india vs england trentbridge test
শতরানের পথে কোহলি। ছবি: বিসিসিআই টুইটার

ভারত: ৩২৯ এবং ৩৫২-৭ ( বিরাট ১০৩ পুজারা ৭২, রশিদ ৩-১০১)

ইংল্যান্ড: ১৬১ এবং ২৩-০ (জেনিংস ১৩ অপরাজিত)

ওয়েবডেস্ক: প্রথম ইনিংসের ‘ভুল’ বিরাট দ্বিতীয় ইনিংসে করলেন না। শতরান করলেন। কিন্তু বিরাট কোহলির শতরান এখন আর খবরের শিরোনাম হয় না। শিরোনাম হয়, কোন ঢঙে তিনি শতরান করলেন। সোমবার শতরান করতে গিয়ে একটি রেকর্ড করে ফেললেন ভারত অধিনায়ক। চতুর্থ মন্থর গতির শতরান করলেন তিনি। তাঁর ব্যাটে ভর করে ইংল্যান্ডের ওপরে একেবারে জাঁকিয়ে বসেছে ভারত। বলতে দ্বিধা নেই, যে বিদেশের মাঠে টেস্টম্যাচ জয়ের এ রকম সুবর্ণ সুযোগ, খুব একটা আসে না।

সব কিছুই একটা চেন রিয়্যাকশনের মতো হচ্ছে। প্রথমে ব্যাট করে মোটামুটি একটা ভালো রান করেছিল ভারত। এই রানের সুবাদেই বাড়তি সাহস পেয়ে যান বোলাররা। আবার ভারতীয় বোলারদের দুর্ধর্ষ বোলিং-এর ফলে দ্বিতীয় ইনিংসে দুর্দান্ত ব্যাট করে গেল ভারত।

রবিবার দিনের শেষেই ভারতের হাতে ছিল ম্যাচ। তাই মনে করা হচ্ছিল সোমবার শুরু থেকে দ্রুত গতিতে রান করবেন ভারতীয় ব্যাটসম্যানরা। কিন্তু রানের গতি বাড়ানোর দিকে হাটেনইনি বিরাট কোহলি এবং চেতেশ্বর পুজারা। প্রথম ইনিংসে ফর্মে ফিরেছেন রাহানে, তাই পুজারাও জানতেন রানে ফের এ রকম সুযোগ খুব কমই আসে।

সেই সুযোগের সদ্ব্যবহার করলেন পুজারা। প্রথম ইনিংসে পঞ্চাশ রানের পরে যে স্বস্তি রাহানের মুখচোখে দেখা গিয়েছে, ঠিকই একই জিনিসের পুনরাবৃত্তি হল দ্বিতীয় ইনিংসে পুজারার ক্ষেত্রে। দলের স্কোরের পাশাপাশি ব্যক্তিগত স্কোরটাও বাড়াতে হবে। তাই কোনো তাড়াহুড়ো না করেই দলকে এগিয়ে নিয়ে যেতে থাকলেন পুজারা। উলটো দিকে বিরাটও নিজের আগ্রাসী মনোভাব অনেকটাই ঝেড়ে ফেলেছেন।

আরও পড়ুন লক্ষ্য পূরণে লাগল ২ বল, সবচেয়ে একপেশে আন্তর্জাতিক ক্রিকেট ম্যাচ হয়েছিল আজকের দিনেই

তবু বলতে হয়, শতরানের সুযোগ হাতছাড়া করলেন এ বার পুজারা। ঠিক যে ভাবে ৭২টা রান তিনি করলেন, আর একটু ধৈর্য দেখালে শতরান চলে আসত। সত্যি কথা বলতে কী, ইংল্যান্ডের মাঠে নিজের নামের পাশে শতরান লাগিয়ে নিলে ব্যাপারটা একটা অন্য মাত্রা পেয়ে যায়। তবে পুজারা শতরান হাতছাড়া করলেও এ বার কিন্তু বিরাট আর সুযোগ হাতছাড়া করেননি। অবলীলায় পেরিয়ে গেলেন শতরান।

এই সিরিজে বিরাটকে দেখে বারবার ফিরে আসছে চার বছর আগের সেই সিরিজের কথা, যখন এই ব্রড-অ্যান্ডারসনদের মুখোমুখি হতে কী ভাবে কেঁপে গিয়েছিলেন তিনি। যাই হোক, এ বার অন্য বিরাট। কেরিয়ারের ২৩তম শতরান করে ফেললেন তিনি। যে গতিতে এগোচ্ছেন বিরাট, ভবিষ্যতে সচিনের টেস্ট শতরানের রেকর্ডটা টপকে গেলেও অবাক হওয়ার কিছু থাকবে না।

আরও পড়ুন এশিয়ান গেমস দ্বিতীয় দিন লাইভ: ইতিহাস সৃষ্টি করে সোনা জিতলেন বিনেশ ফোগত

এ দিকে প্রথম ইনিংসের দুর্দান্ত বোলিং আত্মবিশ্বাস দিল ব্যাটসম্যান হার্দিক পাণ্ড্যকে। শেষ বেলায় ঝোড়ো অর্ধশতরান করে ফেললেন তিনি।

৫২৩-এর লক্ষ্যমাত্রা নিয়ে ব্যাট করতে নেমে দিনের শেষে একটাও উইকেট পড়েনি ইংল্যান্ডের। কিন্তু প্রতি ক্ষণে মনে হচ্ছিল উইকেট পড়তে পারে। বিরাটবাহিনীর এখন আশা চতুর্থ দিনেই কাজ শেষ করে সিরিজে দুর্দান্ত ভাবে যেন সমতা ফেরাতে পারে তারা।

 

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য দিন !
আপনার নাম লিখুন