kuldeep yadav in ecstasy in manchester

ইংল্যান্ড ১৫৯-৮ (বাটলার ৬৯, রয় ৩০, যাদব ৫-২৪)

ভারত ১৬৩-২ (১৮.২ ওভারে) (রাহুল ৮৯, রোহিত ৩২, কোহলি ২০)

ম্যানচেস্টার:প্রতিপক্ষকে বধ করেই ইংল্যান্ড-যাত্রা শুরু করল ভারত। ইংল্যান্ডের ইনিংসে বল হাতে ভেলকি দেখালেন কুলদীপ যাদব। আর নিজেদের ইনিংসে ব্যাট হাতে সংহার মূর্তি ধরলেন কে এল রাহুল। ফলে আট উইকেটে জয় ছিনিয়ে নেয় ভারত। তিনটি ম্যাচের টি২০ সিরিজে ১-০ এগিয়ে গেল তারা।

মঙ্গলবার টসে জিতে প্রথমে ফিল্ডিং-এর সিদ্ধান্ত নেন ভারত অধিনায়ক বিরাট কোহলি। অস্ট্রেলিয়ার বিরুদ্ধে যে ভাবে শেষ করেছিল, ঠিক সেই গতিতেই শুরু করে ইংল্যান্ড। প্রথম পাঁচ ওভারের মধ্যে ৫০ তুলেই বিরাটবাহিনীকে চাপে ফেলে দিয়েছিলেন জেসন রয় এবং জস বাটলার। ঠিক যে সময় মনে হচ্ছিল, অনেক দিন পর ভারত চাপে পড়েছে, তখনই ঘুরে দাঁড়ায় বোলাররা। পঞ্চম ওভারের শেষ বলেই রয়কে প্যাভিলিয়নে পাঠিয়ে দেন উমেশ যাদব।

তার পর থেকে ইংল্যান্ড ইনিংস যখনই দাঁড়ানোর চেষ্টা করেছে ঘুরে দাঁড়িয়েছেন ভারতের বোলাররা। একমাত্র জস বাটলারের অর্ধশতরান ছাড়া সে ভাবে কেউ দাঁড়াতেই পারেননি। এই আবহে ভেলকি দেখিয়ে যান কুলদীপ যাদব। চার ওভার হাত ঘুরিয়ে পাঁচটা উইকেট তুলে নেন তিনি। তবে ইংল্যান্ডের ইনিংসে চোদ্দোতম ওভারেই ম্যাচের মোড় ভারতের দিকে ঘুরিয়ে দেন কেকেআরের এই স্পিনার। ছ’বলের মধ্যেই তিনি মর্গ্যান, বেয়ারস্টো এবং রুটকে ফেরত পাঠান। শেষ দিকে ডেভিড উইলির ঝোড়ো একটা ইনিংসের সুবাদে ১৬০-এর কাছাকাছি পৌঁছোয় ইংল্যান্ড।

১৬০ রানের লক্ষ্যমাত্রা নিয়ে ব্যাট করতে নামে ভারত। শুরুতেই অবশ্য উইকেট খোয়ায় তারা। দলের ৭ রানের মাথায় নিজস্ব পাঁচ রানে উইলির বলে বোল্ড হয়ে ফিরে যান শিখর ধাওয়ান। রোহিত শর্মাকে সঙ্গ দিতে উইকেটে আসেন কে এল রাহুল। দু’ জনেই স্বচ্ছন্দ গতিতে রান এগিয়ে নিয়ে যেতে থাকেন। তবে দু’ জনের মধ্যে অনেক বেশি বিধ্বংসী ছিলেন রাহুল। নিজের ৩২ রানের মাথায় রোহিত যখন আউট হন দলের স্কোর তখন ১৩০। শতরান থেকে রাহুল তখন ১১ রান দূরে। ব্যাট করতে নামেন অধিনায়ক বিরাট কোহলি। কিছুক্ষণ পরেই সেঞ্চুরি করেন রাহুল। মাত্র ৫৩ বলে শতরান পূর্ণ করেন তিনি। শেষ পর্যন্ত ৬ মেরে দলকে জয়ের লক্ষ্যমাত্রায় পৌঁছে দেন অধিনায়ক কোহলি। তাঁর সংগ্রহ ২২ বলে ২০ রান।

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here