আইএসএল ২০২২-২৩: টানা সাত ডার্বিতে জয়, ইস্টবেঙ্গলকে ২-০ গোলে হারাল  মোহনবাগান

0
জয়ের পরে মোহনবাগানের খেলোয়াড়রা। ছবি: রাজীব বসু

এটিকে মোহনবাগান ২ (বুমোস, মনবীর) ইস্টবেঙ্গল এফসি ০

নিজস্ব প্রতিনিধি: এ বারেও পারল না ইস্টবেঙ্গল। ডার্বিতে আবার হারল তারা। এই নিয়ে টানা সাত বার। শনিবার কলকাতার যুবভারতী স্টেডিয়ামে আয়োজিত আইএসএল-এর প্রথম ডার্বি ম্যাচে এটিকে মোহনবাগান সহজেই ইস্টবেঙ্গল এফসিকে ২-০ গোলে হারাল। মোহনবাগানের হয়ে গোল করেন হুগো বুমোস এবং মনবীর সিংহ।

প্রথমার্ধের খেলা সমানে সমানে

তবে এ দিন প্রথমার্ধের খেলা দেখে মনে হয়নি ইস্টবেঙ্গল হারবে। যদিও খেলার শুরুতে আক্রমণ করে মোহনবাগানই। ৪ মিনিটের মাথায় শুভাশিসের শট ইস্টবেঙ্গলের পোস্টের সামান্য দূর দিয়ে বেরিয়ে যায়। এর পরেই ইস্টবেঙ্গল প্রতি-আক্রমণে ঝাঁপিয়ে পড়ে। সেই আক্রমণ সামাল দেয় মোহনবাগান। এর মধ্যেই বুমোসের পাস থেকে লিস্টন কোলাসো যে শট নন তা অল্পের জন্য লক্ষ্যভ্রষ্ট হয়।

ম্যাচের ১৬ মিনিটের মাথায় গোল করার সুবর্ণ সুযোগ পায় ইস্টবেঙ্গল। নাওরেমের ক্রস থেকে দুর্দান্ত শট নেন হাওকিপ। কিন্তু সেই শট ততোধিক ক্ষিপ্রতায় বাঁচিয়ে দেন মোহনবাগানের গোলকিপার বিশাল কায়েথ।

এর পর সমানে সমানে লড়াই চলতে থাকে। কেউই কাউকে ছেড়ে কথা বলছিল না। ১৭ মিনিটের মাথায় আবার একটি সুযোগ মিস করেন লিস্টন। ২১ মিনিটের মাথায় ইস্টবেঙ্গলের ক্লেটন সিলভা মোহনবাগান বক্সের মধ্যে পড়ে যান। পেনাল্টির দাবি জানায় ইস্টবেঙ্গল। তবে রেফারি শ্রীকৃষ্ণ ইস্টবেঙ্গলের সেই আবেদনে কান দেননি।

ম্যাচের ৩২ মিনিটের মাথায় গোল করার সুযোগ পায় মোহনবাগান। ইস্টবেঙ্গলের রক্ষণভাগের দুই খেলোয়াড়কে কাটিয়ে গোলে শট নিতে যাচ্ছিলেন বুমোস। কিন্তু ডিফেন্ডার সার্থক গোলুইয়ের দুর্দান্ত খেলায় সে যাত্রায় বেঁচে যায় ইস্টবেঙ্গল। এর পর ইস্টবেঙ্গল আরও দু’বার আক্রমণে উঠেছিল। জর্ডান আবার মোহনবাগানের বক্সের মধ্যে পড়ে যান। এ ক্ষেত্রেও ইস্টবেঙ্গল পেনাল্টি দাবি করে, কিন্তু রেফারি সেই দাবি নাকচ করে দেন।

গোল করার পরে মনবীরের উল্লাস। ছবি: রাজীব বসু।

দু’টি গোলই দ্বিতীয়ার্ধে

মোহনবাগানের দু’টি গোল হল দ্বিতীয়ার্ধে। প্রথম গোলটি আসে ম্যাচের ৫৬ মিনিটের মাথায়। এর জন্য ইস্টবেঙ্গলের গোলকিপার কমলজিৎ সিংহ সম্পূর্ণ ভাবে দায়ী। তাঁরই ভুলে গোল করেন ফরাসি ফুটবলার হুগো বুমোস। দূর থেকে গোল লক্ষ করে নিচু শট নেন তিনি। কমলজিৎ ডান দিকে ঝাঁপিয়ে পড়ে গোল বাঁচানোর চেষ্টা করেন। কিন্তু বল তাঁর হাতে লেগে গোলে ঢুকে যায়। ১-০ গোলে এগিয়ে গিয়ে চেগে ওঠে মোহনবাগান।

দশ মিনিট পরেই আবার গোল। দিমিত্রি পেত্রাতোসের শট চলে যায় মনবীর সিংহের কাছে। মনবীর ইস্টবেঙ্গলের গোল লক্ষ করে যে শট নেন তা জেরি লালরিনজুয়ালার বুটে লেগে বিভ্রান্ত করে দেয় কমলজিৎকে। মনবীরের শটে পরাস্ত হন কমলজিৎ। মোহনবাগান এগিয়ে যায় ২-০ গোলে। শেষ পর্যন্ত আর গোল খেতে হয়নি ইস্টবেঙ্গলকে।

এ দিনের আর-এক নায়ক হুগো বুমোস। ছবি: রাজীব বসু।

স্বস্তিতে সবুজ-মেরুন সমর্থকরা

এ বারের আইএসএল অভিযানের শুরুটা সবুজ-মেরুনের পক্ষে খুব একটা ভালো হয়নি। প্রথম ম্যাচেই তারা চেন্নাইয়িন এফসি-র কাছে ২-১ গোলে হেরে যায়। সমালোচনার ঝড় ওঠে দলের কোচ জুয়ান ফেরান্দোর বিরুদ্ধে। গত মরশুমে এটিকে মোহনবাগানের হয়ে গোলে বাজিমাত করেছিলেন রয় কৃষ্ণ, ডেভিড উইলিয়ামস। এ বার তাঁদের কেন ছেড়ে দেওয়া হল সেই প্রশ্নে বিদ্ধ করা হয় ফেরান্দোকে।

কিন্তু দ্বিতীয় ম্যাচে মোহনবাগানের পক্ষে গোলের ঝড় ওঠে। কেরল ব্লাস্টার্সকে তাদের ঘরের মাঠে ৫-২ গোলে হারিয়ে দেয় তারা। হ্যাটট্রিক করেছিলেন দিমিত্রি পেত্রাতোস। গোল করেছিলেন লেনি রদ্রিগেসও। শনিবার আবার জয় মোহনবাগানের। এ বার গোল করলেন বুমোস আর মনবীর। এ বার নিশ্চয় সবুজ-মেরুন সমর্থকরা নিশ্চিন্ত হবেন। দলে তা হলে গোল করার প্লেয়ারের অভাব নেই।

এ দিনের ম্যাচের পর ৩ ম্যাচ থেকে ৪ পয়েন্ট সংগ্রহ করে এটিকে মোহনবাগান উঠে এল লিগ টেবিলে চতুর্থ স্থানে। আর ইস্টবেঙ্গল নেমে গেল অষ্টম স্থানে। তাদের সংগ্রহ ৪ ম্যাচ থেকে মাত্র ২ পয়েন্ট।

আরও পড়তে পারেন

১০ লক্ষ চাকরি দিচ্ছে কেন্দ্র, ভিডিও-বার্তা প্রধানমন্ত্রী মোদীর

শাহি-সফর বাতিল, নবান্নে সাক্ষাৎ হচ্ছে না অমিত-মমতার

dailyhunt

খবরের সব আপডেট পড়ুন খবর অনলাইনে। লাইক করুন আমাদের ফেসবুক পেজ। সাবস্ক্রাইব করুন আমাদের ইউটিউব চ্যানেল

বিজ্ঞাপন