রোহিত-পুজারায় জেরবার সাউথ আফ্রিকার কাছে এখন হার বাঁচানোর লড়াই

ভারত: ৫০২-৭ ডি ও ৩২৩-৪ ডি (রোহিত ১২৭, পুজারা ৮১, মহারাজ ২-১২৯:)

সাউথ আফ্রিকা: ৪৩১ (এলগার ১৬০, ডে কক ১১১, অশ্বিন ৭-১৪৫) ও ১১-১ (জাদেজা ১-৩)

বিশাখাপত্তনম: রানের খিদে যেন দিনের পর দিন বেড়েই যাচ্ছে রোহিত শর্মার। সে টেস্ট হোক বা একদিনের ম্যাচ। ব্যাট হাতে পেলেই যেন সেটা নিজের মর্জিমাফিক চালাচ্ছেন রোহিত।

প্রথম ইনিংসে ১৭৪ করেও মন ভরল না। ফের শতরান হাঁকালেন তিনি। প্রথম ইনিংসের শতরান যদি টেস্ট ওপেনার হিসেবে জায়গা পাকা করার ব্যাপারে, তা হলে দ্বিতীয় ইনিংসের শতরান বুঝিয়ে দিলেন কঠিন পরিস্থিতিতেও ব্যাট করতে তিনি সক্ষম।

যতই ভারতীয় বোলাররা স্পিনের বিরুদ্ধে দক্ষ হন না কেন, চতুর্থ দিনের পিচ সব সময়ে কঠিন পরীক্ষায় ফেলে। আর এখানে যখন উলটো দিকে তিন জন স্পিনার রয়েছেন, তখন একটু ভুলচুক হলেই ভয়াবহ ফলাফল হতে পারত।

সাউথ আফ্রিকা এমন একটা রানে পিছিয়ে থেকে তাদের প্রথম ইনিংস শেষ করেছিল, তাতে ভারতের খুব একটা স্বস্তিতে থাকার কথা ছিল না।

কারণ প্রথম ইনিংসে ৭১ রানে এগিয়ে থাকার মানে, দ্বিতীয় ইনিংসে যা খুশি হতে পারে। এই ধরুন সাউথ আফ্রিকা এমন দুর্দান্ত বল করল যে ভারত দেড়শোর আগেই শেষ হয়ে গেল, তা হলে পাশা উলটে যেত পুরোপুরি।

সে রকম একটা ভয় ধরেও ছিল যখন অষ্টম ওভারেই ময়াঙ্ককে ফিরিয়ে দেন মহারাজ। কিন্তু তার পরের ৪২ ওভার জুটিতে লোটেন পুজারা আর রোহিত।

রোহিত তো আগ্রাসী ছিলেনই কিন্তু এ দিন মাঝেমধ্যেই খোলস ছেড়ে বেরিয়ে আসতে দেখা যায় পুজারাকে। টেস্টের ইনিংসে তিনি দু’টো ছয় মারছেন, এটা সম্ভবত পুজারার অতি বড়ো ভক্তও বিশ্বাস করতে পারবেন না। কিন্তু তিনি সেটা করেছেন, আর করেছেন কারণ দল দাবি করেছিল তাই।

পুজারা যখন দু’টি ছয় মেরেছেন, তখন রোহিতের ব্যাট থেকে বেরিয়েছে সাতটা। তিনি দেড়শোর কম বল খেলে এবং ৮৫-এর বেশি স্ট্রাইক রেট রেখে টেস্ট ইনিংস খেলেছেন। অর্থাৎ বুঝিয়ে দিয়েছেন, ভারতীয় টেস্ট দলের নতুন বীরেন্দ্র সহবাগ তিনি হতেও পারেন।

আরও পড়ুন ধোনি, রোহিত শর্মার আগেই এই অনন্য রেকর্ডটি করে ফেললেন হরমনপ্রীত কৌর

রোহিতের শতরান আর পুজারার শতরান মিস করার পর ঝোড়ো ইনিংস খেলে যান জাদেজা, বিরাট এবং রাহানে। শেষে খেলা শেষ হওয়ার ৯ ওভার আগে ইনিংসের সমাপ্তি ঘোষণা করেন তিনি।

প্রথম ইনিংসে সাত উইকেট নিয়ে দুর্দান্ত প্রত্যাবর্তন ঘটিয়েছেন অশ্বিন। তাই তাঁর কাছেই গোটা দুয়েক উইকেট খেলা শেষের আগে প্রত্যাশা করেছিলেন বিরাট। কিন্তু একটি উইকেট তুলে নেন জাদেজা।

যা-ই হোক, খেলার বর্তমান যা পরিস্থিতি, তাতে রবিবার যদি বৃষ্টি না হয়, তা হলে ভারতের জয়ের সম্ভাবনা প্রবল।

Be the first to comment

Leave a Reply

Your email address will not be published.


*


This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.