কলকাতা: প্রচারের আলোয় সর্বদাই থাকেন ওরা। সমর্থকদের যাবতীয় উল্লাস ওদের নিয়ে। ফুটবলাররা। সেই প্রচারের আলো ছিটকে আসে কোচের শরীরেও। সমর্থকদের আবেগের ছোঁয়া কিছু কম পান না ক্লাব কর্তারাও। কিন্তু কোনো ফুটবল ক্লাবের রোজকার পথচলা যাতে মসৃণ থাকে, তাতে অন্যদের ভূমিকাও কিছু কম নয়।

অন্যরা মানে ক্লাবের মালি, ক্যান্টিন স্টাফ, অফিস কর্মীরা। তাঁদের জন্য ততটা ভাবা সম্ভব হয়ে ওঠে না সমর্থকদের।

এই নিয়মটা পালটানোর উদ্যোগ নিয়েছে মোহনবাগানের একটি ফ্যানস ক্লাব। স্বপ্নের উড়ান মোহনবাগান। ২০১৫ সাল থেকে এই ফ্যানস ক্লাবের যাত্রা শুরু। গত দু’বছরই পুজোর আগে ক্লাবের কর্মীদের হাতে ওরা তুলে দিয়েছেন পুজোর নতুন জামাকাপড়। এ বছরও এই নিয়মের ব্যতিক্রম হচ্ছে না। আগামী ১৯ সেপ্টেম্বর, মহালয়ার দিন ক্লাব প্রাঙ্গনে ক্লাবের ২৬ জন কর্মীর হাতে ওরা তুলে দেবেন পোশাক। খরচের হাজার পনেরো টাকা নিজেরাই জোগাড় করেছেন ক্লাবের সমর্থকরা।

শুধু এটাই নয়, আরও নানা সামাজজিক কাজের সঙ্গে যুক্ত থাকে ‘স্বপ্নের উড়ান মোহনবাগান’। হোপ ফাউন্ডেশনের শিশু, ক্যান্সারে আক্রান্ত শিশুদের কাছেও এর আগে পৌঁছে গিয়েছে ওদের সহমর্মিতার হাত। যে হাত ফুটবল প্রেমের সীমা ছাড়িয়ে নতুন দিগন্ত রচনা করতে চায়।

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here