Connect with us

ক্রিকেট

করোনাত্রাণে ভারত আর পাকিস্তানকে একজোট হওয়ার ডাক, অভিনব প্রস্তাব দিলেন শোয়েব আখতার

রাওয়ালপিণ্ডি: “ভারত আর পাকিস্তানকে এক সঙ্গে ভাবতে হবে।” করোনাভাইরাসে (Coronavirus) জর্জরিত ভারত আর পাকিস্তানের (India vs Pakistan) জন্য অভিনব একটি প্রস্তাব দিলেন কিংবদন্তি পাক পেসার শোয়েব আখতার (Shoaib Akhtar)। দুই দেশের মধ্যে তিন ম্যাচের একটি একদিনের সিরিজ আয়োজনের প্রস্তাব দিলেন তিনি।

এই সিরিজের পুরো অর্থই, করোনাভাইরাসের ত্রাণের জন্য ব্যবহার করা যাবে বলে মনে করেন শোয়েব। তাঁর মতে, টিভি সম্প্রচারের মাধ্যমেই যে অর্থ সংগ্রহ করা যাবে, তা দু’দেশের ত্রাণ তহবিলকে যথেষ্ট পরিমাণে সাহায্য করবে।

নিজের ইউটিউব চ্যানেলে শোয়েবের ঘোষণা, “এই দুঃসময়ে আপনাদের কাছে একটি প্রস্তাব নিয়ে এসেছি। করোনার ত্রাণ তহবিলে দু’ দেশকেই সাহায্য করার উদ্দেশ্যে তিন ম্যাচের ভারত-পাক ওয়ান ডে সিরিজ আয়োজন করলে কেমন হয়? এই সিরিজের ফল নিয়ে দু’দেশের মধ্যে রেষারেষি থাকবে না। এখানে কোহালি সেঞ্চুরি (Virat Kohli) করলেও যে রকম আমরা খুশি হব, তেমনই বাবর আজম (Babar Azam) রান পেলে আপনারা আনন্দিত হবেন। এখানে কোনো দ্বৈরথ থাকবে না।”

শোয়েবের মতে, দ্বিপাক্ষিক সিরিজ হলে দু’দেশের সম্পর্কে উন্নতিও আশা করা যায়। ভারতে খুবই জনপ্রিয় ছিলেন শোয়েব। সে কথা মনে করিয়ে দিয়ে বলছেন, ‘‘ভারতে ধারাভাষ্যকার হিসেবে কাজ করে অনেক রোজগার করেছি। তবে অনেক ক্ষেত্রে সেই আয় থেকে ভারতীয় বন্ধুদের পাশে দাঁড়ানোর চেষ্টা করেছি। তিরিশ শতাংশ অর্থ সাহায্য হিসেবে তুলে দিতাম ভারতীয় বন্ধুদের। মুম্বইয়ের বস্তি ধারাবি ও সিয়নে গিয়েও বন্ধুদের সাহায্য করেছি।’’ যোগ করছেন, ‘‘ভারতে যে রকম ভালবাসা পেয়েছি, তা কখনও ভুলতে পারব না।’’

বছর খানেক ধরেই নিজের ইউটিউব চ্যানেলে আসেন শোয়েব। বিভিন্ন ইস্যু নিয়ে নিজের মত প্রকাশ করেন তিনি। ক্রিকেট হোক বা পর্যটক সবই তুলে ধরেন শোয়েব তাঁর নিজের চ্যানেলে। গত কয়েক দিন ধরে করোনাভাইরাস নিয়েও নানা রকম বার্তা দিচ্ছেন তিনি।

তাঁর এই ইউটিউব চ্যানেলের মধ্যে দিয়ে শোয়েব ভারতেও যথেষ্ট জনপ্রিয় হয়ে উঠেছেন। তাঁর দর্শকের একটা বড়ো অংশই ভারতীয়।

ক্রিকেট

এ বছরের আইপিএল কবে, মুখ খুললেন সৌরভ গাঙ্গুলি

খবরঅনলাইন ডেস্ক: এ বছরের ২৯ মার্চ থেকে শুরু হওয়ার কথা ছিল আইপিএল-এর (Indian Premier League, IPL) ত্রয়োদশ সংস্করণ। কিন্তু করোনাভাইরাস (coronavirus) জনিত পরিস্থিতিতে বিশ্ব জুড়ে লকডাউন (lockdown) জারি হয়ে যাওয়ায় ভারতীয় ক্রিকেট কন্ট্রোল বোর্ড (বিসিসিআই, BCCI) তা স্থগিত করে দিতে বাধ্য হয়।

মাঝেমধ্যেই খবর পাওয়া যাচ্ছে, ভারতীয় ক্রিকেটের সব চেয়ে অর্থকরী এই লিগটি জুলাই থেকে সেপ্টেম্বরের মধ্যে যে কোনো সময়ে শুরু করতে আগ্রহী বিসিসিআই।

এ ব্যাপারে এ বার মুখ খুললেন স্বয়ং বোর্ড সভাপতি সৌরভ গাঙ্গুলি (Sourav Ganguly)। তিনি জানিয়েছেন, এই মুহূর্তে অনিশ্চয়তা রয়েছে। ভারতীয় ক্রিকেটের নিয়ামক সংস্থা সব রকম সম্ভাবনা খতিয়ে দেখছে।

“আগামী দিনে কী ঘটবে আমরা কেউই বলতে পারি না। এটা অনুমান করা খুব কঠিন। আমরা সব রকম সম্ভাবনার দিকে তাকিয়ে আছি। ক্রিকেট কবে শুরু করা যেতে পারে, সে ব্যাপারে আমরা এখনও নিশ্চিত নই” – সৌরভ বলেন।

ক্রিকেটের সব চেয়ে জৌলুসময় এই উৎসবটি আয়োজন করার ব্যাপারে কয়েক দিন আগে শ্রীলঙ্কা ক্রিকেট বোর্ড আগ্রহ দেখিয়েছিল। এবং কিছু কিছু সংবাদ মাধ্যমে খবরও হয়েছিল যে বিসিসিআই এই ক্রিকেট টুর্নামেন্ট অন্য দেশে আয়োজন করার বিষয়টি বিবেচনা করছে।

আরও পড়ুন: একদিনের ক্রিকেটে শ্রীসন্তের বাছাই করা সর্ব কালের সেরা একাদশের অধিনায়ক সৌরভ গাঙ্গুলি

এ ব্যাপারে সৌরভ বলেন, দেশের ক্রিকেট সংস্থা এ বিষয়ে এই মুহূর্তে কিছু বলার মতো অবস্থায় নেই। তবে ভারতই এই প্রতিযোগিতা আয়োজন করতে চায়। তবে ভারতের প্রাক্তন অধিনায়ক বলেন, আইপিএল আয়োজন করার থেকে মানুষের প্রাণ বাঁচানো এখন অনেক বেশি গুরুত্বপূর্ণ।

সৌরভ গাঙ্গুলি বলেন, “আদৌ যদি আইপিএল হয়, কোথায় তা হতে পারে আমরা জানি না। তবে ভারত তো ওই ইভেন্ট আয়োজন করতে চাইবেই। শর্ত হল পরিবেশ যেন নিরাপদ থাকে। ঠিক এখনই এ ব্যাপারে কিছু বলার মতো জায়গায় আমরা নেই। এখন বলার সময়ই নয়। সংগঠনগত ভাবে আমরা এখনও আইপিএল ক্রীড়াসূচি নিয়ে কোনো আলোচনা করিনি। সবটাই নির্ভর করছে পরিবেশগত নিরাপত্তার উপরে। মানুষের প্রাণ বাঁচানো এবং করোনাভাইরাসের শৃঙ্খলকে ভেঙে দেওয়াই আমাদের সকলের কাছে এখন সব চেয়ে বেশি গুরুত্বপূর্ণ।”

পড়তে থাকুন

ক্রিকেট

ক্রিকেটারদের চক্ষু পরীক্ষা বাধ্যতামূলক করল সিএবি

খবর অনলাইনডেস্ক: করোনা-পরবর্তী সময়ে নতুন নিয়ম তৈরি করল বঙ্গ ক্রিকেট সংস্থা (CAB)। এ বার থেকে ক্রিকেটারদের চক্ষু পরীক্ষা বাধ্যতামূলক করা হল।

সিএবি থেকে প্রকাশিত একটি প্রেস বিবৃতিতে জানানো হয়েছে, “বাংলার ক্রিকেটারদের চক্ষু পরীক্ষা বাধ্যতামূলক করা হচ্ছে এ বার থেকে।” সোমবারই ক্রিকেটারদের চোখ পরীক্ষা করার বিষয়ে প্রস্তাব দেন কোচ অরুণ লাল (Arun Lal)। সেই প্রস্তাব সর্বান্তকরণে সমর্থন করা হয়। ব্যক্তিগত ভাবে অরুণ মনে করেছেন, নতুন বলের মুখোমুখি হওয়ার সময় এতে ব্যাটসম্যানরাই উপকৃত হবেন।

সিএবি সূত্রে জানা গিয়েছে, চক্ষু বিশেষজ্ঞের সঙ্গে আলোচনা করে বিষয়টি রাজ্য ক্রিকেট সংস্থার মেডিক্যাল কমিটির সদস্য নন্দিনী রায়ের কাছে পাঠানো হবে। প্রি-সিজন ক্যাম্প চলাকালীনই স্কোয়াডের প্রত্যেকের চোখ পরীক্ষার ব্যবস্থা করা হবে।

সিএবি সভাপতি অভিষেক ডালমিয়া (Abhishek Dalmiya) জানিয়েছেন, “ক্রিকেট মাঠে চোখের দৃষ্টি ভীষণ গুরুত্বপূর্ণ এক বিষয়। রিফ্লেক্সের সঙ্গে এটা ওতপ্রোত ভাবে জড়িত। তাই আমরা অনেক ভাবনাচিন্তা করেই এই পরীক্ষার ব্যবস্থা করছি।”

মাঠে নেমে ক্রিকেটারদের অনুশীলন শুরু করার বিষয়ে সিএবি এখনও পর্যন্ত কোনো দিনক্ষণ ঠিক করেনি। তবে কেন্দ্রীয় সরকার যে হেতু মাঠে নেমে অনুশীলনের অনুমতি দিয়েছে, তাই মনে করা হচ্ছে, জুনেই হয়তো অনুশীলনে নামতে পারবেন ক্রিকেটাররা। তবে লকডাউনের (Lockdown) সময়ে ঘরে বসেই অনলাইনে মনোবিদের ক্লাস চলছিল এত দিন।

সোমবারের বৈঠকেই ঠিক হয় যে আরও এক বছরের জন্য দলের কোচ থাকবেন অরুণ লাল। উইকেটকিপিং কোচ করা হয়েছে দীপ দাশগুপ্তকে।

পড়তে থাকুন

ক্রিকেট

একদিনের ক্রিকেটে শ্রীসন্তের বাছাই করা সর্ব কালের সেরা একাদশের অধিনায়ক সৌরভ গাঙ্গুলি

খবর অনলাইন ডেস্ক: করোনাভাইরাস (coronavirus) সংক্রমণের জেরে দেশ জুড়ে যে লকডাউন (lockdown) চলছে, তাতে ঘরবন্দি বহু ক্রিকেটার সোশ্যাল মিডিয়ায় সক্রিয় হয়েছেন। এঁদের দলে নাম লেখালেন সান্তাকুমারন শ্রীসন্ত (S. Sreesanth)। আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে শ্রীসন্তের অভিষেক ২০০৫ সালে। ২০০৭ টি২০ বিশ্বকাপ ও ২০১১ বিশ্বকাপ ক্রিকেটে ভারতীয় দলের ক্রিকেটার শ্রীসন্ত বেছে নিয়েছেন একদিনের ক্রিকেটে সর্ব কালের সেরা একাদশ। এবং তাঁর সেই দলে স্থান পেয়েছেন ভারতের ৫ জন ক্রিকেটার। শ্রীসন্ত সেই দলের অধিনায়ক করেছেন সৌরভ গাঙ্গুলিকে (Sourav Ganguly) ।

শ্রীসন্ত তাঁর দলের ওপেনার হিসাবে বেছে নিয়েছেন সচিন তেন্ডুলকর ও সৌরভ গাঙ্গুলিকে। একদিনের ক্রিকেটে এই জুটি ভারতের হয়ে বহু ইনিংস ওপেন করেছেন। এবং এক দিনের ক্রিকেটে ওপেনিং জুটি হিসাবে এঁদের করা সর্বোচ্চ রানের রেকর্ডটি আজও অটুট।

শ্রীসন্তের দলে মিডল অর্ডারে তিন ও চার নম্বরে যথাক্রমে আছেন ওয়েস্ট ইন্ডিজের ব্রায়ান লারা এবং ভারতের বিরাট কোহলি। লারা তাঁর প্রজন্মের অন্যতম সেরা ব্যাটসম্যান যে ছিলেন তাতে সন্দেহ নেই। আর চলতি সময়ে একদিনের ফরম্যাটে বিরাটের শ্রেষ্ঠত্ব নিয়ে কোনো প্রশ্নই উঠবে না।

এর পর মিডল অর্ডারকে আরও শক্তপোক্ত করার জন্য্ শ্রীসন্ত পাঁচ ও ছ’ নম্বরে রেখেছেন যথাক্রমে সাউথ আফ্রিকার এবি ডেভিলিয়ার্স এবং ভারতের যুবরাজ সিংকে। ক্রিকেটের ইতিহাসে সাউথ আফ্রিকা যত জন ব্যাটসম্যান সৃষ্টি করেছে, ডেভিলিয়ার্স যে তাঁদের মধ্যে অন্যতম শ্রেষ্ঠ, তাতে সন্দেহ নেই। আর ভারতের ক্রিকেট ইতিহাসে যুবরাজকে সর্বশ্রেষ্ঠ মিডল অর্ডার ব্যাটসম্যান হিসাবে গণ্য করা হয়।

শ্রীসন্তের দলে উইকেটকিপার ভারতের মহেন্দ্র সিং ধোনি। উইকেটকিপারের জায়গায় ঠান্ডা মাথার ধোনির চেয়ে ভালো বাছাই আর হয় না। আর দলে আট নম্নরে আসবেন সেই সাউথ আফ্রিকার জাক কালিস, যিনি ব্যাট ও বলে অসামান্য পারফরম্যান্স দেখিয়ে ক্রিকেটের ইতিহাসে অল রাউন্ডারের সংজ্ঞাটাই পালটে দিয়েছেন।

শ্রীসন্তের টিমে একমাত্র স্পিনার অস্ট্রেলিয়ার শেন ওয়ার্ন। আর পেসার হিসাবে থাকছেন অ্যালান ডোনাল্ড এবং গ্লেন ম্যাকগ্রা। আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে ওয়ার্নের দখলে রয়েছে হাজারেরও বেশি উইকেট। আর পেস আক্রমণে সাউথ আফ্রিকার ডোনাল্ড ও অস্ট্রেলিয়ার ম্যাকগ্রার জুড়ি মেলা ভার।

শ্রীসন্ত তাঁর বাছাই করা দলে নিজেকে দ্বাদশ ব্যক্তি হিসাবে রেখেছেন।

একদিনের ক্রিকেটে শ্রীসন্তের বাছাই করা সর্ব কালের সেরা একাদশ –

সচিন তেন্ডুলকর, সৌরভ গাঙ্গুলি (অধিনায়ক), ব্রায়ান লারা, বিরাট কোহলি, এবি ডেভিলিয়ার্স, যুবরাজ সিং, মহেন্দ্র সিং ধোনি, জাক কালিস, শেন ওয়ার্ন, অ্যালান ডোনাল্ড, গ্লেন ম্যাকগ্রা এবং সান্তাকুমারন শ্রীসন্ত (দ্বাদশ ব্যক্তি)।                        

পড়তে থাকুন

নজরে