Connect with us

ক্রিকেট

বাংলার রঞ্জি অভিযানের অন্যতম নায়কের অভিষেক হল আইপিএলে

Published

on

shshbaz ahmed

খবরঅনলাইন ডেস্ক: গত রঞ্জি মরশুমে রানার্স আপ হয়েছিল বাংলা। বাংলার সেই সফল রঞ্জি অভিযানের অন্যতম নায়কের অভিষেক হল আইপিএলে (IPL) ।

তিনি শাহবাজ আহমেদ। রয়্যাল চ্যালেঞ্জার্স বেঙ্গালুরুর হয়ে শনিবার আইপিএল অভিষেক হল তার। বাঁ হাতি স্পিনারের পাশাপাশি এবং বাঁ হাতি মিডিল অর্ডার ব্যাটসম্যান তিনি। রঞ্জির এই মরশুমে বল হাতে ভেলকিও যেমন তিনি দেখিয়েছেন, তেমনই গুরুত্বপূর্ণ সময়ে দুর্দান্ত সব ইনিংসও খেলেছেন।

তবে শনিবার শাহবাজের আইপিএল অভিষেকটা খুব একটা সুখের হয়নি। মাত্র দু’ ওভার হাত ঘুরিয়ে ১৮ রান দিয়েছেন তিনি। ১২টার মধ্যে তিনটে ডট বল করেছেন তিনি। যদিও ইনিংসের শেষ দিকে বাউন্ডারি লাইনে দুর্দান্ত একটি ক্যাচ নিয়ে রাজস্থানের রয়্যাল্‌সের সেট হয়ে যাওয়া ব্যাটসম্যান স্টিভ স্মিথকে ফেরান শাহবাজ।

প্রসঙ্গত উল্লেখ্য, ২০১৯-এর আইপিএলে এই বেঙ্গালুরুর হয়েই অভিষেক হয়েছিল বাংলার আরও এক ক্রিকেটার প্রয়াস রায়বর্মনের।

বাংলার ক্রিকেট বিশেষজ্ঞরা মনে করেন, নিজের কেরিয়ারকে ঠিকঠাক এগিয়ে নিয়ে যেতে পারলে পরবর্তী রবীন্দ্র জাদেজা হয়ে ওঠার ক্ষমতা রয়েছে শাহবাজের। এখনও পর্যন্ত ১৩টি প্রথম শ্রেণির ম্যাচে ১৮.০৫ গড়ে ৩৭ উইকেট নিয়েছেন তিনি। এ ছাড়া ৩২.৮৮ গড়ে ৫৫৯ রান করেছেন তিনি। রয়েছে চারটে অর্ধশতরানও।

খবরঅনলাইনে আরও পড়তে পারেন

টেস্টে শতরান ও এক ইনিংসে ১০ উইকেটের একমাত্র অধিকারী পূর্ণ করলেন জীবনের অর্ধশত রান

ক্রিকেট

নাটকীয় প্রত্যাবর্তন! হারের দরজা থেকে জয় ছিনিয়ে নিল পঞ্জাব

Published

on

পঞ্জাব: ১২৬-৭ (পুরান ৩২, রাহুল ২৭, রশিদ ২-১৪)

হায়দরাবাদ: ১১৪ (ওয়ার্নার ৩৫, শঙ্কর ২৬, জর্ডান ৩-১৭)

খবরঅনলাইন ডেস্ক: নাটকীয়। এ ছাড়া আর কী শব্দই বা ব্যবহার করা যায়। অত্যন্ত সহজ একটা জায়গা থেকে ম্যাচ হেরে বসল সানরাইজার্স হায়দরাবাদ। পর পর চারটে ম্যাচ জিতে নিয়ে দুর্দান্ত ভাবে টুর্নামেন্টে ফিরে এল কিংস ইলেভেন পঞ্জাব।

ক্রিস গেল আসার পর থেকে পঞ্জাবের মনোভাব পুরোপুরি বদলে গিয়েছে। লিগ টেবিলের প্রথম তিনটে স্থানে থাকা দলকে হারিয়ে জয়ের হ্যাটট্রিক করেছিল তারা। তাই মনে করা হচ্ছিল হায়দরাবাদের বিরুদ্ধে ধারে ও ভারে কেএল রাহুলের দলই এগিয়ে থাকবে। কিন্তু রশিদ খান ও হায়দরাবাদের আরও কয়েক জন বোলারের দাপটে ভেঙে পড়ে পঞ্জাব।

অধিনায়ক লোকেশ রাহুলের সঙ্গে শনিবার ওপেন করতে নামেন মনদীপ সিংহ। টুর্নামেন্টের প্রথম দিন থেকেই দারুণ ছন্দে রয়েছেন পঞ্জাব অধিনায়ক। এ দিনও তিনি এবং মনদীপ শুরু থেকেই আক্রমণের রাস্তা নেন। তবে সন্দীপ শর্মাকে মারতে গিয়ে মনদীপ আউট হন ১৭ রানে। 

মনদীপ ফেরার পরে লোকেশ রাহুলের সঙ্গে ক্রিজে যোগ দেন গেল। কিন্তু শুরুতে যে গতিতে রান তুলছিল পঞ্জাব, রান তোলার সেই গতি কমে যায়। জেসন হোল্ডারের বলে আউট হন গেল।

এর পর আবির্ভাব হয় রশিদ খানের। তাঁর গুগলিতে ঠকে যান রাহুল। ততক্ষণে ম্যাচে জাঁকিয়ে বসতে শুরু করেছে হায়দরাবাদ। এ দিনও ব্যর্থ হলেন গ্লেন ম্যাক্সওয়েল। চলতি আইপিএলে এখনও পর্যন্ত ব্যাট চলছে না ম্যাক্সওয়েলের। দিল্লির বিরুদ্ধে এর আগের ম্যাচে ৩২ রান করলেও নিজের চরিত্রবিরোধী ইনিংস খেলেছিলেন তিনি।

এ দিনও ব্যর্থ। টুর্নামেন্টে এখনও পর্যন্ত একটাও ছয় না মেরে অদ্ভুত রেকর্ড করে রেখেছেন ম্যাক্সওয়েল। এ দিনও সেটা ভাঙেনি। ম্যাক্সওয়েল ফিরতেই পঞ্জাবের বাকি ব্যাটিংটাও ভেঙে যায়। কোনো রকমে ১৩০-এর কাছাকাছি পৌঁছে পারে তারা।

ডেভিড ওয়ার্নার আর জনি বেয়ারস্টোর ব্যাট চললে এটা আর এমন কী রান! শুরু থেকেই তাই আগ্রাসী ব্যাটিং শুরু করেন দু’ জনে। অনেক বেশি দাপট ছিল ওয়ার্নারের। চলতি আইপিএলে এখনও পর্যন্ত বেশি আগ্রাসী দেখা যায়নি ওয়ার্নারকে। কিন্তু এ দিন সেই হিসেব বদলে ফেলার জন্য উদগ্রীব ছিলেন তিনি।

ওয়ার্নার-বেয়ারস্টো ছয় ওভারে ৫২ রান তুলে এক্কেবারে স্বস্তিদায়ক জায়গায় ছিল। কিন্তু এর পর যেটা হল, সেটা সম্ভবত কারও পক্ষেই আন্দাজ করা যেত না।

ষষ্ঠ ওভারের পর থেকেই ম্যাচে প্রবল ভাবে ফিরে আসার চেষ্টা করে পঞ্জাব। সপ্তম ওভারেই ফিরে যান ওয়ার্নার। রবি বিষ্ণৈয়ের শিকার হন তিনি। অষ্টম ওভারে মুরুগান অশ্বিন ফিরিয়ে দেন বেয়ারস্টোকে। এর ঠিক পরের ওভারেই আব্দুল সামাদকে আউট করেন মহম্মদ শামি।

উইকেটে একত্রিত হন বিজয় শঙ্কর এবং মনীশ পাণ্ডে, যারা আগের ম্যাচেই রেকর্ড জুটি তৈরি করেছিলেন। হায়দরাবাদ কিছুটা চাপে পড়লেও আস্কিং রেট সাধ্যের মধ্যেই ছিল।

তবে ১০ ওভারের পর থেকে পঞ্জাবের বোলাররা ক্রমশ চাপ সৃষ্টি করতে শুরু করে। রবি বিষ্ণৈয়ের স্পিন রহস্য ভেদ করতে রীতিমতো হিমশিম খান বিজয় শঙ্কর আর মনীশ পাণ্ডে। চার ওভারে একটা উইকেট নেওয়ার পাশাপাশি মাত্র ১৩ রান দেন বিষ্ণৈ।

আস্কিং রেটটা কিন্তু ধীরে ধীরে বাড়তে শুরু করে। ১৬তম ওভারের শেষে হায়দরাবাদের আস্কিং রেট প্রথম বারের জন্য ৭-এর ওপরে যায়। আর ঠিক সেই মুহূর্তেই ড্রেসিং রুমে ফিরে যান পাণ্ডে। হায়দরাবাদের চাপ আরও কয়েক ডজন বেড়ে যায় যখন ১৮তম ওভারের পঞ্চম বলে ফিরে যান সেট হয়ে যাওয়া ব্যাটসম্যান শঙ্কর। হায়দরাবাদকে তখন ১৩ বলে করতে হত ১৭।

১৯তম ওভারে পর পর দুটো বলে জেসন হোল্ডার আর রশিদ খানকে ফিরিয়ে দেন ক্রিস জোর্ডান। ম্যাচে পুরোপুরি দখল নিয়ে নেয় পঞ্জাব। তখন লাল-সাদাদের জয় শুধুমাত্র সময়ের অপেক্ষা। হায়দরাবাদের উইকেট পতন কিন্তু অব্যাহত থাকল। শেষে, পঞ্জাবের রানের থেকে ১২ রান দূরে শেষ করে তারা।

Continue Reading

ক্রিকেট

সুনীল-নীতীশের ব্যাট তাণ্ডবের পর বরুণের ঘূর্ণি, দিল্লি-জয় করল কলকাতা

Published

on

কলকাতা: ১৯৪-৬ (রানা ৮১, সুনীল ৬৪, নোর্কিয়া ২-২৭)

দিল্লি: ১৩৫-৯ (আইয়ার ৪৭, পন্থ ২৭, বরুণ ৫-২০)

খবরঅনলাইন ডেস্ক: প্রত্যাবর্তনে বড়ো রকমের চমক দিলেন সুনীল নারিন। ব্যাট হাতে জীবনের অন্যতম সেরা ইনিংস খেললেন। তাঁকে যোগ্য সংগত দিয়ে আরও বড়ো ইনিংস খেললেন নীতীশ রানা। অন্য দিকে বল হাতে ব্যাপক প্রভাব ফেললেন সিভি বরুণ। এই ত্রয়ীর দাপটে দিল্লি-জয় করল কলকাতা নাইটরাইডার্স। উল্লেখ্য, দিল্লির দলের নাম বদল হওয়ার পর প্রথম বার তাদের হারাল কেকেআর।  

আবু ধাবির পিচে ঘাস ছিল। আর তাই টস জিতে ফিল্ডিং করার সিদ্ধান্ত নেন দিল্লি অধিনায়ক শ্রেয়াস। কমলেশ নাগরকোটির পাশাপাশি সুনীল নারিনকে ফিরিয়ে আনে কেকেআর। আর তাতেই কার্যত বাজিমাত করে ফেলেন।

শুরু থেকেই দিল্লির বোলারদের দাপট। তুষার দেশপাণ্ডে, আনরিক নোর্কিয়া আর কাগিসো রাবাদার দাপটে ভেঙে পড়ে কেকেআরের টপ অর্ডার। প্রথমেই নোর্কিয়ার ওভারে অক্ষর পটেলের হাতে ক্যাচ দিয়ে ফেরেন শুভমন গিল। তিন নম্বরে ব্যাট করতে নেমে রাহুল ত্রিপাঠী ১৩ রান করেন।

তাঁর অধিনায়কত্ব ছাড়ার অন্যতম কারণ ছিল ব্যাটে রানে ফেরা। কিন্তু এখনও সেটা হচ্ছে না। রাবাদার দ্রুতগতির বল কার্তিকের স্টাম্প ছিটকে দিতেই প্রবল চাপে পড়ে যায় কেকেআর। কিন্তু কেউ আন্দাজই করতে পারেননি এর পর কী হতে চলেছে।

সুনীল নারিনকে ওপেন করতে না পাঠিয়ে পাঁচ নম্বরে পাঠানো হয়। ক্যারিবিয়ান তারকা দ্রুতগতিতে রান তুলতে থাকেন। গত বছর আইপিএলে ওপেন করতে নেমে মাঝেমধ্যে যে ধরনের ঝোড়ো ইনিংস নারিন খেলতেন, এ দিন সেটাই ফিরে এল। নিমেষের মধ্যে ১০০ রানের গণ্ডি পেরিয়ে যায় কেকেআর।

ওপেন করতে নামা নীতীশ রানাকে সঙ্গে নিয়ে এগিয়ে চলেন নারিন। এই জুটির সামনে ম্লান হয়ে যায় দিল্লির বিখ্যাত এবং শক্তিশালী বোলিং লাইনআপ। একের পর এক বল গিয়ে পড়ে বাউন্ডারি লাইনের বাইরে। অবশ্যই নারিন অনেকটাই বেশি আগ্রাসী ছিলেন।

২৪ বলে অর্ধশতরান করেন নারিন। অন্য দিকে রানা পঞ্চাশ পেরোতে খরচ করেন ৩৫টা বল। ছক্কা মারতে গিয়ে বাউন্ডারি লাইনের ঠিক ভেতরে যখন নারিন ধরা পড়েন, ততক্ষণে এই জুটিটা ৫৬ বলে ১১৫ তুলে ফেলেছে। কেকেআরের ঘোড়া তখন রীতিমতো দৌড়োচ্ছে।

এমন একটা জায়গায় তখন কেকেআর পৌঁছে গিয়েছে, যে তখন দেখার একমাত্র বিষয় ছিল দল দুশো পেরোয় কি না। এই লক্ষ্যেই এগিয়ে নিয়ে যাচ্ছিল রানা আর ওইন মর্গ্যানের ব্যাট। শেষ ওভারেই শেষ হল রানার দুর্ধর্ষ ইনিংসটা। দুশো থেকে ছয় রান দূরে শেষ করল কেকেআর।

নারিন আর রানার জুটি কেকেআরকে বাড়তি চাগিয়ে দিয়েছিল। সেটা একদম বোলিংয়ের শুরু থেকেই দেখা গেল। গত কয়েকটা ম্যাচে পৃথ্বী শ ব্যর্থ হওয়ার ফলে এ দিন ওপেনিংয়ে পাঠানো হয় অজিঙ্ক রাহানেকে। কিন্তু ইনিংসের একদম প্রথম বলেই উইকেটের সামনে তাঁর পা পেয়ে যান প্যাট্রিক কামিন্স। শুরুতেই তারা যে ধাক্কাটা খেল, সেখান থেকে আর বেরোতে পারেনি।

পর পর দু’ম্যাচে দুটো শতরান করে রেকর্ড করা শিখর ধাওয়ানও কামিন্সের শিকার হন। দু’ উইকেট পড়ে যাওয়ার পর ঋষভ পন্থকে সঙ্গে নিয়ে দিল্লির ইনিংসকে কিছুটা দাঁড় করানোর চেষ্টা করেন শ্রেয়স আইয়ার। শ্রেয়সের ব্যাট মোটামুটি চললেও পন্থ রানের গতি বাড়াতে পারেননি। কেকেআরের বোলারদের সামনে গুটিয়ে ছিলেন তিনি।

এরই মধ্যে দেখা গেল নতুন বোলিং অ্যাকশন নেওয়া সুনীল নারিনকে। তবে নতুন আকশনে বিশেষ সুবিধা করতে পারেননি তিনি। বরং অনুপাতে একটু বেশিই রান খরচ করেন তিনি। তবে দলের অন্য স্পিনার সিভি বরুণ রেকর্ড করে ফেলেন।

শ্রেয়স আর পন্থের মধ্যে যখন একটা জুটি তৈরি হচ্ছিল, তখনই ধাক্কা দেন বরুণ। তুলে নেন পন্থকে। এর পর একে একে শ্রেয়স এবং হেটমেয়ারকেও তুলে নেন তিনি। একশোয় ঢোকার আগেই পাঁচ উইকেট হারিয়ে ফেলে দিল্লি। ১৬ তম ওভারে ফের আবির্ভাব বরুণের। এ বারও এক ওভারে দুটো নিয়ে নেন। সেই সঙ্গে ইনিংসে পাঁচ উইকেট নেওয়ার অনন্য রেকর্ড করে ফেলেন তিনি।

বরুণের এই ঘূর্ণির পর, দিল্লির সব আশার জলাঞ্জলি হয়ে যায়। তখন শুধু দেখার একটা বাকি ছিল, কতটা ব্যবধানে জয়টা কলকাতা পায়। ৫৯ রানের সেই ব্যবধান যে টি২০ ক্রিকেটের বিচারে বড়ো জয়, তা বলার অপেক্ষা রাখে না।

কেকেআরের কাছে ম্যাচটা খুবই গুরুত্বপূর্ণ ছিল। হেরে গেলে লিগ টেবিলের প্রথম চার থেকে বেরিয়ে যাওয়ার সম্ভাবনা ছিল। কিন্তু ম্যাচটি জিতে নেওয়ায় সেই আশঙ্কা আপাতত দূর হল। অন্য দিকে পর পর দুটো ম্যাচ হেরে কিছুটা চাপে দিল্লি যে পড়ল, তা বলার অপেক্ষা রাখে না।

Continue Reading

ক্রিকেট

ব্যাটে-বলে দাপট মুম্বইয়ের, ছিন্নভিন্ন চেন্নাই

Published

on

চেন্নাই: ১১৪ (কারান ৫২, ধোনি ১৬, বোল্ট ৪-১৮)

মুম্বই: ১১৬-০ (কিষাণ ৬৮ অপরাজিত, ডে কক ৪৬ অপরাজিত)

খবরঅনলাইন ডেস্ক: টুর্নামেন্টটা তাদের এক্কেবারে ভালো যাচ্ছে না ঠিক। কিন্তু শুক্রবার যে ভাবে চেন্নাই হারল, আইপিএলের ইতিহাসে কোনো দিনও এতটা একপেশে ভাবে তারা হেরেছে কি না, জানা যায় না।

শুরুতেই লজ্জাজনক ব্যাটিং। এবং শেষে লজ্জাজনক বোলিং। তাতে পুরোপুরি ছিন্নভিন্ন হয়ে গেল মহেন্দ্র সিংহ ধোনির দল।

এমন লজ্জাজনক ব্যাটিং পারফরম্যান্স চেন্নাইয়ের তরফে হবে, সেটা কেউই আন্দাজ করতে পারেনি। একটা সময় মনে হচ্ছিল আইপিএলে তাদের সর্বকালের কম স্কোরে না শেষ হয়ে যায় চেন্নাই।

চেন্নাইয়ের কাছে মুম্বই বরাবরই একটা গাঁট। মুখোমুখিতে বেশির ভাগ ম্যাচই মুম্বই জিতেছে। এমনকি গত বছর আইপিএলের ফাইনালেও তাই হয়েছিল।

যদিও এই আইপিএলে প্রথম বার যখন দুই দল মুখোমুখি হয়েছিল, তখন চেন্নাই জিতেছিল। কিন্তু তার পর চেন্নাইয়ের পারফরম্যান্স-গ্রাফ যে ভাবে নামতে শুরু করে তাতে এই ম্যাচেও যে মুম্বই এগিয়ে থাকবে, তা আন্দাজ করাই গিয়েছিল। কিন্তু তা বলেই এই!

শুক্রবার শুরু থেকেই মুম্বইয়ের বোলারদের দাপট। প্রথম ওভারেই ঋতুরাজ গায়েকওয়াড়কে ফিরিয়ে দেন ট্রেন্ট বোল্ট। টুর্নামেন্টে এখনও পর্যন্ত ওপেনিং জুটি ঠিক করতে পারল না চেন্নাই। এ দিন স্যাম কারানকে ওপেনিং পাঠায়নি তারা। বদলে আনা হয়েছিল গায়েকোয়াড়কে। কিন্তু তিনিও তো ব্যর্থ।

দ্বিতীয় ওভারেই জোড়া উইকেট জসপ্রীত বুমরাহর। হ্যাটট্রিকের দোরগোড়ায় পৌঁছে যান তিনি। তৃতীয় ওভারে ফাফ দু’প্লেসি ফিরতেই চেন্নাইয়ের স্কোর গিয়ে দাঁড়ায় চার উইকেটে মাত্র ৩ রান। ধোনি খাতা খুলে এগিয়ে যাচ্ছিলেন। তাঁকে মোটামুটি ছন্দে দেখে স্বস্তিতে ছিলেন তাঁর ভক্তরাও। জাদেজার সঙ্গে ছোট্ট একটা জুটিও তৈরি হয় তাঁর।

কিন্তু দলের স্কোর যখন ২১, ফিরে যান জাদেজা। এর কিছুক্ষণের মধ্যে ধোনি আর দীপক চাহর ড্রেসিং রুমের পথ দেখেন। চেন্নাইয়ের স্কোর তখন সাত উইকেটে ৪৩।

এই ম্যাচের আগে পর্যন্ত চেন্নাইয়ের সর্বনিম্ন স্কোর ছিল ৭৯। সেটা যে তারা পেরিয়ে যাবে, সত্যিই ভাবা যায়নি। এটা সম্ভব হল শুধুমাত্র স্যাম কারানের জন্যই। নীচে নেমে এ দিন পরিস্থিতি অনুযায়ী দুর্দান্ত ইনিংস খেলেন কারান। বলা যায় একাই দলটাকে টেনে নিয়ে যান তিনি। স্যাম কারানের দুর্দান্ত অর্ধশতরানের জন্যই চেন্নাই কোনো রকমে একশো পার করে।

তবুও রানটা যে বড্ড কম। আর শারজার মতো ছোটো মাঠে এই রান তাড়া করে আদৌ কোনো কষ্টসাধ্য ব্যাপারই নয়। মুম্বইয়ের জবাবেই সেটা অক্ষরে অক্ষরে বোঝা গেল।

রোহিত শর্মা খেলছেন না বলে এ দিন মুম্বইয়ের হয়ে কুইন্টন ডে ককের ওপেনিংয়ে সঙ্গী হন ঈশান কিষাণ। শুরু থেকেই তাঁরই দাপট। ঈশান নিজেকে দুর্দান্ত ভাবে মেলে ধরছেন। কানাঘুষো শোনা যাচ্ছে আসন্ন অস্ট্রেলিয়া সফরে যদি চার জন উইকেটকিপার নিয়ে যাওয়া হয়, তা হলে চতুর্থ জন কিষাণই হবেন।

গত বছরের সর্বোচ্চ উইকেট শিকারি ইমরান তাহিরকে অবশেষে এ দিন সুযোগ দেয় চেন্নাই। কিন্তু মুম্বইয়ের ওপেনারদের দাপটে তিনি কোনো প্রভাবই ফেলতে পারেননি,। যেমন পারেননি চেন্নাইয়ের বাকি বোলাররা।

রোহিতের সঙ্গে ডে ককের জুটিতে রোহিতই ধরে খেলতেন। মূল আগ্রাসী থাকতেন ডে কক। কিন্তু এ দিন পুরো উলটো। লিগ টেবিলে সুবিধাজনক জায়গায় থাকতে মুম্বইয়ের নেট রানরেট বাড়ানো জরুরি ছিল। সেটার দায়িত্ব সামলে দেন কিষাণ।

কিষানের ব্যাট থেকে একের পর এক ছক্কা আছড়ে পড়ে শারজার ফাঁকা গ্যালারিতে। অন্য দিকে ডে কক খুচরো রানের ওপরেই বেশি ভরসা রাখেন। সব শেষে, ১২ ওভার শেষ হওয়ার আগেই ম্যাচ শেষ করে ফেলে মুম্বই।

Continue Reading

Amazon

Advertisement
দেশ24 mins ago

কোভিড আপডেট: নতুন করে আক্রান্ত ৫০১২৯, সুস্থ ৬২০৭৭

currency notes
শিল্প-বাণিজ্য40 mins ago

মোরাটোরিয়াম: কয়েক দিনের মধ্যেই অ্যাকাউন্টে বাড়তি সুদের টাকা ফেরত পাবেন গ্রাহক

দেশ2 hours ago

কোভ্যাকসিনের ট্রায়াল শেষ হতে পারে এপ্রিলের পর, তবে জরুরি ব্যবহারের সম্ভাবনা তার আগেই!

বিদেশ2 hours ago

কোভিড আক্রান্ত হওয়ার পর ক্ষমা চেয়ে নিলেন পোল্যান্ডের প্রেসিডেন্ট

ক্রিকেট10 hours ago

নাটকীয় প্রত্যাবর্তন! হারের দরজা থেকে জয় ছিনিয়ে নিল পঞ্জাব

খাওয়াদাওয়া11 hours ago

মহানবমীতে পেঁয়াজ রসুন ছাড়া নিরামিষ পাঁঠার মাংস

শরীরস্বাস্থ্য11 hours ago

শ্বাসকষ্ট কেন হয়? জেনে নিন ৯টি কারণ

দুর্গা পার্বণ12 hours ago

দুর্গোৎসব বাংলাদেশে: রাজধানীর সব চেয়ে বড়ো দুর্গাপূজার আয়োজন রমনা কালীমন্দিরে

দেশ24 mins ago

কোভিড আপডেট: নতুন করে আক্রান্ত ৫০১২৯, সুস্থ ৬২০৭৭

রাজ্য3 days ago

সপ্তমীর দুপুরে সুন্দরবনে আঘাত হানবে অতি গভীর নিম্নচাপ, ভারী বর্ষণে ভাসতে পারে কলকাতা ও পার্শ্ববর্তী জেলা

কলকাতা2 days ago

কাশীবোস লেনে ‘দেবীঘট’, হাতিবাগানে ‘অসমাপ্ত’, নলীন সরকারে ‘পুজো এবার কাঠামোতে’, নর্থ ত্রিধারার ‘শ্রদ্ধার্ঘ্য’, সিকদারবাগানে ‘উৎসব’

ক্রিকেট2 days ago

হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে হাসপাতালে ভরতি কপিল দেব

covaxin
দেশ2 days ago

ভারত বায়োটেকের ‘কোভ্যাকসিন’কে তৃতীয় দফার পরীক্ষার জন্য ছাড়পত্র

কলকাতা1 day ago

মহাসপ্তমীতে কলকাতা মহানগরীর অচেনা ছবি

ক্রিকেট2 days ago

মনীশ, বিজয়ের রেকর্ড জুটিতে রাজস্থানকে হারিয়ে দিল হায়দরাবাদ

ক্রিকেট2 days ago

ব্যাটে-বলে দাপট মুম্বইয়ের, ছিন্নভিন্ন চেন্নাই

কেনাকাটা

কেনাকাটা2 weeks ago

মেয়েদের কুর্তার নতুন কালেকশন, দাম ২৯৯ থেকে শুরু

খবর অনলাইন ডেস্ক: পুজো উপলক্ষ্যে নতুন নতুন কুর্তির কালেকশন রয়েছে অ্যামাজনে। দাম মোটামুটি নাগালের মধ্যে। তেমনই কয়েকটি রইল এখানে। প্রতিবেদন...

কেনাকাটা3 weeks ago

‘এরশা’-র আরও ১০টি শাড়ি, পুজো কালেকশন

খবর অনলাইন ডেস্ক : সামনেই পুজো আর পুজোর জন্য নতুন নতুন শাড়ির সম্ভার নিয়ে হাজর রয়েছে এরশা। এরসার শাড়ি পাওয়া...

কেনাকাটা3 weeks ago

‘এরশা’-র পুজো কালেকশনের ১০টি সেরা শাড়ি

খবর অনলাইন ডেস্ক : পুজো কালেকশনে হ্যান্ডলুম শাড়ির সম্ভার রয়েছে ‘এরশা’-র। রইল তাদের বেশ কয়েকটি শাড়ির কালেকশন অ্যামাজন থেকে। প্রতিবেদন...

কেনাকাটা4 weeks ago

পুজো কালেকশনের ৮টি ব্যাগ, দাম ২১৯ টাকা থেকে শুরু

খবর অনলাইন ডেস্ক : এই বছরের পুজো মানে শুধুই পুজো নয়। এ হল নিউ নর্মাল পুজো। অর্থাৎ খালি আনন্দ করলে...

কেনাকাটা4 weeks ago

পছন্দসই নতুন ধরনের গয়নার কালেকশন, দাম ১৪৯ টাকা থেকে শুরু

খবর অনলাইন ডেস্ক : পুজোর সময় পোশাকের সঙ্গে মানানসই গয়না পরতে কার না মন চায়। তার জন্য নতুন গয়না কেনার...

কেনাকাটা4 weeks ago

নতুন কালেকশনের ১০টি জুতো, ১৯৯ টাকা থেকে শুরু

খবর অনলাইন ডেস্ক : পুজো এসে গিয়েছে। কেনাকাটি করে ফেলার এটিই সঠিক সময়। সে জামা হোক বা জুতো। তাই দেরি...

কেনাকাটা1 month ago

পুজো কালেকশনে ৬০০ থেকে ১০০০ টাকার মধ্যে চোখ ধাঁধানো ১০টি শাড়ি

খবর অনলাইন ডেস্ক: পুজোর কালেকশনের নতুন ধরনের কিছু শাড়ি যদি নাগালের মধ্যে পাওয়া যায় তা হলে মন্দ হয় না। তাও...

কেনাকাটা1 month ago

মহিলাদের পোশাকের পুজোর ১০টি কালেকশন, দাম ৮০০ টাকার মধ্যে

খবরঅনলাইন ডেস্ক : পুজো তো এসে গেল। অন্যান্য বছরের মতো না হলেও পুজো তো পুজোই। তাই কিছু হলেও তো নতুন...

কেনাকাটা1 month ago

সংসারের খুঁটিনাটি সমস্যা থেকে মুক্তি দিতে এই জিনিসগুলির তুলনা নেই

খবরঅনলাইন ডেস্ক : নিজের ও ঘরের প্রয়োজনে এমন অনেক কিছুই থাকে যেগুলি না থাকলে প্রতি দিনের জীবনে বেশ কিছু সমস্যার...

কেনাকাটা1 month ago

ঘরের জায়গা বাঁচাতে চান? এই জিনিসগুলি খুবই কাজে লাগবে

খবরঅনলাইন ডেস্ক : ঘরের মধ্যে অল্প জায়গায় সব জিনিস অগোছালো হয়ে থাকে। এই নিয়ে বারে বারেই নিজেদের মধ্যে ঝগড়া লেগে...

নজরে