রুদ্ধশ্বাস ম্যাচে কৃষ্ণর গোলে মান বাঁচল কলকাতার

0

এটিকে ২ (সোসোইরাজ, কৃষ্ণ):: মুম্বই ২ (প্রীতম, কেভিন)

কলকাতা: স্টপেজ সময়ে দু’টো গোল, প্রীতম কোটালের কার্যত জয়সূচক পাস, প্লেয়ারদের মাথা গরম, হাতাহাতি। এক উত্তেজক ম্যাচের যাবতীয় মশলা ছিল শনিবাসরীয় যুবভারতীতে। আর রুদ্ধশ্বাস ভাবে শেষ হওয়া ম্যাচের পরে লিগ টেবিলের ওপরেই থাকল এটিকে।

এই মরশুমে যুবভারতীতে এখনও পর্যন্ত অপরাজিত এটিকে। সেই রেকর্ডটা ভেঙে যাওয়ার সম্মুখীন হয়েছিল, যখন স্টপেজ টাইমের তিন মিনিটে এটিকের জালে বল জড়িয়ে দেন মুম্বইয়ের সার্জে কেভিন। মাঠে আসা এটিকে সমর্থকরা হতাশ। প্রিয় দলের হার দেখে ফিরতে হবে।

কিন্তু তখনই ঘটল অঘটন। ম্যাচের শেষ বাঁশি বাজার মাত্র কয়েক সেকেন্ড আগে এক দুর্দান্ত পাস দেন প্রীতম কোটাল। বলটা সংগ্রহ করে মুম্বইয়ের জালে ঢুকিয়ে দিতে কোনো সমস্যা হয়নি রয় কৃষ্ণর। ২-২ ফলে শেষ হল এক রুদ্ধশ্বাস ম্যাচ।

ম্যাচের প্রথম কুড়ি মিনিট আক্রমণের ঝাঁঝ বেশি ছিল মুম্বইয়ের। বেশ কয়েক বার এটিকের ডিফেন্স ভাঙার চেষ্টা করে মুম্বই। কিন্তু দক্ষতার সঙ্গে সেগুলি আটকে দেন এটিকের গোলকিপার অরিন্দম ভট্টাচার্য। ২১ মিনিট থেকে কিছুটা আক্রমণে যেতে শুরু করে এটিকে।

আরও পড়ুন আই-লিগের প্রথম ম্যাচেই ধাক্কা খেল মোহনবাগান

বিরতির মিনিট দুয়েক আগে এদু গার্সিয়ার পাসে প্রথম গোলটি করে ফেলেন এটিকের মাইকেল সোসাইরাজ। ৬২ মিনিটে ম্যাচে সমতা ফেরায় মুম্বই। প্রতীক চৌধুরীর গোলে ১-১ করে রনবীর কাপুরের দল।

সমতা ফেরানোর পর থেকেই দল হিসেবে আরও সংঘবদ্ধ হয় মুম্বই। মাঝেমধ্যেই উত্তেজক হয়ে উঠছিল ম্যাচ। মাঠের মধ্যেই হাতাহাতিতে জড়িয়ে পড়ছিলেন ফুটবলাররা। এর মধ্যে আক্রমণ আরও ধারালো করছিল মুম্বই।

শেষে তখন ৯৩তম মিনিটে কেভিন যখন গোল করলেন, তখনই মনে হচ্ছিল এটিকের কফিনে শেষ পেরেক পোঁতা হয়ে গিয়েছে। কিন্তু নাটক তখনও বাকি ছিল। তিন মিনিট পরেই প্রীতম কোটালের দেওয়া পাসে গোল করে দেন কৃষ্ণ।

সব মিলিয়ে হাড্ডাহাড্ডি এক ম্যাচের শেষে লিগ টেবিলের ওপরেই থেকে গেল এটিকে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.