ঘাড়ে ব্যাথা নিয়ে ব্যাট করেও চার বছর পর টেস্টে অর্ধশতরান করলেন ঋদ্ধিমান সাহা

0

কানপুর: চোট এখনও রয়েছে তাঁর। চতুর্থ দিন শেষলগ্নে কিপিং করতে নেমেও দু’ওভার পর উঠে যান। কিন্তু এই ঘাড়ে সত্ত্বেও ব্যাট করে চার বছর টেস্টে অর্ধশতরান করলেন ঋদ্ধিমান সাহা। তাঁর এবং শ্রেয়স আইয়ারের অনবদ্য ব্যাটিংয়ের জোরেই কানপুর টেস্টে জয়ের স্বপ্ন দেখছে ভারত।

প্রথম ইনিংসে মাত্র ১ রান করে প্যাভিলিয়নে ফিরে যান ঋদ্ধি। তখনই মনে হয়েছিল, টেস্ট দলের কিপার হিসেবে তাঁর দিন হয়তো শেষ হতে চলেছে। তৃতীয় দিন উইকেটকিপিংই করতে পারেননি ঘাড়ে ব্যথা থাকার কারণে। পরিবর্ত হিসেবে নামা কেএস ভরত বরং উইকেটের পিছনে অনেক সাবলীল ছিলেন।

তবে পরিবর্ত ক্রিকেটার ব্যাটিং করতে পারবেন না। ফলে ভারতের দ্বিতীয় ইনিংসে ব্যাট হাতে নামতেই হয়েছিল ঋদ্ধিকে। এ বার দলের হাল ছিল আরও খারাপ। ৪০তম ওভারে রবিচন্দ্রন অশ্বিন সাজঘরে ফেরার পর উইকেটে এসেছিলেন ঋদ্ধিমান। ১০৩ রানে দলের ৬ উইকেট পড়ে গিয়েছে। টেস্টে দলকে সুরক্ষিত রাখতে লিড আরও বাড়িয়ে নেওয়া জরুরি ছিল

ঘাড়ে তখনও ভালোই ব্যথা। সে সব উপেক্ষা করেই ক্রিজে দাঁত কামড়ে পড়ে থাকলেন ঋদ্ধিমান। প্রথমে শ্রেয়সের সঙ্গে সপ্তম উইকেটে ৬৪ রানের জুটি গড়লেন। শ্রেয়স ফেরার পর লড়ে গেলেন অক্ষর পটেলের সঙ্গে। অষ্টম উইকেটে দু’জনের জুটিতে এল ৬৮ রান। দল তখন নিরাপদে।

তিন ঘণ্টা সাত মিনিট উইকেটে ছিলেন ঋদ্ধিমান। ১২৬ বল খেলে তাঁর অবদান অপরাজিত ৬১ রান। ঋদ্ধির এই ইনিংস না থাকলে দ্বিতীয় ইনিংসে বিপদে পড়তেই পারত ভারত। ২০১৭ সালে টেস্টে শেষ বার পঞ্চাশ করেছিলেন ঋদ্ধি। তার চার বছর পর ফের পঞ্চাশ এল তাঁর ব্যাটে।

তবে চোট এখনও পুরোপুরি সারেনি ঋদ্ধিমানের। ফলে নিউজিল্যান্ডের দ্বিতীয় ইনিংসে কিপিং করতে নামলেও দু’ওভার পরেই উঠে যান ঋদ্ধিমান। এখন দেখার টেস্টের পঞ্চম দিনে তাঁকে মাঠে দেখতে পাওয়া যায় কিনা। অনবদ্য এই ইনিংসে সত্ত্বেও এটা ধরে নেওয়া যেতেই পারে যে মুম্বই টেস্টে ঋদ্ধি যদি খেলতে না পারেন, তা হলে তাঁর টেস্ট কেরিয়ার কার্যত সমাপ্তির দিকে এগিয়ে যাচ্ছে।

আরও পড়তে পারেন

পশ্চিমবঙ্গে সংক্রমণ সামান্য বাড়লেও কলকাতায় নতুন আক্রান্ত দুশোর কম

খবরের সব আপডেট পড়ুন খবর অনলাইনে। লাইক করুন আমাদের ফেসবুক পেজ। সাবস্ক্রাইব করুন আমাদের ইউটিউব চ্যানেল

বিজ্ঞাপন