Connect with us

ক্রিকেট

ইনিংসে হারতে হল না, এটাই যা সান্ত্বনার

ভারত: ১৬৫ ও ১৯১ (অগ্রবাল ৫৮, রাহানে ৩৯, সাউথি ৫-৬১)

নিউজিল্যান্ড: ৩৪৮ ও ৯-০ (ল্যাথাম ৯ অপরাজিত)

ওয়েলিংটন: ‘বল যেখানে নড়ে, ভারতীয় ব্যাটিং সেখানে ভেঙে পড়ে’। আজকের নয়, এই প্রবাদটা বহু দিনের। বল যেখানে সুইং করবে, ভারতীয় ব্যাটিংয়ের দুঃস্বপ্ন সেখানে আসতে বাধ্য। এই ওয়েলিংটন টেস্টেও সেটাই হল।

ওয়েলিংটন টেস্টের আগে পর্যন্ত বিশ্ব টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপে যে ক’টা টেস্ট ভারত খেলেছিল, সব জিতেছিল। সাতে সাত। এই টেস্ট শুরুর আগে তাই ফলাও করে প্রচার করা হয়েছিল যে নিউজিল্যান্ডকে প্রথম টেস্টে হারালেই রেকর্ড বইয়ে ঢুকে যাবে বিরাটবাহিনী। টানা আটটা টেস্ট জয়ের রেকর্ড।

রেকর্ডের হাতছানি থাকলেও, অনেকের যেটা মাথাতেই আসেনি, তা হল ওয়েলিংটনের বেসিন রিজার্ভের হাওয়া আর সুইং-আদর্শ পরিস্থিতি। কিন্তু সেই পরিস্থিতি যে ভারতের পক্ষে মোকাবিলা করা কষ্টকর হতে পারে তার আন্দাজ কি গত বছর নভেম্বরে পাওয়া যায়নি?

বাংলাদেশের বিরুদ্ধে গোলাপি বলের টেস্টে একবার ফিরে যান তো সবাই। টেস্টে বাংলাদেশ এত হতশ্রী পারফরম্যান্স করেছিল, যে ভারতের ব্যাটিং ব্যর্থতা অনেকটাই ঢাকা পড়ে গিয়েছিল। কিন্তু ওই টেস্টে বাংলাদেশের পেসারদের বিরুদ্ধে সাড়ে তিনশো রানও পেরোতে পারেনি ভারত। বিরাটের শতরান আর রাহানে-পুজারার অর্ধশতরান ছাড়া কেউ দাঁড়াতেই পারেননি।

ভারতীয় ব্যাটিংয়ের ফাঁকফোকর তো তখনই বোঝা গিয়েছিল। সেই গলদ যে রাতারাতি শুধরে যাবে, সেই আশা করাটাও ছিল মুর্খামি।

অন্যান্য দিনে ভারতীয় ব্যাটিং ধসে পড়লে হাল ধরেন বিরাট। কিন্তু এই সিরিজে তিনি নজিরবিহীন অফ-ফর্মে। চারটে টি-২০, তিনটে একদিনের ম্যাচ আর এই টেস্টের দুটো ইনিংস মিলিয়ে এখনও পর্যন্ত মাত্র এক বার ৫০-এর মুখ দেখেছেন তিনি।

এই টেস্টে কিছুটা দাঁড়ানোর চেষ্টা করেছিলেন মাত্র দু’জন। ওপেনার ময়াঙ্ক অগ্রবাল আর অজিঙ্ক রাহানে। এই কঠিন পরিস্থিতিতে ব্যাট করে অগ্রবাল বুঝিয়ে দিয়েছেন, সেরা ওপেনার হওয়ার যাবতীয় গুণ তাঁর মধ্যে রয়েছে। আর রাহানে বোঝাচ্ছেন, বিদেশের মাঠে তিনিই ভারতীয় ব্যাটিংয়ের অন্যতম সেরা বাজি।

ভারতের কপালে যে হারের খাঁড়া ঝুলছে সে তো তৃতীয় দিনই বোঝা গিয়েছিল। দেখার ছিল যে ইনিংসে হারের সম্মুখীন হয় কি না তারা। সেটা যে হয়নি, সেটাই ভারতের কাছে একমাত্র সান্ত্বনার। নয়তো বিশ্বের সেরা টেস্ট দলের এ ভাবে ইনিংসে হার, তা-ও কি না অপেক্ষাকৃত দুর্বল নিউজিল্যান্ডের বিরুদ্ধে, এটা মেনে নাওয়া কষ্টকর হত।

ভারতীয় ব্যাটিং তো ডুবেছেই, বোলিংয়ের অবস্থাও ভালো নয়। যে উইকেটে নিউজিল্যান্ডের পেসাররা ভারতকে দু’ বার দুশোর নীচে অলআউট করতে পারেন, সে পিচে ভারতীয় বোলাররা কার্যত ব্যর্থ। ইশান্ত শর্মা ছাড়া বাকি দুই পেসার বিশেষ কোনো প্রভাব ফেলতে পারেনি। অথচ এটাই না কি ভারতের সর্বকালের সেরা পেস আক্রমণ। তবে স্বস্তির খবর এই যে, কঠিন পরিস্থিতিতেও ভালো বল করেছেন অশ্বিন।

যা-ই হোক, সাউথ আফ্রিকা, ইংল্যান্ডের পর এ বার নিউজিল্যান্ডেও টেস্ট সিরিজ জেতা হচ্ছে না ভারতের। দ্বিতীয় টেস্টটা জিতে সিরিজ অমীমাংসিত রাখা যেতে পারে। সেটাই চাইবেন বিরাট কোহলি।

তবে একটা কথা বলে দেওয়া যাক, ক্রাইসচার্চের হ্যাগলে ওভালেও কিন্তু অসম্ভব হাওয়া চলে।

ক্রিকেট

“ওর ভয়ে গুটিয়ে থাকতাম, লুকোনোর জায়গা খুঁজতাম,” প্রাক্তন ভারত অধিনায়ক সম্পর্কে বললেন কপিল দেব

kapil

খবরঅনলাইন ডেস্ক: নিঃসন্দেহে ভারতের অন্যতম সেরা অধিনায়কদের মধ্যে একজন তিনি। তাঁর হাত ধরেই ভারত প্রথম বিশ্বজয়ের স্বাদ পেয়েছেন। অধিনায়ক ছিলেন যে হেতু, সহ-খেলোয়াড়রা নিশ্চয় তাঁকে সমীহ করে চলতেন। এ হেন কপিল দেবই (Kapil Dev) এমন একজনের অধিনায়কত্বে খেলেছেন, যাঁর ভয়ে নাকি তিনি গুটিয়ে থাকতেন, লুকোনোর জায়গা খুঁজতেন।

তিনি শ্রীনিবাস বেঙ্কটরাঘবন (Srinivas Venkataraghavan)। বিষেণ সিংহ বেদীর অধিনায়কত্বে কপিলের অভিষেক হলেও বেঙ্কটের অধিনায়কত্বে চারটে টেস্ট আর তিনটে একদিনের ম্যাচ খেলেছেন তিনি।

কপিলের দাবি, তাঁর মুখ দেখলেই না কি রেগে আগুন হয়ে যেতেন বেঙ্কট। কপিলের কথায়, “আমি ওকে খুব ভয় পেতাম। প্রথমত ও সব সময়ে ইংরেজিতে কথা বলত, আর দ্বিতীয়ত ওর রাগ ছিল সাংঘাতিক।”

কপিল যোগ করেন, “১৯৭৯-তে আমরা ইংল্যান্ড সফরে যাই। আমি সব সময়ে চেষ্টা করতাম এমন একটা জায়গায় থাকতে, যাতে ওর সঙ্গে আমার বেশি কথা না হয়। সে সময়ে আমাদের দলে বেদী, প্রসন্ন, চন্দ্রশেখর ছিল। তারা ওর বকুনি খেত না। কিন্তু ওর যাবতীয় রাগ এসে পড়ত আমার ওপর।”

এর পর ১৯৮৩ সালের একটি ঘটনার কথা বলেন কপিল। তখন তিনি অধিনায়ক আর বেঙ্কট তাঁর সহ-খেলোয়াড়। কপিলের কথায়, “আমি আগে সব সময়ে ওকে ‘স্যার’ বলতাম। এই সিরিজ থেকে বেঙ্কি বলে ডাকা শুরু করি।”

কপিল বলে চলেন, “বার্বাডোজে একটি টেস্ট খেলছি। বাউন্সি পিচ বলে পেসারদের বেশি সময়ে দিচ্ছি। এর পর বেঙ্কির বদলে প্রথমে রবি শাস্ত্রীকে নিয়ে এলাম। স্লিপে দাঁড়িয়ে ছিল বেঙ্কি। হঠাৎ রেগে গিয়ে বলতে শুরু করল, ‘কপিল, আমি কি তোমায় বলেছি যে আমি বল করব না?’ আমি বুঝতে পারতাম না যে তখন আমি অধিনায়ক না কি বেঙ্কি।”

উল্লেখ্য, বেঙ্কটের অধিনায়কত্বে ভারত ১৯৭৫ সালে প্রথম বিশ্বকাপ খেলতে নামে। পরবর্তীকালে তিনি একজন সফল আম্পায়ারও হন।

Continue Reading

ক্রিকেট

ন্যাটওয়েস্ট ফাইনালের ১৮ বছর, টুইটে নাসির হুসেনকে ট্রোল যুবরাজের, জবাবে নাসির যা বললেন…

খবরঅনলাইন ডেস্ক: ১৮ বছর আগে এই দিনেই ভারতীয় ক্রিকেটের অন্যতম এক স্মরণীয় মুহূর্ত এসেছিল। ন্যাটওয়েস্ট ফাইনাল জিতে নিয়েছিল সৌরভ গঙ্গোপাধ্যায়ের ব্রিগেড। এখনও ভারতীয় ক্রিকেটের ইতিহাসে অন্যতম সেরা একদিনের ম্যাচ হিসেবে আখ্যা পায় এটি।

সেই ম্যাচেরই স্মৃতি রোমন্থন করতে গিয়ে নাসির হুসেনকে হালকা করে ট্রোল করলেন যুবরাজ। নাসির অবশ্য যুবরাজের টুইটটাকে খেলোয়াড় সুলভ মনোভাবেই নিলেন আর তার জবাবও দিলেন।

ন্যাটওয়েস্ট ফাইনালের কয়েকটা ছবি এ দিন টুইটারে পোস্ট করেন যুবি। সেখানে তিনি লেখেন, “আমাদের তখন বয়স কম ছিল। আমাদের জেতার খিদে ছিল। অসাধারণ দলগত পারফরম্যান্সে ভর করে সে দিন আমরা ইংল্যান্ডকে হারিয়েছিলাম।”

এর পর নাসিরকে উদ্দেশ করে যুবরাজ লেখেন, “নাসির, তুমি যদি ভুলে যাও, তাই মনে করিয়ে দিলাম।”

এর উত্তরে নাসির লেখেন, “অসাধারণ কিছু ছবি বন্ধু। ভাগ করে নেওয়ার জন্য ধন্যবাদ।”

উল্লেখ্য, ওই ম্যাচে প্রথমে ব্যাট করে ৩২৫ করে ইংল্যান্ড। একদিনের কেরিয়ারে একমাত্র শতরানটি সে দিনই করেছিলেন নাসির। তাঁর সঙ্গে মার্কাস ট্রেস্কোথিকও শতরান করেছিলেন।

জবাবে ব্যাট করতে নেমে, ঝড় ওঠে সৌরভের ব্যাটে। ৪৩ বলে ৬০ করেন তিনি। তিনি তার পরেই ভেঙে পড়ে ভারতীয় ব্যাটিং। একটা সময়ে তাদের স্কোর গিয়ে ৫ উইকেটে ১৪৬। সব আশা যখন ছেড়ে দিয়েছিল ভারত, তখনই রুখে দাঁড়িয়েছিল যুবরাজ সিংহ আর মহম্মদ কঈফের ব্যাট।

কঈফের ৮৭ অপরাজিত আর যুবরাজের অর্ধশতরানে ভর করে ঐতিহাসিক একটি ম্যাচ জিতে যায় ভারত। তবে ম্যাচ শেষে সৌরভের জামা খুলে ওড়ানোর দৃশ্যটা এখনও ভারতীয় ক্রিকেটের অন্যতম সেরা ছবি হয়ে রয়েছে।

Continue Reading

ক্রিকেট

ক্রিকেটের প্রত্যাবর্তনে ঐতিহাসিক জয় ওয়েস্ট ইন্ডিজের

প্রথম টেস্টে ইংল্যান্ডকে তারা হারিয়ে দিল ৪ উইকেটে।

ইংল্যান্ড: ২০৪ ও ৩১৩ (জ্যাক ক্রলি ৭৬, ডিপি সিবলে ৫০, গ্যাব্রিয়েল ৫-৭৫)

ওয়েস্ট ইন্ডিজ ৩১৮ ও ২০০-৬ (ব্ল্যাকউড ৯৫, আর্চার ৩-৪৫)

সাউদাম্পটন (Southampton) : মাত্র পাঁচ রানের জন্য ঐতিহাসিক টেস্টে শতরান পেলেন না জারমেন ব্ল্যাকউড (J Blackwood)। কিন্তু যখন আউট হলেন তখন দেশের জয় প্রায় নিশ্চিত। শেষ পর্যন্ত জয় পেল ওয়েস্ট ইন্ডিজ (West Indies)। আন্তর্জাতিক ক্রিকেটের প্রত্যাবর্তনের পর প্রথম টেস্টে ইংল্যান্ডকে (England) তারা হারিয়ে দিল ৪ উইকেটে।

করোনার দাপটে ক্রীড়াজগতে নেমে এসেছিল। সব খেলার মতো ক্রিকেটের মঞ্চেও পর্দা পড়ে যায়। কিন্তু সেই করোনার কাছে শেষ পর্যন্ত মাথা নোয়াতে যে ইচ্ছুক নয় ক্রীড়াজগত, তার প্রমাণ হল ১১৬ দিন পর আন্তর্জাতিক ক্রিকেটের ফিরে আসা। আর সেই মাহেন্দ্রক্ষণে জয় ছিনিয়ে নিল ওয়েস্ট ইন্ডিজ।

গত চার দিন যা খেলা হয়েছিল তাতে পাল্লা ভারী ছিল ওয়েস্ট ইন্ডিজেরই। প্রথম ইনিংসে ক্যারিবিয়ান পেসের দাপটে ইংল্যান্ড গুটিয়ে গিয়েছিল মাত্র ২০৪ রানে। এই ইনিংসে সর্বোচ্চ স্কোর ছিল অধিনায়ক বেন স্টোক্সের। তাও তিনি অর্ধশত রানের গণ্ডি ছুঁতে পারেননি। বল হাতে ভেলকি দেখিয়েছিলেন ক্যারিবিয়ান অধিনায়ক জেসন হোল্ডার (৬-৪২) এবং শ্যানন গ্যাব্রিয়েল (৪-৬২)।

ব্রাথওয়েট আর ডাওরিচের ব্যাটিঙের সুবাদে ওয়েস্ট ইন্ডিজ প্রথম ইনিংসেই ১১৪ রানের লিড নিয়ে নিয়েছিল।

দ্বিতীয় ইনিংসে অবশ্য কিছুটা মুখরক্ষার খেলা খেলে ইংল্যান্ড। ক্রলি (৭৬), সিবলে (৫০) এবং স্টোক্সের (৪৩) ব্যাটিং-এ ভর করে ইংল্যান্ড পৌঁছে যায় ৩১৩ রানে। এই ইনিংসেও বল হাতে দাপট দেখান গ্যাব্রিয়েল। ৭৫ রানে ৫ উইকেট নিয়ে এই টেস্টে তিনি শিকার করেন ৯ জনকে।

জয়ের জন্য ওয়েস্ট ইন্ডিজের দরকার ছিল ২০০ রানের। লক্ষ্যমাত্রা যে খুব একটা বড়ো তা নয়, কিন্তু ২৭ রানে ৩ উইকেট চলে যাওয়ার পরে আশার আলো ঝিলিক মারে ইংল্যান্ড শিবিরে। কিছুটা চাপে পড়ে ক্যারিবিয়ানরা। কিন্তু ওপেনার ক্যাম্পবেল আহত হয়ে সাময়িক ভাবে অবসর নেওয়ায় দলের তৃতীয় উইকেট পড়ার পর ছ’ নম্বর ব্যাটসম্যান জারমেন ব্ল্যাকউড মাঠে নামতেই ম্যাচের রাশ ক্রমশ ইংল্যান্ডের হাত থেকে চলে যেতে শুরু করে। চেজকে সঙ্গী করে দলের স্কোর পৌঁছে দেন ১০০-য়। এর পর ব্ল্যাকউডের সঙ্গী হন ডাওরিচ, যিনি গত দু’ বছরে সব চেয়ে সফল টেস্ট উইকেটকিপার-ব্যাটসম্যান।

পঞ্চম উইকেটের জুটিতে রান ওঠে ৬৮ রান। ডাওরিচ আউট হন দলের ১৬৮ রানে। তার পর ৯৫ করে ব্ল্যাকউড যখন আউট হন তখন জয়ের জন্য দরকার মাত্র ১১ রান। ব্যাট করতে ফিরে আসেন ক্যাম্পবেল। অধিনায়ক হোল্ডারের সঙ্গে জুটি প্রয়োজনীয় রানটুকু তুলে দেন তিনি।

Continue Reading
Advertisement
বাংলাদেশ2 hours ago

বাবা-মায়ের পাশে চিরনিদ্রায় প্লে-ব্যাক সম্রাট এন্ড্রু কিশোর

রাজ্য3 hours ago

প্রকাশিত হয়েছে মাধ্যমিকের ফলাফল, ভরতি কবে এবং কী ভাবে?

প্রযুক্তি4 hours ago

রিলায়েন্সের নতুন ‘জিও গ্লাস’, চশমাটি কী কাজে লাগবে?

রাজ্য5 hours ago

কলকাতার পাশাপাশি চিন্তা বাড়াচ্ছে উত্তরবঙ্গের দুই জেলার করোনা-পরিস্থিতি

Amit Shah
দেশ6 hours ago

মোদী সরকারের অগ্রাধিকারের তালিকায় নারী ও শিশুদের নিরাপত্তা: অমিত শাহ

গান-বাজনা6 hours ago

১২ বছরের পথচলায় ‘মুক্তধারা’র মুকুটে আরও একটি পালক, চালু হল ইউটিউব চ্যানেল

laptop
কেনাকাটা6 hours ago

ল্যাপটপ কিনবেন? দেখে নিন ২৫ হাজার টাকার মধ্যে এই ৫টি ল্যাপটপ

বিদেশ7 hours ago

আইসোলেশনে থাকাকালীন বিশালাকার পাখির কামড় খেলেন ব্রাজিলের প্রেসিডেন্ট

কেনাকাটা

laptop laptop
কেনাকাটা6 hours ago

ল্যাপটপ কিনবেন? দেখে নিন ২৫ হাজার টাকার মধ্যে এই ৫টি ল্যাপটপ

খবরঅনলাইন ডেস্ক : কোভিভ ১৯ অতিমারির প্রকোপে বিশ্ব জুড়ে চলছে লকডাউন ও ওয়ার্ক ফ্রম হোম। অনেকেই অফিস থেকে ল্যাপটপ পেয়েছেন।...

কেনাকাটা3 days ago

হ্যান্ডওয়াশ কিনবেন? নামী ব্র্যান্ডগুলিতে ৩৮% ছাড় দিচ্ছে অ্যামাজন

খবরঅনলাইন ডেস্ক : করোনাভাইরাস বা কোভিড ১৯ এর সঙ্গে লড়াই এখনও জারি আছে। তাই অবশ্যই চাই মাস্ক, স্যানিটাইজার ও হ্যান্ডওয়াশ।...

কেনাকাটা6 days ago

ঘরের একঘেয়েমি আর ভালো লাগছে না? ঘরে বসেই ঘরের দেওয়ালকে বানান অন্য রকম

খবরঅনলাইন ডেস্ক : একে লকডাউন তার ওপর ঘরে থাকার একঘেয়েমি। মনটাকে বিষাদে ভরিয়ে দিচ্ছে। ঘরের রদবদল করুন। জিনিসপত্র এ-দিক থেকে...

কেনাকাটা1 week ago

বাচ্চার জন্য মাস্ক খুঁজছেন? এগুলোর মধ্যে একটা আপনার পছন্দ হবেই

খবরঅনলাইন ডেস্ক : নিউ নর্মালে মাস্ক পরাটাই দস্তুর। তা সে ছোটো হোক বা বড়ো। বিরক্ত লাগলেও বড়োরা নিজেরাই নিজেদেরকে বোঝায়।...

নজরে