ভারত ২৫০

অস্ট্রেলিয়া ১৯১-৭ (হেড ৬১ অপরাজিত, হ্যান্ডস্‌কম্ব ৩৪, অশ্বিন ৩-৫০)

অ্যাডেলেড: একটা সময় ছিল যখন অস্ট্রেলিয়া ব্যাট করতে নামলেই বিপক্ষের ঘাম ছুটতে শুরু করে দিত। হেডেন, ল্যাঙ্গারের ওপেনিং জুটি এবং তিন নম্বরে রিকি পন্টিং। বিপক্ষকে উড়িয়ে দেওয়ার জন্য এই তিনটে নামই ছিল যথেষ্ট। এই সাম্রাজ্যের পতনের পরেও অবশ্য অস্ট্রেলিয়ার ব্যাটসম্যানদের দাপট খুব একটা কমেনি। মাইকেল ক্লার্ক, মাইকেল হাসি বা হালফিলের ডেভিড ওয়ার্নার বা স্টিভ স্মিথ। ব্যাটসম্যানরা দাঁড়িয়ে গেলেই কালঘাম বেরিয়ে যেত বোলারদের। এখন অবশ্য সেই সাম্রাজ্য পুরোপুরি পড়ে গিয়েছে। অ্যাডেলেড টেস্টে যত জন ব্যাটসম্যান অস্ট্রেলিয়া নামিয়েছে তাঁদের মোট টেস্ট খেলার সংখ্যা একশোর কিছু বেশি।

এই অল্প সংখ্যক ম্যাচের অভিজ্ঞতাসম্পন্ন ব্যাটসম্যানদের সামনে ভারতীয় বোলাররা দাপট দেখাবেন, সেটা আশা করাই হচ্ছিল। এবং সেটাই হল। মাত্র ২৫০ রানের পুঁজি নিয়েও অস্ট্রেলিয়াকে চাপে রেখে দিল ভারত। দিনের শেষে ট্র্যাভিস হেডের ঠান্ডা মাথা অস্ট্রেলিয়াকে লড়াইয়ে রাখলেও চালকের আসনে আপাতত ভারতই বসে।

আরও পড়ুন দ্রাবিড় আর পুজারার এই পরিসংখ্যানগত মিল আপনাকে চমকে দেবেই

কয়েক বছর আগেও অস্ট্রেলিয়া যখন ব্যাট করত, বিপক্ষকে ভাবাত তাদের দুর্ধর্ষ রানরেট। রানের গতি দিয়েই তারা বিপক্ষকে মাত করে দেওয়ার চেষ্টা করত। পনেরো বছর আগে এই অ্যাডেলেডেই যে ঐতিহাসিক টেস্ট ভারত জেতে, তার প্রথম দিনের খেলাটা অনেকেরই মনে থাকার কথা। দিনের ৯০ ওভারে ৪০০ তুলেছিল অস্ট্রেলিয়া। এ বার তুলল তার অর্ধেকেরও কম। এই পরিসংখ্যানেই কার্যত প্রমাণিত হয়ে যায়, কী রকম ভঙ্গুর দল সামলাচ্ছেন টিম পেইন।

যাই হোক, সব কথা যদি অস্ট্রেলিয়ার দুর্বল ব্যাটিং-এর ওপরে খরচ করা হয়, তা হলে ভুল হবে। ভারতের আঁটোসাঁটো বোলিং-এর কথাও তো বলতে হবে। দ্বিতীয় দিনের প্রথমাংশে এ দিন নায়ক ছিলেন অশ্বিন। তাঁর ঘূর্ণি সামলাতে না পেরে প্যাভিলিয়নের পথ দেখেন মার্কাস হ্যারিস, শন মার্শ এবং উসমান খোয়াজা। দিনের শেষার্ধ থাকল ইশান্ত আর বুমরাহর নামে। এই দুই বোলারই দু’টি করে উইকেট নেন। উইকেটের জায়গায় কোনো সংখ্যা না থাকলেও, দুর্দান্ত বল করেছেন মহম্মদ শামিও। সব মিলিয়ে এই টেস্টে এখনও পর্যন্ত কিছুটা এগিয়েই রয়েছে ভারত। তৃতীয় দিনের খেলার গতিই এই টেস্টের সম্ভাব্য ভবিষ্যতের ব্যাপারে কিছু জানান দিতে পারে।

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here