বেঙ্গালুরু: ২০৪-৪ (ম্যাক্সওয়েল ৭৮, ডেভিলিয়ার্স ৭৬, বরুণ ২-৩৯)

কেকেআর: ১৬৬-৮ (রাসেল ৩১, মর্গ্যান ২৯, জেমিসন ৩-৪১)

Loading videos...

খবরঅনলাইন ডেস্ক: এ বারের আইপিএল-এ (IPL 2021) এখনও পর্যন্ত একেবারে ক্লিন শিট বেঙ্গালুরুর। তিনের মধ্যে তিন। আর রবিবার তারা হারাল কেকেআর-কে, ৩৮ রানে। এ দিনের জয়টা তো স্পেশ্যাল। এই জয়ের পথে বেঙ্গালুরুর কি মনে পড়ছিল ১৩ বছর আগের কথা?   

ঠিক ১৩ বছরের আগের সে দিনটাও ছিল ১৮ এপ্রিল। প্রথম আইপিএল-এর (IPL) প্রথম ম্যাচ – কলকাতা নাইটরাইডার্স (KKR) বনাম রয়্যাল চ্যালেঞ্জার্স বেঙ্গালুরু (RCB)। সেই ম্যাচে বিধ্বংসী ব্রেন্ডন ম্যাককালামের ১৫৯ রানের সুবাদে কেকেআর তুলেছিল ২২২। তার জবাব দিতে গিয়ে মুখ থুবড়ে পড়েছিল বেঙ্গালুরু।

রবিবার চেন্নাইয়ের চিদাম্বরম স্টেডিয়ামে তারই কি শোধ তুলল বেঙ্গালুরু?

কেকেআর-এর সামনে বেঙ্গালুরু লক্ষ্যমাত্রা রেখেছিল ২০৫ রান। কেকেআর থেমে গেল ৮ উইকেটে ১৬৬ রানে। কেকেআর-এর রান তাড়াটা খুব একটা খারাপ হয়নি। ৬ ওভারের শেষে যখন ২ উইকেটে ৫৭ রান, তখনও মনে হচ্ছিল কেকেআর ভালোই লড়াই দেবে। ততক্ষণে অবশ্য শুভমন গিল আর রাহুল ত্রিপাঠী প্যাভিলিয়নে ফেরত গিয়েছেন। কিন্তু ক্রিজে আছেন আরও এক ওপেনার নীতীশ রানা।

কিন্তু এর পর থেকেই নিয়মিত ব্যবধানে উইকেট পড়তে থাকে। এক সময় ৫ উইকেটে ১১৪ হয়ে যায় কেকেআর-এর। এখান থেকেই আন্দ্রে রাসেল আর শাকিব আল হাসান ম্যাচের রাশ নিজেদের দিকে টেনে আনার চেষ্টা করেন। কিন্তু তা আর কতক্ষণ। ম্যাচের ১৭.৪ ওভারে দলের ১৫৫ রানের মাথায় শাকিব আউট হতেই সঙ্গীহারা হন রাসেল। খেলার ছন্দ কেটে যায়। বাকি ১৪ বলে মাত্র ১১ রান তোলে কেকেআর। আর এই ১১ রানের মধ্যে প্যাভিলিয়নের পথ দেখেন কামিন্স ও রাসেল।         

বেঙ্গালুরুর ইনিংস

এর আগে টসে জিতে ব্যাট নেয় বেঙ্গালুরু। শুরুটা একেবারেই ভালো হয়নি বিরাটবাহিনীর। ৯ রানের মধ্যে দু’টি উইকেট খোয়ায় তারা। তার মধ্যে একটি স্বয়ং অধিনায়কের। মাত্র ৫ রান করে বরুণ চক্রবর্তীর বলে রাহুল ত্রিপাঠীর হাতে ক্যাচ দিয়ে প্যাভিলিয়নের পথ দেখেন বিরাট কোহলি। দলের রান তখন ৬। স্কোরবোর্ডে ৩ রান যোগ হতেই আবার উইকেট পতন। বরুণের বলে বোল্ড হয়ে যান রজত পতিদার।

ইনিংসের হাল ধরতে নামেন গ্লেন ম্যাক্সওয়েল। এ বারের আইপিএল-এ (IPL 2021) ম্যাক্সওয়েল তুখোড় ফর্মে রয়েছেন। এ দিনও তার ব্যত্যয় হয়নি। দেব্দত্ত পাড়িক্কলকে সঙ্গী করে ইনিংস টেনে নিয়ে যেতে থাকেন ম্যাক্সওয়েল। পাড়িক্কল যখন আউট হন বেঙ্গালুরুর স্কোর তখন ১১.১ ওভারে ৯৫।

পাড়িক্কলের (২৮ বলে ২৫ রান) চলে যাওয়াটা বেঙ্গালুরুর ক্ষেত্রে শাপে বরই হল এক দিক থেকে। ম্যাক্সওয়েলের সঙ্গী হলেন আরও এক মারকুটে ব্যাটসম্যান এবি ডেভিলিয়ার্স। দু’ জনে মিলে ঝড় তুললেন মাঠে। দলের ১৪৮-এর মাথায় কামিন্সের বলে হরভজনকে ক্যাচ দিয়ে ম্যাক্সওয়েল (৪৯ বলে ৭৮) বিদায় নিলেও ডেভিলিয়ার্স-এর ঝড় থামেনি।

ঝড় কতটা বিধ্বংসী ছিল, তার প্রমাণ পরবর্তী স্কোরে। ম্যাক্সওয়েল যখন আউট হলেন, ম্যাচের তখন আর ৩ ওভার বাকি ছিল। ডেভিলিয়ার্স-এর সঙ্গী হলেন কাইল জেমিসন। বাকি ৩ ওভারে রান পৌঁছে গেল ১৪৮ থেকে ২০৪-এ। অর্থাৎ ১৮ বলে ৫৬ রান, গড়ে প্রতি ওভারে ১৮ রানেরও বেশি। এর মধ্যে জেমিসনের অবদান ৪ বলে ১১ রান। ডেভিলিয়ার্স নট আউট থাকলেন ৩৪ বলে ৭৬ করে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.