collin munro

নিউজিল্যান্ড ১৯৬-২ (মানরো ১০৯ অপরাজিত, গাপ্টিল ৪৫, চহ্বল ১-৩৬)

ভারত ১৫৬-৭ (বিরাট ৬৫, ধোনি ৪৯, বোল্ট ৪-৩০)

রাজকোট: টি-২০তে নিউজিল্যান্ড যে ভারতের প্রধান গাঁট, তা ফের একবার প্রমাণিত হল। পাঁচ ম্যাচ হারের পর দিল্লিতে প্রথম বার টি-২০তে নিউজিল্যান্ডকে হারিয়েছিল ভারত। তার তিন দিন পরেই ফের প্রত্যাবর্তন কিউয়িদের। কলিন মানরোর শতরানে ভর করে ভারতকে উড়িয়ে দিল তারা।

দিল্লিতে যে ভাবে ভারত শুরু করেছিল, এ দিন ঠিক সে ভাবেই শুরু করেছিল নিউজিল্যান্ড। দিল্লিতে যেমন শুরুতে চালাচ্ছিলেন বাঁহাতি শিখর ধাওয়ান, ধরে খেলছিলেন রোহিত শর্মা, এ দিন ঠিক তেমনই চালিয়ে খেলছিলেন কলিন মানরো, ধরে খেলছিলেন মার্টিন গাপ্টিল।

মানরো এবং গাপ্টিলের দাপটে প্রথম ম্যাচে নিউজিল্যান্ডের বোলারদের যা দশা হয়েছিল, এ দিন ভারতের বোলারদের ঠিক সেই অবস্থাই হল। আশিস নেহরার বদলে এ দিন অভিষেক করেন মহম্মদ সিরাজ। কিন্তু সফল হননি তিনিও।

মানরো আর গাপ্টিলের জুটি নিউজিল্যান্ডকে একশো রান পার করিয়ে দেয়। তার কিছু পরেই গাপ্টিল আউট হলেও দমেননি মানরো, বরং আরও আক্রমণাত্মক হয়ে ওঠেন। ভারতীয় বোলারদের ঠেঙিয়ে শতরানের পৌঁছে যান তিনি। এটি তাঁর কেরিয়ারের দ্বিতীয় শতরান। শতরানের পথে বেশি কিছু রেকর্ডও করে ফেলেন তিনি। প্রথম ক্রিকেটার হিসেবে এক বছরে দু’টি টি-২০ শতরান করার নজির গড়লেন তিনি। এর আগে জানুয়ারিতে বাংলাদেশের বিরুদ্ধে শতরান করেছিলেন মানরো। পাশাপাশি বিশ্বের চতুর্থ ক্রিকেটার হিসেবে টি-২০তে দু’টো শতরান করারও রেকর্ড করেন তিনি।

নিউজিল্যান্ডের রান তাড়া করতে নেমে শুরুতেই বিশাল চাপের মুখে পড়ে ভারত। ১১ রানের মধ্যেই ধাওয়ান এবং রোহিত শর্মাকে ফিরিয়ে দেন ট্রেন্ট বোল্ট। তবে নিজের চিরাচরিত ফর্মে খেলতে শুরু করতে দেন অধিনায়ক বিরাট কোহলি। শ্রেয়স আইয়ারকে সঙ্গে নিয়ে ভারতকে ম্যাচে ফেরান কোহলি। শ্রেয়সও যথেষ্ট সাবলীল ভাবে খেলছিলেন।

শ্রেয়স-বিরাটের জুটি ভাঙার কিছু পরেই ফিরে যান হার্দিক পাণ্ড্য। ভারতের স্কোর যখন চার উইকেটে ৬৭, বিরাটের সঙ্গে জুটি বাঁধেন ধোনি। তবে বিরাট এক দিকে চালিয়ে খেলছিলেন, শত চেষ্টা করেও তা ব্যর্থ হচ্ছিলেন ধোনি। মাহির মারার ক্ষমতা যে কমে এসেছে তা ফের একবার প্রমাণিত হল। তাই বিরাট ফিরে যাওয়ার পরেই ভারতের কফিনে শেষ পেরেকটা পোঁতা হয়ে যায়। ধোনি একরানের জন্য অর্ধশতরান ফসকান।

অস্ট্রেলিয়া সিরিজের মতোই এই সিরিজেও দ্বিতীয় ম্যাচটি হেরে গেল ভারত। এখন সবার নজরে থাকবে মঙ্গলবারের তিরুঅনন্তপুরমে। নতুন স্টেডিয়ামে নিউজিল্যান্ডকে প্রথম বারের জন্য টি-২০ সিরিজে ভারত হারাতে পারে কি না সেটাই দেখার!

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here