শতরানে পৌছনোর পর রোহিত

ভারত: ১৯৫-২ (রোহিত ১১১ অপরাজিত, ধাওয়ান ৪৩, অ্যালেন ১-৩৩)

ওয়েস্ট ইন্ডিজ: ১২৪-৯ (ব্রাভো ২৩, পল ২০, ভুবনেশ্বর ২-১২)

লখনউ: রবিবার প্রথম ম্যাচটি জিতলেও বেশ চাপে পড়ে গিয়েছিল ভারত। বলা যেতে পারে কষ্টার্জিত জয়ই এসেছিল ভারতের। কিন্তু দ্বিতীয় ম্যাচে ভারতকে জেতার জন্য বিশেষ কষ্টই করতে হল না। ওয়েস্ট ইন্ডিজকে দুরমুশ করল ভারত। এই জয়ের নেপথ্যে থাকলেন হিট ম্যান রোহিত। প্রথম ক্রিকেটার হিসেবে চারটে টি২০ শতরানের পাশাপাশি টি২০ ক্রিকেটে ভারতীয় হিসেবে সর্বোচ্চ রানসংগ্রহকারীও হলেন তিনি।

রোহিত শর্মার কেরিয়ারটা দু’ভাগে ভাগ করা যেতে পারে। ২০১৩-এর আগে এবং ২০১৩ থেকে। ২০০৭-এর টি২০ বিশ্বকাপে অভিষেক ঘটানো রোহিতের শুরুর দিকে কেরিয়ার ছিল অনিশ্চয়তায় ভরা। বেশির ভাগ ম্যাচেই রান নেই। গড় খুব কম। কিন্তু যখন বড়ো ইনিংস খেলতেন, বুঝিয়ে দিতেন তাঁর প্রতিভা। ২০১৩-এর জানুয়ারিতে এল তাঁর কেরিয়ারে একটি সন্ধিক্ষণ, যখন তাঁকে দিয়ে ওপেন করানোর সিদ্ধান্ত নিলেন তৎকালীন অধিনায়ক মহেন্দ্র সিংহ ধোনি। ব্যাস, ভাগ্য ঘুরে গেল রোহিতের। বিরাটের পরে ভারতের সব থেকে সফল ব্যাটসম্যান হয়ে গেলেন তিনি। একদিনের ক্রিকেটে তাঁর ব্যাট থেকে বেরোল তিন তিনখানা দ্বিশতরান। সেই রোহিতই এ দিন শতরান করলেন এবং সেই সঙ্গে করে ফেললেন একটি রেকর্ড।

ভারতীয় হিসেবে টি২০ আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে সর্বোচ্চ রানের মালিক হয়ে গেলেন তিনি। পেরিয়ে গেলেন তাঁরই সতীর্থ বিরাটকে। এ দিন রোহিত ইনিংস যখন শুরু করেন, তখন তাঁকে ১১ রান করতে হত বিরাটকে পেরিয়ে যাওয়ার জন্য। রোহিত ইনিংস করলেন আরও একশো রান করে।

টসে জিতে ফিল্ডিং নেওয়ার পরে এ দিন বেশ ভালো শুরু করেছিলেন ওয়েস্ট ইন্ডিজের বোলাররা। আগের ম্যাচে ওশান থমাস গতিতে রোহিত এবং ধাওয়ানকে মাত করে তাক লাগিয়ে দিয়েছিলেন। এ দিন তাই একটু সন্তর্পণেই শুরু করে ভারত। প্রথম পাঁচ ওভার মোটামুটি দেখে নেওয়ার পরে, শুরু হয় আসল খেলা। বলা ভালো রোহিতের তাণ্ডব।

রোহিতের তাণ্ডব কতটা বেশি ছিল, সেটা শুধু একটা তথ্যেই বোঝা যাবে। ৪৩ রান করে ধাওয়ান যখন আউট হলেন তখন স্কোরবোর্ডে উঠে গিয়েছে ১২৩। আসলে মঙ্গলবার বাকি ব্যাটসম্যানদের দায়িত্ব ছিল শুধু রোহিতকে সংগত করা। সেটা তাঁরা করেছেন একেবারে সঠিক ভাবে। টি২০ আন্তর্জাতিকে চতুর্থ এবং গত ১১ মাসে তৃতীয় শতরান করে ফেললেন রোহিত।

টি২০ ক্রিকেটে বরাবরই শক্তিধর দেশের মধ্যেই একটা ওয়েস্ট ইন্ডিজ। যে দলের পোলার্ড, ড্যারেন ব্রাভো, কার্লস ব্রাথওয়েটের মতো ক্রিকেটার থাকেন তারা লড়বে এমনই ধরে নেওয়া যায়। কিন্তু এ দিন সেটা হলই না। ভারতীয় বোলারদের সামনে কোনো লড়াই-ই দিতে পারল না তারা।

প্রথমে শুরু করে দিয়েছিলেন খলিল আহমেদ, হোপ এবং হেটমায়ারকে ফিরিয়ে। তার পর আসরে নামেন কুলদীপ, ভুবনেশ্বর, বুমরাহরা। কুড়ি ওভারে ১২৪ রানে শেষ করে ওয়েস্ট ইন্ডিজ। এই জয়ের ফলে এক ম্যাচ বাকি থাকতেই টি২০ সিরিজ পকেটে পুরে ফেলল রোহিত শর্মার ভারত।

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here