ওয়েবডেস্ক: দক্ষিণ আফ্রিকা মানেই বাউন্সি উইকেট। পেসারদের স্বর্গরাজ্য। সেই স্বর্গরাজ্যে ব্যাট করার জন্য আলাদা প্রস্তুতি দরকার হয় উপমহাদেশের ব্যাটসম্যানদের। দেশের মাটিতে বিপুল সাফল্য পাওয়া বিরাটের দল কেমন খেলবেন সেখানে, তা নিয়ে উৎসুক ভারতের ক্রিকেট জনতা।

এ সবের মধ্যেই একটা অবাক করা খবর নজর কাড়ল ভারতের ক্রিকেট মহলে। কেপটাউনের নিউল্যান্ডে প্রথম টেস্টে হয়তো ততটা বাউন্সি উইকেট পাবেন না কোহলিরা। কিন্তু কেন ঘরের মাটিতে কোহলিদের পেয়েও বাউন্সি উইকেট দিতে চাইছে না ডিভিলিয়ার্সের দল?

দিচ্ছে না নয়, দিতে পারছে না। অনেক বছর পর এবার ব্যাপক খরা হয়েছে নিউল্যান্ডে। ফলে জল খরচে বসেছে কিছু বাধা নিষেধ। তাতেই পিচ তৈরি করতে সমস্যায় পড়েছেন পিচ কিউরেটরর ইভান ফ্লিন্ট। খরার জন্য ফতোয়া জারি হয়েছে দৈনিক ৮৭ লিটারের বেশি জল ব্যবহার করা যাবে না। ফ্লিন্টের কথায়, নিউল্যান্ডে এমনিতে মাটির তথা থেকে জল তোলার ব্যবস্থা রয়েছে। কিন্তু ২২ গজে নিয়মিত জল দেওয়া গেলেও আউটফিল্ডে সপ্তাহে দু’বারের বেশি জল দেওয়া যাচ্ছে না। ফ্লিন্ট বলছেন, “বাইশ গজ সবুজ ঘাসে ঢাকা থাকলেও আউটফিল্ড কিছুটা শুকনো হবে। সমস্যা হল, পিচে গতি রাখার পাশাপাশি আমাদের এটাও মাথায় রাখতে হচ্ছে যাতে বল সহজে গ্রিপ করে টার্ন না করানো যায়। তার জন্য পিচকে বাউন্সি করতে হবে। এর জন্য নিয়মিত রোল করা দরকার। আমরা সেটা করছিও, কিন্তু লক্ষ্য রাখতে হচ্ছে যাতে ঘাস না মরে যায়”।

ফ্লিন্ট বলছেন, “আমাদের দরকার সকালে কিছুক্ষণ বৃষ্টি, তারপর খটখটে রোদ। কিন্তু কতদিন পাওয়া যাবে জানি না। উইকেট বাউন্সি করার যাবতীয় চেষ্ট আমরা করব, কিন্তু সেটা ওয়ান্ডারার্স বা সেঞ্চুরিয়নের মতো হবে না”।

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here