টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপ ফাইনালের তৃতীয় দিনে কাইল জেমিসনের ভেলকি, অ্যাডভান্টেজ নিউজিল্যান্ড

    আরও পড়ুন

    ভারত: ২১৭ (রাহানে ৪৯, কোহলি ৪৪, জেমিসন ৫-৩১, ওয়াগনার ২-৪০)

    নিউজিল্যান্ড: ১০১-২ (কনওয়ে ৫৪, ল্যাথাম ৩০, ইশান্ত ১-১৯, অশ্বিন ১-২০)  

    Loading videos...

    খবরঅনলাইন ডেস্ক: নিউজিল্যান্ডের রান তোলার গতি দেখে বোঝা যাচ্ছে না, তারা ঠিক কী চায়। তবে এখনও পর্যন্ত যতটুকু খেলা হল, তাতে এটা বলাই যায়, অ্যাডভান্টেজ নিউজিল্যান্ড। ভারত কিছুটা চাপেই থাকল। নির্ধারিত সময়ের আগেই আলোর স্বল্পতার জন্য এ দিনের খেলা শেষ ঘোষণা করা হয়।     

    - Advertisement -

    বিশ্ব টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপের ফাইনালের তৃতীয় দিনে ভারতের প্রথম ইনিংস ২১৭ রানে গুঁড়িয়ে দিয়ে কিউয়িরা করল ২ উইকেটে ১০১ রান। কিন্তু এই ১০১ রান তুলতে তারা ৪৯ ওভার নিল। সাউদাম্পটনের আবহাওয়া কখন কী হয় বলা যায় না। তার ওপর এই চ্যাম্পিয়নশিপের ফাইনালে জেতাটাই লক্ষ্য হওয়া উচিত। কারণ ম্যাচ অমীমাংসিত থাকলে ট্রফি ভাগ হয়ে যাবে। পিচে বল তেমন কোনো সুইং করছে না। অথচ কিউয়িদের খেলা দেখে মনে প্রশ্ন জাগছে, তাদের জেতার তাগিদ আছে তো? ভারতকে বাগে পেয়েও কেন তারা ব্যাটে আক্রমণাত্মক হচ্ছে না। কেন তারা এত সাবধানী ক্রিকেট খেলছে? পিচে তো তেমন কোনো জুজু নেই।

    আবার অর্ধশত রান কনওয়ের

    নিউজিল্যান্ডের প্রথম ইনিংসের দু’টি উইকেট নিয়েছেন অশ্বিন ও ইশান্ত। প্রথম ইনিংসে ব্যাট করতে নেমে ল্যাথাম ও কনওয়ে অবিচ্ছেদ্য ভাবে ৭০ রান তোলে। অশ্বিনের বলে কোহলির হাতে ক্যাচ দিয়ে ল্যাথাম বিদায় নেন নিজস্ব ৩৩ রানে। অভিষেক টেস্টে সেঞ্চুরি করা ডেভন কনওয়ে দ্বিতীয় টেস্টে অর্ধশত রান করেছিলেন। রবিবার সাউদাম্পটনে ব্যাট করতে নেমে আবার অর্ধশত রান করলেন। কিন্তু এ দিন আর তিনি বেশি দূর এগোতে পারেননি। ৫৪ রানের মাথায় ইশান্তের বলে মহম্মদ শামির হাতে ক্যাচ দিয়ে তিনি প্যাভিলিয়নের পথ ধরেন। দিনের শেষে অধিনায়ক কেন উইলিয়ামসন ১২ রানে এবং রস টেলর ০ রানে অপরাজিত আছেন।          

    কনওয়েকে আউট করার পর ইশান্ত। ছবি আইসিসি টুইটার থেকে।

    এর আগে এ দিন ৩ উইকেটে ১৪৬ রান হাতে নিয়ে তৃতীয় দিনে ব্যাটিং শুরু করে ভারত। বিরাট কোহলি ৪৪ রানে এবং অজিঙ্ক রাহানে ২৯ রানে অপরাজিত অবস্থায় ক্রিজে আসেন। কিন্তু ভারতের ইনিংস কখনোই থিতু হতে পারেনি। নিয়মিত ব্যবধানে উইকেট পড়েছে এবং শেষ চারটি উইকেট পড়েছে মাত্র ১২ রানে।

    কিউয়ি পেসারদের কাছে ভারত এ দিন আত্মসমর্পণই করেছে বলা যায়, বিশেষ করে কাইল জেমিসনের কাছে।

    দলের আগের দিনের স্কোরের সঙ্গে মাত্র ৩ রান যোগ হওয়ার পর বিদায় নেন অধিনায়ক কোহলি। অধিনায়ক নিজে তাঁর আগের দিনের স্কোরের সঙ্গে কোনো রান যোগ না করেই জেমিসনের বলে এলবিডব্লিউ হন। রাহানেকে সঙ্গ দিতে নামেন ঋষভ পন্থ। সীমিত ওভারের ক্রিকেটে ঝড় তোলা ঋষভ এই আবহাওয়ায় সাউদাম্পটনের এই উইকেটে নিজেকে মেলে ধরতে ব্যর্থ হলেন। মাত্র ৪ রান করে ল্যাথামকে ক্যাচ দিয়ে জেমিসনেরই শিকার হলেন ঋষভ। দলের রান হল ৫ উইকেটে ১৫৬।

    অর্ধশতের আগেই থেমে গেলেন রাহানে

    নিয়মিত উইকেট পতন কিছুটা ঠেকানোর চেষ্টা করলেন রাহানে এবং রবীন্দ্র জাডেজা। কিন্তু দলের স্কোরের সঙ্গে ২৬ রান যোগ হওয়ার পরেই রাহানে বিদায় নিলেন ওয়াগনারের বলে সেই ল্যাথামকে ক্যাচ দিয়ে। মাত্র ১ রানের জন্য অর্ধশত রান থেকে বঞ্চিত হলেন রাহানে।

    জাডেজার সঙ্গী হলেন রবিচন্দ্রন অশ্বিন। দু’জনের জুটি কিছুটা চেষ্টা করে দলের রানকে কিছুটা ভদ্রস্থ জায়গায় নিয়ে যেতে। কিন্তু দলের স্কোরের সঙ্গে ২৩ রান যোগ হওয়ার পর আবার উইকেট পতন। এ বার অশ্বিনের বিদায় নেওয়ার পালা। সাউদির বলে ল্যাথামকে ক্যাচ দিয়ে আউট হওয়ার আগে দলকে দিয়ে গেলেন ২২ রান। এই উইকেটে রীতিমতো ঝোড়ো ইনিংস খেলে গেলেন অশ্বিন – ২৭ বলে ২২ রান।

    ১২ রানে পড়ে গেল ভারতের শেষ ৪ উইকেট। প্রথমে অশ্বিন, তার পর একে একে ইশান্ত শর্মা, মহম্মদ শামি এবং রবীন্দ্র জাডেজা। মাত্র ৩১ রানে ৫ উইকেট নিয়ে ভারতের ইনিংসে ধস নামিয়ে দিলেন কাইল জেমিসন।

    LEAVE A REPLY

    Please enter your comment!
    Please enter your name here

    This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

    - Advertisement -

    আপডেট খবর