জাদেজাকে সঙ্গে নিয়ে, ভারতকে চাপমুক্ত করলেন অভিষেককারী শ্রেয়স আইয়ার

0

ভারত ২৫৮-৪ (শ্রেয়স ৭৫ অপরাজিত, শুভমন ৫২, জেমিসন ৩-৪৭)

কানপুর: সক্কালেই সুনীল গাওস্করের থেকে টুপি পেয়েছিলেন তিনি। আর বিকেলে ভারতের প্রধান উদ্ধারকর্তা হয়ে গেলেন শ্রেয়স আইয়ার। অভিষেকের প্রথম দিনেই অর্ধশতরান করলেন তিনি। কিছুটা চাপে পড়ে যাওয়ার ভারতীয় দলকে উদ্ধার করলেন তিনি। সেই সঙ্গে বুঝিয়ে দিলেন যে আপাতত তিনি টেস্ট টিমে থেকে যাবেন।

পড়ে পাওয়া চোদ্দো আনার সুযোগটা কাজে লাগাতে ব্যর্থ হলেন ময়াঙ্ক অগ্রওয়াল। রোহিত, রাহুল, শুভমন গিলদের চাপে এমনিতেও ভারতীয় একাদশে যাওয়ার পাওয়ার ব্যাপারে অনেকটাই পিছিয়ে পড়েছেন ময়াঙ্ক। শেষ মুহূর্তে রাহুল চোট না পেলে হয়তো সুযোগটাই আসত না ময়াঙ্কের কাছে। তবে সুযোগ যখন পেলেন, কাজে লাগাতে ব্যর্থ হলেন তিনি।

বৃহস্পতিবার কানপুরে টসে জিতে অজিঙ্ক রাহানে ব্যাটিং নিলেও শুরুটা ভালো করতে পারেনি ভারত। কাইল জেমিসন এবং টিম সাউদি বেশ সুইং করাতে পারছিলেন লাল বলটাকে। সে কারণেই কিছুটা অস্বস্তিতে পড়েছিলেন শুভমন এবং ময়াঙ্ক। তবে শুভমন সেই অস্বস্তি কাটিয়ে উঠলেও, কাটাতে পারেননি ময়াঙ্ক। অষ্টম ওভারেই জেমিসনের বল্কে উইকেট কিপারের হাতে খোঁচা দিয়ে দেন ময়াঙ্ক।

তবে আইপিএলে যেখানে শেষ করেছিলেন, এ দিন যেন সেখান থেকে শুরু করেন শুভমন। যথেষ্ট সাবলীল ছিলেন তিনি। চেতেশ্বর পুজারাকে নিয়ে এগিয়ে যাচ্ছিলেন। এগোচ্ছিল ভারতও। পুজারাও নিজের চেনা ছন্দেই ছিলেন। ঝুঁকি না নিলেও উইকেটে পড়ে ছিলেন। মধ্যাহ্নভোজনের আগেই অর্ধশতরান পূর্ণ করেন শুভমন।

তবে দুপুরের খাওয়াদাওয়ার বিরতির পরেই ভারতের চাপ পেড়ে যায় আচমকা। প্রথমেই ড্রেসিং রুমের পথ দেখেন শুভমন। এর পর চতুর্থ উইকেটে পুজারা এবং রাহানে ভারতের স্কোরকে এগিয়ে নিয়ে যেতে চাইলেও পারেননি। পুজারাকে যথেষ্ট সাবলীল দেখালেও সাউদির বলে খোঁচা দিয়ে ফেরেন তিনি। একই ভাগ্য রাহানেরও। তাঁকে ক্রিজে সাবলীল দেখাচ্ছিল। কিন্তু ৩৫-এর বেশি করতে পারেননি।

এ দিকে, দেড়শো রানের আগের চার উইকেট পড়ে যাওয়ায় ভারত বেশ চাপে তখন। ক্রিজে রয়েছেন অভিষেককারী শ্রেয়স আইয়ার এবং রবীন্দ্র জাদেজা। অর্থাৎ, লোয়ার মিডিল অর্ডার শুরু হয়ে গিয়েছে। এই জুটিই ভারতকে খাদের কিনারে থেকে উদ্ধার করল। নিজের প্রথম টেস্ট খেলা শ্রেয়সকে একবারের জন্যও মনে হয়নি তিনি কোনো চাপে রয়েছেন, বরং বার বার মনে হচ্ছিল যে রাহানের আগেও তিনি নামতে পারতেন।

অন্যদিকে, জাদেজা তো ইদানীং টেস্ট ব্যাটসম্যান হিসেবে যথেষ্ট নাম কুড়চ্ছেন, ভালো পারফর্ম করছেন। কিউয়ি স্পিনারদের একাধিক চার মারার পাশাপাশি অবলীলায় একটি ছক্কায় হাঁকিয়ে দেন শ্রেয়স। ৯৪ বলে অর্ধশতরান করেন তিনি। সেই সঙ্গে বুঝিয়ে দেন যে টেস্টে আপাতত তিনি থাকছেন।

দিনের এক্কেবারে শেষলগ্নে এসে অর্ধশতরান করে ফেলেন জাদেজাও। টেস্টে এটি তাঁর ১৭তম পঞ্চাশ। অন্যদিকে, শ্রেয়স নিজেকে আরও বেশি করে মেলে ধরেছেন। দিনের শেষ পর্যন্ত দু’জনেই নিজেদের ক্রিজে ছিলেন। এখন দেখার দ্বিতীয় দিন ভারত তাদের স্কোর আরও কতটা এগিয়ে নিয়ে যেতে পারে। আলাদা ভাবে নজর থাকবে শ্রেয়সের ওপরেও। অভিষেকেই তিনি শতরান পান কি না, সেটাই দেখার।

খবরের সব আপডেট পড়ুন খবর অনলাইনে। লাইক করুন আমাদের ফেসবুক পেজ। সাবস্ক্রাইব করুন আমাদের ইউটিউব চ্যানেল

বিজ্ঞাপন