ইডেনে রাসেল ঝড়, প্লে-অফের আশা জিইয়ে রাখল নাইট রাইডার্স

প্লে-অফে আশা জিইয়ে রাখার জন্য রবিবারের ম্যাচে জিততেই হত কেকেআরকে। তাই করল তারা। অর্থাৎ ইডেনে দুরন্ত জয় নাইটদের

0
russel

কলকাতা: ২৩২-২ ( রাসেল ৮০ নট আউট, গিল ৭৬, হার্দিক ১-৩১)

মুম্বই:  ১৯৮-৭ (হার্দিক ৯১, যাদব ২৬, রাসেল ২-২৫ )

ওয়েবডেস্ক: রবিবার চলতি আইপিএলে সমর্থকদের সম্ভবত সবচেয়ে সেরা ম্যাচটা উপহার দিল কলকাতা নাইট রাইডার্স। গত কয়েক ম্যাচে লাগাতার হার। ফলে মানসিক দিয়ে খেলোয়াড়রা যে অনেকটাই পিছিয়ে পড়েছিলেন সেই নিয়ে নতুন কিছু বলার নেই। প্লে-অফে আশা জিইয়ে রাখার জন্য রবিবারের ম্যাচে জিততেই হত কেকেআরকে। তাই করল তারা। অর্থাৎ ইডেনে দুরন্ত জয় নাইটদের।

টুর্নামেন্টের শুরু থেকেই যদি এমনটা উপহার দিত নাইটবাহিনী তা হলে ইতিমধ্যেই হয়তো তারা প্লে-অফে পৌঁছে যেত। সারা টুর্নামেন্টে কেকেআরের ওপেনিং তেমন নজর কাড়তে পারেনি। রবিবার নাইটদের ওপেনিং কিন্তু হিট। শুরু থেকেই ব্যাটিং-ঝড় লিন এবং শুভমন গিলের। চার রানের জন্য শতরানের পার্টনারশিপ হাতছাড়া তাঁদের। দু’জনই অর্ধশতক করেন।

আরও পড়ুন বিরাটদের বিরুদ্ধে জয়, লিগ শীর্ষে পৌঁছে কোয়ালিফায়ারে জায়গা করে নিল সৌরভের দল

তবে আসল ঝড় তখনও বাকি ছিল। অর্থাৎ রাসেল-ঝড়। টুর্নামেন্ট যিনি নাইটদের সব চেয়ে সফল ক্রিকেটার। প্রথমে কিছুটা ধরে খেললেন তার পর যা করার তা-ই করলেন। অর্থাৎ ঝড়ের গতিতে ব্যাটিং। ৮০ রানে অপরাজিত থেকে দু’শোর গণ্ডি পার করে দলকে মানসিক ভাবে অনেকটাই এগিয়ে দেন তিনি।

টার্গেট তাড়া করতে নেমে শুরু থেকেই ধাক্কা খায় মুম্বই, ডিকক, রোহিতদের উইকেট হারিয়ে। এক সময় মনে হচ্ছিল ম্যাচে ফেরা সম্ভব নয় মুম্বইয়ের পক্ষে। কিন্তু তখনই ব্যাট হাতে দলকে এগিয়ে নেওয়ার চেষ্টা চালান হার্দিক পাণ্ড্য। ভাই ক্রুনালকে নিয়ে অর্ধশতকের পার্টনারশিপও করেন। ৯১ রানের ঝকঝকে ইনিংস উপহার দেন। তবে দলকে জয় এনে দিতে পারেননি। ম্যাচে ৩৪ রানে জয় নাইট রাইডার্সের। পঞ্চম স্থানে উঠে এল তারা।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here