ভারত-১১২     শ্রীলঙ্কা- ১১৪/৩

ওয়েবডেস্ক:  ওয়ান ডে-তে ভারতের সর্বনিম্ন স্কোর ৫৪। রবিবার ধরমশালায় সেই রেকর্ড ভেঙেই ফেলছিল রোহিত বাহিনী। এক সময় ভারতের স্কোর দাঁড়িয়েছিল ৭ উইকেটে ২৯। তার আগে অবশ্য ৫ উইকেটে ১১ রানও দেখা হয়ে গেছে ভারতের ক্রিকেটপ্রেমীদের।

তো, সেই সাত উইকেটের পর বাকি তিন উইকেটে সঙ্গীদের নিয়ে ৮৩ রান যোগ করলেন বহু যুদ্ধের নায়ক মহেন্দ্র সিং ধোনি। নিজে করলেন ৬৫। আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে ১৬ হাজার রান হয়ে গেল তাঁর। তখন অবশ্য উইকেট কিছুটা সহজ হয়ে এসেছে। আসলে এদিনের শুরু বিপর্যয়ের প্রধান কৃতিত্ব পিচের। ঘাসে ঢাকা পিচ পেয়ে টেস্ট ম্যাচের লেংথে বল করছিলেন লাকমলরা। ওই পিচে ব্যাট করা সত্যিই কঠিন ছিল। দক্ষিণ আফ্রিকা সফরের প্রস্তুতির জন্য ভারতীয় টিম ম্যানেজমেন্ট এমন উইকেটই চাইছিলেন। তাঁরা এই উইকেট পেয়ে খুশি কি না বলা যাচ্ছে না। যাই অধিনায়ক হিসেবে ভারতীয় ক্রিকেটে যাত্রা শুরুটা খারাপই হল রোহিত শর্মার।

এবার বোলিং-এর কথায় আসা যাক। ভুবনেশ্বর কুমার লাহিড়ু থিরিমাননেকে আউট করলেন নো বলে। কিন্তু চাহাল ক্যামেরার সামনে দাঁড়িয়ে ফিল্ডিং করায় সেটা বোঝা যায়নি। ফলে কিছু করার ছিল না তৃতীয় আম্পায়ারের। তার ওপর বুমরা। চ্যাম্পিয়নস ট্রফির ফাইনালে ফকর জামানকে আউট করেছিলেন। সেটা নো বল ছিল। জামান তারপর শতরান করেন। ভারত হারে। বুমরার নো বলের ছবি দিয়ে ট্রাফিক আইন মানার বিজ্ঞাপন করেছিল জয়পুর পুলিশ। তা নিয়ে বিতর্ক হয়। টুইটারে ক্ষোভ প্রকাশ করেন বুমরা। বিজ্ঞাপন সরিয়ে নেওয়া হয়। এদিন যখন থরঙ্গাকে বুমরা নো বলে আউট করেছিলেন তখন শ্রীলঙ্কার স্কোর ছিল ২ উইকেটে ১৯। তারপর থরঙ্গা করে গেলেন ৪৯ রান। ম্যাচটাই ভারতের হাতের বাইরে চলে গেল। শ্রীলঙ্কার টার্গেট তো মাত্র ১১৩। তিন উইকেটেই উঠে গেল রান।

১২ ম্যাচ পর ওয়ান ডে-তে জয় পেল শ্রীলঙ্কা।

টুইটারে ভারতের ক্রিকেটমোদীরা বিরাটকে ইতালি থেকে ফিরে আসতে বলছেন।

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here