Hugo Boumous
প্রথম গোলের পর সতীর্থদের অভিনন্দন বুমৌসকে (১০ নম্বর জার্সি)। ছবি সৌজন্যে ISL Twitter

এটিকে মোহনবাগান ৪ (বুমৌস ২, রয় কৃষ্ণ,  কোলাকো) কেরল ব্লাস্টার্স ২ (সামাদ, ডিয়াজ)

ফাতোরদা (গোয়া): গত আইসিএল-এ মুম্বই সিটি এফসির হয়ে প্রতিপক্ষদের বেশ ব্যতিব্যাস্ত করেছেন ফরাসি খেলোয়াড় হুগো বুমৌস। তাঁর ঝাঁঝ সহ্য করতে হয়েছিল এটিকে মোহনবাগানকেও (এটিকেএমবি)।

সেই বুমৌসকে সই করিয়ে এটিকেএমবি যে এ বারের আইএসএল-এ যে বেশ লাভবানই হবে, তার প্রমাণ প্রথম দিনই পাওয়া গেল।

এটিকেএমবি-র হয়ে অভিষেক ম্যাচেই নিজের দক্ষতা ও ক্ষিপ্রতার প্রমাণ দিলেন বুমৌস। করলেন দু’টো গোল। এ ছাড়া রয় কৃষ্ণ ও লিস্টন কোলাকোর গোলের সুবাদে এটিকেএমবি দুর্দান্ত ভাবে এ বারের  আইএসএল-এ তাদের অভিযান শুরু করল।

শুক্রবার গোয়ার ফাতোরদার পি জে এন স্টেডিয়ামে এটিকে মোহনবাগান তাদের প্রথম ম্যাচে ৪-২ গোলে হারাল কেরল ব্লাস্টার্সকে। কেরলের হয়ে গোল করেন সহল আবদুল সামাদ ও জর্জ পেরেরা ডিয়াজ।

প্রথমার্ধে এটিকেএমবি ৩-১

এটিকে মোহনবাগানের হয়ে খেলতে নেমে শুরু থেকেই ঝড় তোলেন বুমৌস এবং তার ফলও পেয়ে যান খেলার ৩ মিনিটের মাথায়। বুমৌসের ক্রস সবাইকে হার মানিয়ে কেরলের জালে জড়িয়ে যায়।

খেলায় এটিকেএমবি-র চাপ চলতে থাকে। ১৪ মিনিটে আরও একটা গোল করার সুযোগ পায় দল। বুমৌসের কর্নারে দুর্দান্ত হেড করেন মনবীর সিং। কিন্তু তা বারের উপর দিয়ে চলে যায়।

২৪ মিনিটে গোল শোধ করে দেয় কেরল। মাঝেমাঝেই তারা উঠে এসে চাপ সৃষ্টি করার চেষ্টা করতে থাকে এটিকে-র উপর। ডান দিক থেকে রাহুল কেপি প্রায়ই চেষ্টা চালাচ্ছিলেন। তারই ফল পেয়ে যান ২৪ মিনিটে। বক্সের একেবারে ধারে বল বাড়িয়ে দেন সহলকে। রাহুলের ক্রস বুক দিয়ে নামিয়ে এটিকে-র গোলে ঢুকিয়ে দেন।

এর পর পর পর এটিকে-র গোল। ২৭ মিনিটে রয় কৃষ্ণ, ৩৯ মিনিটে ফের বুমৌস।  রয় কৃষ্ণের গোল পেনাল্টি থেকে। বক্সের মধ্যে কৃষ্ণকে ফেলে দেন কেরলের গোলকিপার আলবিনো গোমস। পেনাল্টি থেকে গোল করেন রয় কৃষ্ণ। ৩৯ মিনিটে বুমৌস কেরলের গোলকিপারের দু’ পায়ের ফাঁক দিয়ে বল গোলে পাঠিয়ে দেন।

দ্বিতীয়ার্ধে আরও ২টি গোল  

দ্বিতীয়ার্ধের ৫০ মিনিটে রয় কৃষ্ণের পাস থেকে গোল করতে ভুল করেননি কোলাকো। ৪-১ গোলে এগিয়ে যায় এটিকে। ৬১ মিনিটে ফের গোল করার সুবর্ণ সুযোগ পায় এটিকে। কিন্তু বিধি বাম। এ যাত্রায় বেঁচে যায় কেরল। তখন রয় কৃষ্ণের সামনে একমাত্র গোলকিপার আলবিনো। রয় কৃষ্ণের শট বাঁচিয়ে দেন আলবিনো। কিন্তু বল চলে যায় মনবীরের কাছে। মনবীরের শট ক্রসবারে লেগে ফিরে আসে। কিন্তু এ বার বল চলে যায় কোলাকোর কাছে। কিন্তু তাঁর ক্রস মাত্র কয়েক ইঞ্চির জন্য ইওনি কাউকোর মাথা না ছুঁয়ে বেরিয়ে যায়।

এরই মাঝে ৬৮ মিনিটে আরও একটি গোল শোধ করে কেরল। আদ্রিয়ান লুনারের সাহায্যে গোল করেন ডিয়াজ। কিন্তু এটিকে-র কাছে পরাজয় এড়ানো স্বপ্নই থেকে যায় কেরলের।

আরও পড়তে পারেন 

ইস্টবেঙ্গলের কাছে ৫ গোল হজম, ১৯৭৫-এর সেই দিন ভুলতে পারে না মোহনবাগান

আইএসএল-এ দু’টি ম্যাচেই মোহনবাগান জিতলেও ডার্বির ইতিহাসে জয়ের পাল্লা ভারী ইস্টবেঙ্গলেরই

মোহনবাগান-ইস্টবেঙ্গল ডার্বি ম্যাচের ইতিহাসে কলঙ্কময় সেই দিন, ঝরে গেল ১৬টি তাজা প্রাণ

এক জন বাদে রয় কৃষ্ণরা আছেন এটিকে মোহনবাগানে, এ বার আরও নতুন দুই বিদেশি

মোহনবাগান-ইস্টবেঙ্গল ডার্বির ইতিহাসে সর্বাধিক গোলের রেকর্ড বাইচুং ভুটিয়ার, ১টি হ্যাটট্রিকও করেন

খবরের সব আপডেট পড়ুন খবর অনলাইনে। লাইক করুন আমাদের ফেসবুক পেজ। সাবস্ক্রাইব করুন আমাদের ইউটিউব চ্যানেল

বিজ্ঞাপন