এমনিতেই রবিবার ইতিহাস সৃষ্টি করলেন আগরতলার দীপা কর্মকার। ৫২ বছর পর কোনও ভারতীয় মহিলা অলিম্পিকে জিমন্যাস্টিক্স প্রতিযোগিতায় নামলেন। তার ওপর ভল্টের ফাইনালে পৌঁছে সাড়া জাগালেন। পাঁচটি সাব ডিভিশনের পরে অষ্টম হয়ে ফাইনালে গিয়েছেন দীপা। দু’ বার প্রচেষ্টার দীপা ১৪.৮৫০ পয়েন্ট সংগ্রহ করেন। ১৪ আগস্ট তাঁর ইভেন্টের ফাইনাল।

দীপা শুরুটা মন্দ না করলেও অলিম্পিকের দ্বিতীয় দিনেও ভারতের ব্যর্থতা অব্যাহত। সাড়া জাগিয়েও শেষ রক্ষা করতে পারলেন না ভারতের মহিলা তিরন্দাজরা। কোয়ার্টার ফাইনালে তাঁরা রাশিয়ার কাছে হেরে গেলেন শুট আউটে। প্রথম সেট ভারত হারে ৪৮-৫৫ পয়েন্টে। পরের দু’টো সেট জেতে ৫৩-৫২ এবং ৫৩-৫০ পয়েন্টে। চতুর্থ সেট ভারত ৫৪-৫৫ পয়েন্টে হারায় ম্যাচ যায় শুট আউটে। শুট আউটে রাশিয়া ২৫-২৩ পয়েন্টে জেতে। তিরন্দাজির দলগত ইভেন্ট থেকে ভারতের মহিলা বিদায় নেয়। এর আগে দীপিকা কুমারী, লক্ষ্মীরানি মাঝি আর বম্বায়ালা দেবীর ভারতীয় দল এলিমিনেটর রাউন্ডে কলোম্বিয়াকে ৫-৩ ব্যবধানে হারিয়ে কোয়ার্টার ফাইনালে উঠেছিল।

শনিবার অন্যান্য ইভেন্টে ভারতীয়দের পারফরম্যান্স খুব আশাব্যঞ্জক নয়। শুটিং–এ পুরুষদের ট্র্যাপ ইভেন্টে ভারতের দুই প্রতিযোগী মানবজিৎ সিং সাঁধু আর কিনান চেনাই কোয়ালিফাইং রাউন্ডে প্রথম দিনে যথাক্রমে ১৭তম ও ১৯তম স্থানে রয়েছেন। মেয়েদের ১০ মিটার এয়ার পিস্তল ইভেন্টের যোগ্যতাঅর্জনকারী রাউন্ডেই ছিটকে গেলেন হিনা সিধু।

ভারতের মহিলা হকি দল জাপানের সঙ্গে ২-২ ড্র করেছে।

   

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here