দশ জনে খেলা হায়দরাবাদের বিরুদ্ধে পিছিয়ে থেকেও শেষ মুহূর্তের গোলে মান বাঁচাল এটিকে মোহনবাগান

0

এটিকে মোহনবাগান ২ (মনবীর, প্রীতম) হায়দরাবাদ ২ (আরিদানে সান্তানা, রোনাল্ড আলবার্গ)

খবরঅনলাইন ডেস্ক: দশ জনে খেলা হায়দরাবাদের বিরুদ্ধে প্রায় হারতেই বসেছিল এটিকে মোহনবাগান। কিন্তু শেষ মুহূর্তে মান বাঁচল তাদের। এক পয়েন্টে সন্তুষ্ট থাকতে হলেও ম্যাচটা যে হারতে হল না এটাই আবাসের দলের সৌভাগ্য এ দিন। কিন্তু মোহনবাগানের সঙ্গে ড্র করে শেষ চারে যাওয়া কিছুটা কঠিন করে ফেলল হায়দরাবাদ।

Loading videos...

সোমবার, ম্যাচের শুরু থেকেই নানা রকম নাটক মঞ্চস্থ হতে শুরু করে। পঞ্চম মিনিটেই ডেভিভ উইলিয়ামসকে ফাউল করার জন্য লাল কার্ড দেখে মাঠের বাইরে চলে যান চিংলেনসানা সিং।

কিন্তু এটাকে কাজে লাগানো তো দূর, অষ্টম মিনিটেই মারাত্মক বাজ পড়ে সবুজমেরুনের মাথায়। ডিফেন্সের চরম ভুলে ১০ জনে থাকা হায়দরাবাদের হয়ে গোল করে দলকে এগিয়ে দেন আরিদানে সান্তানা। চলতি আইএসএলে ইস্টবেঙ্গলের ডিফেন্সে মারাত্মক ভুল দেখা যেত, কিন্তু সবুজমেরুন ডিফেন্সে এই ভুল কার্যত তাক লাগিয়ে দেওয়া। শেষ কবে, ম্যাচের প্রথম দশ মিনিটের মধ্যে সবুজমেরুন গোল খেয়েছে, তা মনে করা যায় না।

এ দিকে আচমকা গোল খাওয়ার ফলে এটিকে মোহনবাগানের মনোবলে বড়ো রকমের আঘাত পড়ে। বিপক্ষের আকাশ মিশ্রকে ফাউল করার জন্য কিছুক্ষণের মধ্যেই হলুদ কার্ড দেখেন মনবীর সিংহ। যদিও এই মনবীরের হাত ধরেই মোক্ষম একটা সুযোগ এসে গিয়েছিল সবুজমেরুনের কাছে। তবে তাঁর শট বাঁচিয়ে দেন নিজামের শহরের গোলকিপার লক্ষ্মীকান্ত কাট্টিমণি।

৩০তম মিনিটে ব্যবধান বাড়ানোর সুযোগ এসে গিয়েছিল হায়দরাবাদের কাছে। কিন্তু সেই সুযোগ নষ্ট করলেন অডেই ওনাই ইন্ডিয়া। মোটের ওপরে ঘটনাবিহীনই ছিল প্রথমার্ধের বাকি সময়টা। ১ গোলে এগিয়ে থেকে বিরতিতে যায় হায়দরাবাদ।

দ্বিতীয়ার্ধের শুরুটাও মোটেই ভালো হয়নি এটিকে মোহনবাগানের। লিস্টন কোলাকোকে ফাউল করার জন্য হলুড কার্ড দেখেন সন্দেশ ঝিঙ্গন। যদিও এর কিছুক্ষণের মধ্যেই ম্যাচে ফেরে সবুজমেরুন। ৫৭তম মিনিটে ডেভিড উইলিয়ামসের পাস থেকে কার্যত একাই গোল করে যান মনবীর। এই নিয়ে চলতি টুর্নামেন্টে নিজের পঞ্চম গোলটি করে ফেললেন মনবীর।

ম্যাচে সমতা ফিরিয়ে আনার পরেই হলুদ কার্ড দেখেন শুভাশিস বসু। এর ফলে লিগের শেষ ম্যাচটি খেলতে পারবেন না তিনি। এ দিকে পাঁজরে চোট পাওয়া সন্দেশকে তুলে নিয়ে প্রবীর দাসকে মাঠে নামান আবাস। এর ঠিক পরেই লিস্টন কোলাকোর বদলে মাঠে নামা ‘সুপার সাব’ রোনাল্ড আলবার্গের গোলে ব্যবধান বাড়িয়ে নেয় হায়দরাবাদ।

সাধারণ ধারণা হল যে বড়ো দল ডার্বি যেতে, পরের ম্যাচে সে মুখ থুবড়ে পড়েই। এ দিন সবুজমেরুনের খেলা দেখে ঠিক সেটাই মনে হচ্ছিল। এর কিছুক্ষণের মধ্যে তিরিকেও তুলে নেন আবাস। ফলে, এই প্রথম এই লিগে সবুজমেরুন ডিফেন্সের দুই স্তম্ভকে তুলে নিতে হল আবাসকে।

ম্যাচে জয় তো দূর, ড্র করার সম্ভাবনাও ক্রমশ কমে আসছিল সবুজমেরুনের কাছে। কিন্তু এই দলটা তো এটিকে মোহনবাগান। যে কোনো মুহূর্তেই ঘুরে দাঁড়াতে পারে তারা। ঠিক সেটাই ঘটল ৯৩তম মিনিটে। ডেভিড উইলিয়ামস কর্নার নিয়েছিলেন। সেখান থেকেই লম্বা পাস এবং কাট্টিমণির ব্যর্থতাকে কাজে লাগিয়ে হায়দরাবাদের গোলে বল জড়িয়ে দেন প্রীতম কোটাল।

এটিকে মোহনবাগানের পক্ষে দিনটা ভালো না হলেও ম্যাচের পাওনা বলতে হল দুই ভারতীয়ের গোল। এই ম্যাচের পর লিগ টেবিলের শীর্ষস্থানে নিজেদের অবস্থান আরও কিছুটা পাকা করে নিল সবুজমেরুন।.১৯ ম্যাচ থেকে ৪০ পয়েন্ট সংগ্রহ করল মোহনবাগান।

ও দিকে সমসংখ্যক ম্যাচ থেকে ২৮ পয়েন্ট সংগ্রহ করে চতুর্থ স্থানে থাকল হায়দরাবাদ। তাদের শেষ খেলা গোয়ার সঙ্গে। সেটি গোয়ারও শেষ খেলা, যারা ১৯ ম্যাচ থেকে ৩০ পয়েন্ট সংগ্রহ করে রয়েছে তৃতীয় স্থানে। শেষ চারে যাওয়ার আরও এক দাবিদার নর্থইস্ট ইউনাইটেড ১৮ ম্যাচ থেকে ২৭ পয়েন্ট সংগ্রহ করে আছে পঞ্চম স্থানে। তাদের খেলা বাকি অপেক্ষাকৃত দুর্বল দল এসসি ইস্টবেঙ্গল এবং কেরল ব্লাস্টার্স-এর সঙ্গে।

আরও পড়ুন: গোয়ার কাছে হেরে গিয়ে এই প্রথম আইএসএল-এ শেষ চারে যাওয়া হল না বেঙ্গালুরুর

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.