সমর্থকদের জয় উৎসর্গ করলেন আবাস, গ্র্যান্ট বললেন ‘জিততে সাহায্য করেছি’

0

খবরঅনলাইন ডেস্ক: মরশুমের দ্বিতীয় ডার্বি জিতে সমর্থকদের সেই জয় উৎসর্গ করলেন এটিকে মোহনবাগানের (ATK Mohun Bagan) স্প্যানিশ কোচ আন্তোনিও লোপেজ আবাস (Antonio Lopez Habas)। বললেন, “এই জয় সমর্থকদের জন্য”। অন্য দিকে, ইস্টবেঙ্গলের (SC East Bengal) সহকারী কোচ অ্যান্থনি গ্রান্টের (Anthony Grant) আক্ষেপ, তাঁর দল সবুজমেরুনকে জিততে সাহায্য করেছে।  

শুক্রবার গোয়ার ফতোরদায় জওহরলাল নেহরু স্টেডিয়ামে আইএসএলের ফিরতি লেগের ডার্বি ৩-১ গোলে জিতে নেয় সবুজমেরুন ব্রিগেড। ম্যাচের শুরুতেই রয় কৃষ্ণ এবং দ্বিতীয়ার্ধে ডেভিড উইলিয়ামস ও খাবি এর্নান্দেজের গোলে জয় পায় তারা। সবুজমেরুন ডিফেন্ডার তিরির আত্মঘাতী গোল ইস্টবেঙ্গলকে সমতা এনে দেওয়া সত্ত্বেও অবশ্য সেই স্কোর ধরে রাখতে পারেনি লালহলুদ শিবির।

Shyamsundar

এমন স্মরণীয় জয়ের জন্য সমর্থকদের ধন্যবাদ দিয়ে আবাস বলেন, “এই জয়ের জন্য মেরিনারদের অভিনন্দন জানাই। এই জয় ওদের জন্যই। আমরা তো এখানে একা। সমর্থকেরা অনেক দূরে রয়েছেন। কিন্তু দূরে থাকলেও ওদের সমর্থন যে রয়েছে আমাদের সঙ্গে, তা জানি। এই ম্যাচটা আমরা সমর্থকদের জন্যও খেলতে নেমেছিলাম। তাঁদের কথা দিচ্ছি, দলের ছেলেরা মাঠে একশো শতাংশ দেয় ও দেবে”।

শুক্রবারের ডার্বি জয় নিয়ে আইএসএলের সফলতম কোচ বলেন, “এই ম্যাচটার একটা আলাদা মোটিভেশন আছে। তবে আমাদের কাছে তিন পয়েন্টটাই সব চেয়ে বড়ো মোটিভেশন। ছেলেরা যাতে এই ম্যাচে বাড়তি আবেগে ভেসে না গিয়ে নিয়ন্ত্রণ করতে পারে, সে দিকটাও খেয়াল রাখতে হয়েছিল”।

নিজে গোল করে ও বাকি দু’টি গোলে সহায়তা দিয়ে এ দিন ম্যাচের সেরা খেলোয়াড়ের খেতাব পান ফিজিয়ান স্ট্রাইকার রয় কৃষ্ণ। ১৮ ম্যাচে ১৪টি গোল করে ফেললেন তিনি। দলের সেরা তারকাকে নিয়ে অতিরিক্ত উচ্ছ্বাস প্রকাশ করতে চান না কোচ। তিনি বলেন, “রয় আমাদের দলের খুবই গুরুত্বপূর্ণ সদস্য। তবে শুধু ওর ওপরই নির্ভর করি না আমরা। খাবি, উইলিয়ামসরাও আজ প্রমাণ করে দিয়েছে ওরাও গোল করতে জানে। পরিস্থিতিকে কাজে লাগাতে হবে আমাদের”।

এই জয়ের ফলে এটিকে মোহনবাগান ১৮ ম্যাচে ৩৯ পয়েন্ট নিয়ে শীর্ষেই রয়ে গেল। দ্বিতীয় স্থানে থাকা মুম্বই সিটি এফসি-র সঙ্গে তাদের এখন পাঁচ পয়েন্টের তফাৎ। যদিও মুম্বই একটি ম্যাচ কম খেলেছে।

‘দ্বিতীয় গোলটাই টার্নিং পয়েন্ট’

অন্য দিকে হতাশ ইস্টবেঙ্গলের সহকারী কোচ অ্যান্থনি গ্রান্ট স্বীকার করে নেন, “ওদের দ্বিতীয় গোলটাই এই ম্যাচের টার্নিং পয়েন্ট। যেটা আমরা ওদের কার্যত উপহার দিয়েছি।” যদিও তিনি মনে করেন ম্যাচ হিসেবে খুব ভালো খেলা হয়েছে শুক্রবার।

ডার্বিতে হার-জিতের গুরুত্ব কতটা, তা দলের ছেলেদের বুঝিয়েছিলেন বলে জানান গ্রান্ট। বলেন, “আমি নিজে ডার্বি খেলেছি। এর গুরুত্ব বুঝি। ছেলেদেরও বুঝিয়েছিলাম। এই ম্যাচে হারের যন্ত্রণাটা আমার ভাল করে জানা আছে। তবে দলের ছেলেরা সেরাটাই দিয়েছে।”

পরের মরশুমে ইস্টবেঙ্গল ঘুরে দাঁড়াবেই, এমনটাই বলেন প্রতিজ্ঞাবদ্ধ গ্রান্ট।

খবরের সব আপডেট পড়ুন খবর অনলাইনে। লাইক করুন আমাদের ফেসবুক পেজ। সাবস্ক্রাইব করুন আমাদের ইউটিউব চ্যানেল

বিজ্ঞাপন