Ishan Porel

ওয়েবডেস্ক:  উৎসবের মেজাজে মেতে উঠল চন্দননগর। যার ঢেউ ছড়িয়ে পড়ল গোটা বাংলাতেই। ১৯-অনূর্ধ্ব বিশ্বকাপ ক্রিকেটে বাংলার ঈশান পোড়েল তুলে নিয়েছেন দুই উইকেট। তার উপর ওই দু’টি উইকেটই তাঁকে উপহার দিয়েছেন অস্ট্রেলিয়ার দুই ওপেনার। স্বাভাবিক ভাবে গোটা দেশ যখন ভারতীয় দলের বিশ্ব চ্যাম্পিয়ন হওয়ার উচ্ছ্বাসে মেতে উঠেছে, প্রধানমন্ত্রী থেকে প্রাক্তন ক্রিকেটাররা বিশ্বজয়ীদের শুভেচ্ছা জানাচ্ছেন তখন চুপ করে বসে থাকবে কী করে চন্দননগর।

নিউজিল্যান্ডের বে ওভালে এ দিন টসে জিতে ব্যাটিংয়ের সিদ্ধান্ত নেয় অস্ট্রেলিয়া। এদিনও সেমিফাইনালের মতো  শুরু থেকেই বল হাতে জ্বলে ওঠেন বাংলার ঈশান।

প্রতিবেশীরা জানাচ্ছেন, ছোটো বেলা থেকেই ঈশানের ক্রিকেটের প্রতি টান ছিল প্রবল। কিন্তু বাবা তাঁকে ভর্তি করে দেন টেবল টেনিস ক্লাসে। ফলে ঈশানের মন পড়ে থাকত সেই বাইশ গজেই। প্রতিদিন বিকেলেই তাঁকে দেখা যেত ক্যাম্বিস বল হাতে শিবতলার মাঠে। এ হেন ঈশান এখন ভারতীয় দলের জার্সি পরে শুধু দেশের হয়ে প্রতিনিধিত্বই করছেন না, দেশকে সেরার শিরোপা আদায় করে নিতেও মুখ্য ভূমিকা নিলেন।

এক প্রতিবেশী অনূজ সাহা বলেন, ‘ক’দিন আগেও ওকে দেখেছি। একটা লম্বা আর রোগা চেহারার কিশোর যে এই অসাধ্য সাধন করতে পারে তা ঘূণাক্ষরেও টের পাইনি আমরা। এখানে চন্দননগর ন্যাশনাল স্পোর্টিংয়ে খেলত বিট্টু (ঈশানের ডাক নাম)। তারপর শুনলাম কলকাতায় খেলে। বাংলা দলের হয়ে ওর খেলার খবরও কেউ কেউ শুনেছি। কিন্তু বিশ্বকাপের আসরে ওর এই পারফর্ম্যান্সে আমরা আবেগ চেপে রাখতে পারছি না।’

উত্তর দিন

আপনার মন্তব্য দিন !
আপনার নাম লিখুন