢুকে পড়ল করোনাভাইরাস (Coronavirus)। আক্রান্ত হলেন প্রাক্তন ক্রিকেটার ও বর্তমানে সিনিয়র দলের অন্যতম নির্বাচক সাগরময় সেনশর্মা (Sagarmoy Sensharma)। বাংলার শেষ রঞ্জি জয়ী টিমের সদস্য ছিলেন বছর ৫৪-এর এই পেসার।

কিছু দিন আগে করোনায় আক্রান্ত হয়েছিলেন সাগরময়ের স্ত্রী। তখন থেকে কোয়ারান্টাইনে ছিলেন তিনি। কোয়ারান্টাইনে থাকাকালীনই অসুস্থ বোধ করেন তিনি। সামান্য শ্বাসকষ্ট দেখা দেয়। তখনই বেসরকারি একটি হাসপাতালে নিয়ে গিয়ে তাঁর করোনা-পরীক্ষা হলে রিপোর্ট পজিটিভ আসে।

রঞ্জিজয়ী প্রাক্তন এই ক্রিকেটারের অবস্থা বর্তমানে স্থিতিশীল রয়েছে। তাঁর স্ত্রী সুস্থ হয়ে গিয়েছেন।

সিএবি (CAB) ও প্রাক্তন ক্রিকেটাররা অনেকেই সাগরময়ের সঙ্গে যোগাযোগ রাখছেন। বাংলার নির্বাচক হিসেবে শেষ মরশুমে যে পারিশ্রমিক বকেয়া ছিল, তা মিটিয়ে দিয়েছে সিএবি।

১৯৮৭ থেকে ১৯৯৭ পর্যন্ত ৪৭টি প্রথম শ্রেণির ম্যাচে ১৪৯ উইকেট রয়েছে সাগরময়ের। ১৯৮৯০-৯০ মরশুমে সম্বরণ বন্দ্যোপাধ্যায়ের (Sambaran Banerjee) নেতৃত্বে বাংলার রঞ্জিজয়ী দলের অন্যতম সদস্য ছিলেন তিনি। নির্বাচক হিসেবেও তিনি যে বেশ সফল, তা এ বারের রঞ্জি ট্রফিতে বাংলার পারফরম্যান্সই প্রমাণ করে।

Continue Reading

ক্রিকেট

এ বছর টি২০ বিশ্বকাপ হবে কি, সিদ্ধান্ত ১০ জুন পর্যন্ত পিছিয়ে গেল

খবর অনলাইন ডেস্ক: অস্ট্রেলিয়ায় এ বছরের টি২০ বিশ্বকাপ হওয়ার যে কথা আছে সে সম্পর্কে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেওয়ার বিষয়টি ১০ জুন পর্যন্ত পিছিয়ে দিল আইসিসি (ICC)। ১৮ অক্টোবর থেকে ১৫ নভেম্বর পর্যন্ত টি২০ বিশ্বকাপ চলার কথা।

করোনাভাইরাস অতিমারির (coronavirus pandemic) জেরে সারা বিশ্ব জুড়েই টালমাটাল অবস্থা। পূর্ব- নির্ধারিত সমস্ত অনুষ্ঠানসূচিই বানচাল হতে বসেছে। এই পরিপ্রেক্ষিতে কী পরিকল্পনা করা হবে সে সম্পর্কে এখনও চূড়ান্ত কিছু ঠিক করতে পারেনি বিশ্ব ক্রিকেটের নিয়ামক সংস্থা। সেই কারণেই টি২০ বিশ্বকাপ নিয়ে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেওয়া ১০ জুন পর্যন্ত পিছিয়ে দেওয়া হল। বৃহস্পতিবার এ কথা জানিয়েছে আইসিসি বোর্ড।

আইসিসি-র কাজকর্মে ‘গোপনীয়তা’ রক্ষা হচ্ছে না বলে উদ্বেগ প্রকাশ করেছে ক্রিকেট নিয়ামক সংস্থার বোর্ড। এই ব্যাপারে তারা তদন্তের নির্দেশ দিয়েছে। বোর্ড মনে করে, গত কয়েক দিনে তাদের কাজকর্মের ‘গোপনীয়তা’ ভঙ্গ হয়েছে।

বৃহস্পতিবার আইসিসি বোর্ডের টেলি-কনফারেন্সের পর এক বিবৃতি জারি করে বলা হয়েছে, “কোভিড ১৯ (COVID 19) সংক্রমণের ফলে জনস্বাস্থ্যের ক্ষেত্রে পরিস্থিতির যে দ্রুত পরিবর্তন হচ্ছে, তার পরিপ্রেক্ষিতে কী কী ব্যবস্থা নেওয়া যায় তা খতিয়ে দেখতে সদস্য-দেশগুলোর সঙ্গে আলাপআলোচনা চালিয়ে যাওয়ার জন্য আইসিসি পরিচালন কর্তৃপক্ষকে অনুরোধ করেছে বোর্ড।”

আইসিসি-র গোপন তথ্যাদি, বিশেষ করে অভ্যন্তরীণ ই-মেল কী ভাবে ফাঁস হয়ে যাচ্ছে, এ দিনের বোর্ড মিটিং-এ তা নিয়েই বেশি সময় ধরে আলোচনা হয় বলে জানা গিয়েছে। এ ব্যাপারে মিটিং-এ বক্তব্য রাখেন বিদায়ী চেয়ারম্যান শশাঙ্ক মনোহর এবং অন্য সদস্যরা।

আইসিসি-র বিবৃতিতে বলা হয়েছে, একাধিক বোর্ড সদস্য ‘গোপনীয়তা’ ভঙ্গের বিষয়টি উত্থাপন করেন। তাঁরা মনে করেন, সংস্থার সুচারু পরিচালনের সঙ্গে সঙ্গতি রেখে বোর্ডের বিষয়াদির পবিত্রতা ও গোপনীয়তা রক্ষা করার ব্যাপারে দ্রুত ব্যবস্থা নেওয়া উচিত।

সংবাদ মাধ্যমের কাছে কী ভাবে আইসিসি-র গোপন বিষয় ফাঁস হয়ে যাচ্ছে সে সম্পর্কে তদন্ত করার ভার দেওয়া হয়েছে সংস্থার এথিক্স অফিসারকে।

Continue Reading

ট্রেন্ড্রিং