ধোনির শামুক গতির ইনিংস, ব্যর্থ বাকিরাও, হোল্ডারের দুর্ধর্ষ স্পেলে সিরিজে থাকল ওয়েস্ট ইন্ডিজ

0
652

ওয়েস্ট ইন্ডিজ ১৮৯-৯ (লিউইস ৩৫, হোপ ৩৫, পাণ্ড্য ৩-৪০)

ভারত ১৭৮ (রাহানে ৬০, ধোনি ৫৪, হোল্ডার ৫-২৭)

আন্টিগা: আগের দিনের হিরোই এ দিন ভিলেন। মহেন্দ্র সিংহ ধোনি। তাঁর অতিরিক্ত মন্থর ব্যাটিং-এর জন্য ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিরুদ্ধে চতুর্থ একদিনের ম্যাচটি আকস্মিক ভাবে হেরে গেল ভারত। অবশ্য শুধুমাত্র ধোনিকে দোষ দিলে মস্ত বড়ো ভুল হবে। কারণ ওয়েস্ট ইন্ডিজ অধিনায়কের মারন স্পেলের সামনে ভেঙে পড়ল গোটা ভারতীয় ব্যাটিংটাই।

মাত্র ১৯০ রানের টার্গেট তাড়া করতে নেমে যে ভাবে হোঁচট খেল ভারতীয় ব্যাটিং, সেটা এখনকার দিনে কল্পনাই করা যায় না। বিশেষ করে বিপক্ষ যখন সদ্য আফগানিস্তানের কাছে একদিনের ম্যাচ-হারা ওয়েস্ট ইন্ডিজ। পরপর দুটি ম্যাচে ব্যর্থ হল ভারতীয় টপ অর্ডার। ধাওয়ান ছাড়াও রান আসেনি বিরাটের ব্যাটে। যুবরাজের বদলে খেলা দীনেশ কার্তিকও ব্যর্থ। আগের দিনের মতোই ধোনিকে সঙ্গে নিয়ে ইনিংসের হাল ধরেছিলেন রাহানে। দুজনের ইনিংস চলছিলও বেশ ভালোই। রানের গতি খুব একটা বেশি না থাকলেও ম্যাচে ছিল ভারত।

নিজের চরিত্রের বিরুদ্ধে গিয়ে অসম্ভব শ্লথ একটা ইনিংস খেললেন ধোনি। ৫৪ করতে খরচা করলেন ১১৪টা বল। গোটা ইনিংসে মাত্র একটা চার মেরেছেন তিনি। ৩৫ ওভারে, কেদার যাদব যখন আউট হন ভারতের স্কোর তখন পাঁচ উইকেটে ১১৬। কিন্তু এর পরের আট ওভারে মাত্র ২৩ রান তোলেন ধোনি এবং পাণ্ড্য। ওই সময়েই মোটামুটি ম্যাচের ভাগ্য নির্ধারণ হয়ে যায়।

রানের গতি কম থাকায়, চাপ বাড়াতে অসুবিধা হয়নি ওয়েস্ট ইন্ডিজ বোলারদের। বিশেষ করে অধিনায়ক জেসন হোল্ডারের। ইনিংসের শুরুতে বিরাটের উইকেট তুলেছিলেন তিনি। এর পর শেষ পাঁচটি উইকেটের চারটেই তাঁর। অন্য দিকে ধোনিকে ফেরান উইলিয়ামস।

ম্যাচের প্রথম ইনিংস দেখে কখনোই মনে হয়নি ভারত এই ম্যাচটি হেরে যেতে পারে। টসে জিতে ব্যাটের সিদ্ধান্ত নেয় ওয়েস্ট ইন্ডিজ। শুরুটা ওদের দুই ওপেনার ভালো করলেও, কুড়ি ওভারের পর থেকে ইনিংসে থাবা বসাতে শুরু করেন ভারতের বোলাররা। উমেশ যাদব এবং হার্দিক পাণ্ড্যর সৌজন্য রান করাটাই সমস্যা হয়ে যাচ্ছিল ওয়েস্ট ইন্ডিজের। কষ্টেশিষ্টে যে স্কোরটা ওয়েস্ট ইন্ডিজ খাড়া করল, তার পর যে তারাই জিতবে, এটা বোধহয় কেউ কল্পনা করেনি।

আগের দুটি ম্যাচের মতো এ দিনও ভালো বল করেছেন চায়নাম্যান কুলদীপ যাদব। অন্য দিকে বেশ কয়েক মাস পর আন্তর্জাতিক ম্যাচ খেলতে নেমে ভালো বল করেছেন মহম্মদ শামিও। উইকেটহীন থাকলেও দশ ওভারে মাত্র ৩৩ রান দেন তিনি।

ওয়েস্ট ইন্ডিজের মতো দুর্বল বোলিং অ্যাটাকের কাছে ম্যাচ খুইয়ে চিন্তার ভাঁজ পড়েছে অধিনায়কের কপালে। পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠানে এসে তাই নিজের দলের ব্যাটিং ব্যর্থতাকেই কাঠগড়ায় তোলেন তিনি। সামনের ম্যাচে এই ভুলত্রুটিগুলোও শুধরে নেওয়ার আশ্বাস দেন তিনি।

এক ক্লিকে মনের মানুষ,খবর অনলাইন পাত্রপাত্রীর খোঁজ

মতামত দিন

Please enter your comment!
Please enter your name here