ওয়েবডেস্ক: নিউজিল্যান্ড আগেই বলেছিল, ভারতীয় মিডল অর্ডারের কঙ্কাল বের করে ছাড়বে। খুব একটা কি ভুল বলেছিল?

ভারত যে ফাইনালে যাওয়ার পথ এতটা সমৃণ করে দেবে, তা কখনোই ভাবেনি ব্ল্যাক ক্যাপস্‌রা। ভারতীয় খুঁটি-সম প্রথম তিন ব্যাটসম্যান তো বটেই, নিউজিল্যান্ডের মূল লক্ষ্য ছিল টিম ইন্ডিয়ার মিডল অর্ডার। লিগের প্রায় প্রতিটা ম্যাচেই ভারতীয় মিডল অর্ডারদের দুর্বলতা চোখ এড়ায়নি তাদের। স্বাভাবিক ভাবেই দুর্ধর্ষ ফর্মে থাকা রোহিত শর্মাদের কথা সরিয়ে রেখে মিডল অর্ডারেই শক্ত আঘাত হানার পরিকল্পনা ছিল নিউজিল্যান্ডের। সে কথা ম্যাচের আগে তারা খোলসা করেও দিয়েছিল।

নিউজিল্যান্ডের বোলিং কোচ শেন জুরগেনসেন ক’দিন আগেই বলেছিলেন, তাঁদের লক্ষ্য ভারতের মিডল অর্ডারের কঙ্কালসার চেহারাটা বের করে দেওয়া। দ্রুত উইকেট নিয়ে ধোনিকে বাইশ গজে নিয়ে আসাই তাঁদের লক্ষ্য। তার পর এক দিক থেকে খেতে শুরু করবেন কিউয়ি বোলাররা। কিন্তু সেই ব্লু-প্রিন্টেও বদল হয়ে গেল। বদলে দিলেন ভারতীয় ব্যাটসম্যানরাই। বোলাররা উইকেট তুলতেই বল ছোড়েন, কিন্তু ছোড়া বলে উইকেট ছুড়ে দিতে ব্যাটসম্যান মাঠে নামেন, তেমনই এক নজিরবিহীন দৃশ্য মঞ্চস্থ করলেন ভারতের তিন-তারকা।

রোহিত শর্মা রোজ রোজ রানের পাহাড় গড়বেন না। এমন লিখিত চুক্তি থাকে না কোনো ব্যাটসম্যানের সঙ্গেই। কিন্তু এ বারের বিশ্বকাপে একটাও সেঞ্চুরি না-পাওয়া বিরাট কোহলি অথবা বাইরের বলে লোভ সামলাতে না পারা কে এল রাহুল তো অভিনন্দন জানানোর মতো কিছু একটা করবেন।

বিস্তর আশা জাগানো পন্থ, এ দিনেও জাগাতে শুরু করলেন, কিন্তু ৫৬টা বল খেলার পরে জানি উদাস হয়ে গেলেন। প্যাভেলিয়ন তাঁকে ডাকছিল, অন্তরাত্মা দিয়ে হয়তো সেটাই শুনতে পেলেন। ফিরেও গেলেন। তবে তাঁর আগের দু’টো ম্যাচে তথাকথিত ভালো খেলার গড় এ দিনও রক্ষে করেছেন, এটাই বড়ো প্রাপ্তি।

[ আরও পড়ুন: জাদেজার মহাকাব্যিক ইনিংসেও হল না! ভারতবাসীকে হতাশায় ডোবাল গর্বের ম্যাঞ্চেস্টার ]

তবে আর যাইহোক, এ বারের বিশ্বকাপে ভারতের গর্ব করার মতো খানপাঁচেক সেঞ্চুরির রেকর্ডটাও রইল। সেমি-ফাইনালের ভারতের ইনিংসে প্রথম তিন ব্যাটসম্যান রোহিত (১), রাহুল (১) এবং কোহলি (১) স্কোরকার্ডটা আগামী বিশ্বকাপে নিশ্চিত মলিন হয়ে যাবে, এটাই যথেষ্ট!

একটি উত্তর ত্যাগ

Please enter your comment!
Please enter your name here