best of cricket

ওয়েবডেস্ক: ক্রিকেটের ইতিহাসে সেই সব ‘ছোটো’ ম্যাচ যা সর্বকালের অন্যতম সেরা।

১) ১৯৭৫ সালে বিশ্বকাপ সেমিফাইনাল মুখোমুখি হয়েছিল অস্ট্রেলিয়া এবং ইংল্যান্ড। প্রথমে ব্যাট করে ইংল্যান্ড তোলে মাত্র ৯৩ রান। ১৪ রান দিয়ে ৬ উইকেট নেন গিলমোর। সেই সময় ওয়ান ডে ক্রিকেট হত ৬০ ওভারে। ব্যাটিং করতে নেমে শুরুটা মোটেই ভালো ছিল না অস্ট্রেলিয়ার। ক্রমাগত উইকেট পড়তে থাকে। এক সময় ৩৯ রানে ৬ উইকেট পড়ে গিয়েছিল ক্যাঙ্গারুদের। বল হাতে ৬ উইকেট নেওয়ার পর ব্যাটে অপরাজিত ২৮ করেন গিলমোর। ফাইনালে ওঠে অস্ট্রেলিয়া।

২) ১৯৮৩ সালের বিশ্বকাপ ফাইনাল। মুখোমুখি হয়েছিল ভারত এবং ওয়েস্ট ইন্ডিজ। প্রথমে  ব্যাট করে ১৮৩ রান করে ভারত। সেই সময় ওয়েস্ট ইন্ডিজ ছিল বিশ্বসেরা দল, তাই তাদের কাছে টার্গেট ছিল খুবই সহজ। কিন্তু সে দিন ভারতের ফিল্ডিং ছিল অনবদ্য। কপিল, অমরনাথদের ভারত সে দিন ১৪০ রানে গুটিয়ে দেয় ওয়েস্ট ইন্ডিজকে। ভারত জেতে তাদের প্রথম বিশ্বকাপ।

৩) ১৯৯৬ সালে ভারতে বিশ্বকাপের ম্যাচে কেনিয়ার মুখোমুখি হয়েছিল ওয়েস্ট ইন্ডিজ। প্রথমে ব্যাট করে ১৬৬ রান তোলে কেনিয়া। তবে ব্যাট করতে নেমে বিপদে পড়ে ক্যারিবিয়ানরা। সেই সময়ের ওয়েস্ট ইন্ডিজও যথেষ্ট শক্তিশালী দল ছিল। কিন্তু ৯৩ রানে তাঁদের ইনিংস শেষ করে দেন কেনিয়ার দুই বোলার রাজীব আলি এবং মরিস ওদুম্বে।

৪) ২০১৫ বিশ্বকাপে ঘরের মাঠে অস্ট্রেলিয়ার মুখোমুখি হয়েছিল নিউজিল্যান্ড। গ্রুপ লিগের ম্যাচে প্রথমে ব্যাট করে অস্ট্রেলিয়া তোলে ১৫১ রান। শুরুটা ভালো করলেও ট্রেন্ট বোল্টের দাপটে ধরাশায়ী হয় তারা। তিনি একাই তুলে নেন ৫টি উইকেট। জবাবে ব্যাট করে ২৩ ওভারে রান তুলে নেয় ‘ব্ল্যাক ক্যাপস’।

৫) পঞ্চমটি ২০০৪ সালে চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফি ফাইনাল। ঘরের মাঠে ফাইনালে মুখোমুখি ইংল্যান্ড এবং ওয়েস্ট ইন্ডিজ। ২১৭ রানে নিজেদের ইনিংস শেষ করে ইংল্যান্ড। জবাবে ব্যাট করতে নেমে এক সময়ে ৮ উইকেট পড়ে যায় তাদের হারমিসন এবং ফ্লিন্টফের বোলিংয়ে। ৭১ রান করতে হবে দুই উইকেটে, ঠিক সেই সময়ে  ব্রাডশাও এবং ব্রওনির ব্যাটিংয়ে ভর করে প্রথম বারের জন্য ‘মিনি’ বিশ্বকাপ জেতে ক্যারিবিয়ানরা।

উত্তর দিন

আপনার মন্তব্য দিন !
আপনার নাম লিখুন