billy bowden
Arunava-Gupta
অরুণাভ গুপ্ত

নিউজিল্যান্ডের বিলি বাউডেন আম্পায়ারিং করার সময় তাঁর ভরপুর নাটুকে সিগন্যালিং দেওয়ার জন্য দর্শকদের কাছে দারুণ জনপ্রিয় ও বিখ্যাত। মিস্টার বিলির ছক্কার সংকেত দেওয়ার ভঙ্গি অভিনব। মজাদার-রসিক চরিত্রের অধিকারী হলেও নিজের দায়িত্ব পালনের ভূমিকায় একেবারে হিটলারে উপরে এককাঠি। তিনি যদি মনে করেন তাঁর সিদ্ধান্ত নির্ভুল তা হলে সেখান থেকে তাঁকে নড়ানো অসম্ভব। ঘটনা ঘটে ২০১১ বিশ্বকাপে।

বিশ্বকাপের বারান্দায়/১৩

সে বার আয়োজক দেশ ছিল ভারত, শ্রীলঙ্কা এবং বাংলাদেশ। সেখানে বাউডেনের নেওয়া একটা সিদ্ধান্ত ক্রিকেট দুনিয়ায় আলোড়ন ফেলে দিয়েছিল। মাথা চুলকে সকলে ভেবেছেন, এও কি সম্ভব? হয়-কে নয় করছেন না তিনি?

গ্রুপ পর্যায়ের ম্যাচ খেলছে ভারত ও ইংল্যান্ড। ইংল্যান্ডের ইয়ান বেলের বিরুদ্ধে ওঠা আবেদন নাকচ করে দেন বিলি। ভারতীয়রা ডিআরএস শরণাপন্ন হন। এতে বিগ স্ক্রিনে দেখা গেল বল পিচ লাইনে পড়েছে এবং হক আই অনুসারে স্টাম্পে আঘাত হানছে। বেল আর দাঁড়াননি, সোজা তাঁবু-মুখী হন। কিন্তু তাঁকে ক্রিজে ডেকে নেন আম্পায়ার বিলি।

তাঁর অভিমত হল, বলের গতি-প্রকৃতি ধারণা দিচ্ছে স্টাম্পের থেকে বলের দূরত্ব ২.৫ মিটার। তা হলে পরিস্কার হয়ে যাচ্ছে ডিআরএস পদ্ধতিতে গলদ রয়েছে। সুতরাং মাঠের আম্পায়ারের সিদ্ধান্ত চূড়ান্ত বলে বিবেচিত হবে। প্রাণ ফিরে পেয়ে ইয়ান বেল ৫২ রান করেন। তবে দিনের শেষে খেলার ফলাফল ছিল সমান-সমান। অর্থাৎ, নাটকীয় ‘টাই’।

আইসিসি ফ্যাসাদে পড়ল এবং যাকে বলে একেবারে ল্যাজে-গোবরে অবস্থা। সাজ-সাজ রব উঠল, ঢেলে সাজাও আইনকানুন। কে জানা বাপু, আবার যদি নতুন কোনো ফ্যাকড়া দেখা দেয়।

এ বার সংশোধিত নিয়মানুযায়ী, যদি দেখা যায়- হক আই আইন অনুযায়ী বল পরিষ্কার ভালো ভাবে স্টাম্পে লাগছে, তা হলে কোনো রকমের দূরত্ব-তফাত-প্রভাব জারিজুরি খাটবে না, ব্যাটসম্যান আইনসম্মত ‘আউট’। অর্থাৎ, ডিআরএস স্বমহিমায় প্রতিষ্ঠিত।

প্রসঙ্গত উল্লেখ্য, সে বারই ভারত প্রথম দেশ, যারা নিজের দেশের মাটিতে বিশ্ব চ্যাম্পিয়ন হয়।

dailyhunt

খবরের সব আপডেট পড়ুন খবর অনলাইনে। লাইক করুন আমাদের ফেসবুক পেজ। সাবস্ক্রাইব করুন আমাদের ইউটিউব চ্যানেল

বিজ্ঞাপন