cricket-world-cup

ওয়েবডেস্ক: দেখতে দেখতে ক্রিকেট বিশ্বকাপ দরজায় কড়া নাড়ছে। আর কয়েকদিন পরেই শুরু হয়ে যাবে কাপযুদ্ধ। প্রতিটা দলেরই এমন অনেক ক্রিকেটার আছেন, যাঁদের ওপর ভরসা করে আছে দলগুলি। বা বলা যেতে পারে টুর্নামেন্টে যাঁদের ওপর দাঁড়িয়ে আছে দলগুলি।

দেখে নিন প্রথম পাঁচ বিশ্বকাপের সেরা খেলোয়াড়দের পারফরম্যান্স

১। ক্লাইভ লয়েড (১৯৭৫)

লয়েডের অধিনায়কত্বে প্রথম বিশ্বকাপ ঘরে তোলে ওয়েস্ট ইন্ডিজ। অস্ট্রেলিয়ার মতো শক্তিশালী দলকে হারিয়ে। টুর্নামেন্টে তিন ইনিংসে ১৫৮ রান করেছিলেন। গড় ৫২.৬৬, স্ট্রাইক রেট ১০৪. ৬৩। সঙ্গে একটি শতরান এবং একটি অর্ধশতক। শতরান করে ফাইনালে অস্ট্রেলিয়ার বিরুদ্ধে ম্যাচ উইনিং পারফরমেন্স করেছিলেন যখন উইকেট হারিতে চাপে পড়ে যায় ওয়েস্ট ইন্ডিজ।

llyod600

২। ভিভিয়ান রিচার্ডস (১৯৭৯)

দ্বিতীয় বিশ্বকাপে টুর্নামেন্ট সেরা হওয়ার জন্য দাবিদার তিন জন ছিলেন। যাঁদের মধ্যে ধারবাহিক ভাবে ভালো খেলেছিলেন গর্ডন গ্রিনিজ। চার ইনিংসে ২৫৩ রানও করেছিলেন। আরেকজন ছিলেন কলিন ক্রফট। তবে নকআউট ম্যাচগুলিতে সবথেকে বেশি ভালো খেলেছিলেন ভিভিয়ান রিচার্ডস। সেমিফাইনালে পাকিস্তানের বিরুদ্ধে এবং ফাইনালে চাপের মুখে ইংল্যান্ডের বিরুদ্ধে শতরান করেছিলেন তিনি।

richards600

৩। কপিল দেব (১৯৮৩)

ভারতকে অধিনায়ক হিসাবে প্রথম বিশ্বকাপে চ্যাম্পিয়ন করিয়েছিলেন। টুর্নামেন্টে পঞ্চম সর্বোচ্চ রান করেছিলেন। আট ইনিংসে ৩০৩ রান। জিম্বাবোয়ের বিরুদ্ধে শতরান করেছিলেন। ফাইনালে ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিরুদ্ধে ক্লাইভ লয়েড এবং টুর্নামেন্টের সেরা খেলোয়াড় ভিভিয়ান রিচার্ডসের ক্যাচ নিয়েছিলেন, যা ম্যাচের টারনিং পয়েন্ট ছিল। তবে এসব ছাপিয়ে ক্রিকেট রূপকথায় থেকে গেছে জিম্বাবোয়ের বিরুদ্ধে তাঁর ১৭৫ রানের ইনিংস। ১৭ রানে ৫ উইকেট হারিয়ে ভারত যখন ধুঁকছিল, তখনই অধিনায়োকচিত ওই ইনিংস খেলেন কপিল পাজি।

kapildev600

৪। ক্রেগ ম্যাকডারমট (১৯৮৭)

বিশ্বকাপে সবচেয়ে বেশি উইকেট নেন। আট ম্যাচে ১৮ উইকেট নিয়েছিলেন। সেই বিশ্বকাপই এশিয়ায় অনুষ্ঠিত হওয়া প্রথম বিশ্বকাপ ছিল। ভারতের বিরুদ্ধে চেন্নাইয়ে চার উইকেট পেয়েছিলেন। সেমিফাইনালে পাকিস্তানের বিরুদ্ধে পাঁচ উইকেট নিয়েছিলেন। সেবারই প্রথম বিশ্বকাপে চ্যাম্পিয়ন হয় অস্ট্রেলিয়া।

mcdermott600

৫।  মার্টিন ক্রো (১৯৯২)

নিউজল্যান্ডের হয়ে বেশ নজর কেড়েছিলেন। টুর্নামেন্টের প্রথম ম্যাচেই অস্ট্রেলিয়ার বিরুদ্ধে শতরান করেছিলেন। টুর্নামেন্টে পাঁচবার ৫০ বা তার বেশি রান করেছিলেন।  তিনি ছাড়া শুধু জাভেদ মিয়াঁদাদ এমনটা করেছিলেন। সেমিফাইনাল পাকিস্তানের বিরুদ্ধে ৯১ করেছিলেন কিন্তু দলকে জয় এনে দিতে ব্যর্থ হন তিনি।

crowe600

একটি উত্তর ত্যাগ

Please enter your comment!
Please enter your name here