match1
ছবি সৌজন্যে, সাধনা নিউজ

মোহনবাগান লেজেন্ডস – ০                                       বার্সেলোনা লেজেন্ডস – ৬

ওয়েবডেস্ক: পেশাদার ফুটবল বলতে যা বোঝায় শুক্রবার বার্সেলোনা বমান মোহনবাগান লেজেন্ডস ম্যাচ দেখলে তাই বোঝা যাবে। বয়স বাড়লেও, নিয়মিত অনুশীলন থাকলে যে ম্যাচে নিজেদের সেরাটা প্রমাণ করা যায় তাই বোঝাল বার্সা লেজেন্ডস। ম্যাচের প্রথম থেকেই আক্রমণ। বার্সার পরিচিত তিকিতাকা ফুটবল মানেই বিপক্ষের ঘাড়ে নিঃশ্বাস ফেলা। এ দিন বার্সার দলটি যা খেলল তাতে ১০ গোল হলেও অবাক হওয়ার কিছু ছিল না। অন্যদিকে শতাব্দী প্রাচীন মোহনবাগানের খেলোয়াড়রা নিজেদের সাধ্যমতো কিন্তু লড়ে গেল।

match2
ছবি সৌজন্যে, সাধ্না নিউজ

ম্যাচের প্রথম অর্ধেই তিন গোলের ব্যবধানে বিরতিতে যায় কাতালান জায়েন্টরা। সাত মিনিটে প্রথম গোল তারকা সাভিওলার। এর পর ২৮ মিনিটে ব্যবধান বাড়ান রোগু। বিরতিতে যাওয়ার মিনিট দুয়েক আগে দলের হয়ে তৃতীয় গোল লান্ডির। এই অর্ধে সুযোগ পেয়েছিল মোহনবাগান। রহিম নবির শট বাঁচান বিপক্ষ গোলকিপার। সুযোগ পেয়েছিলেন অসীম বিশ্বাসও। কিন্তু সুযোগ কার্যকর করতে ব্যর্থ। প্রথমার্ধেই পাঁচ গোল হয়ে যেত যদি না গোলকিপার সন্দীপ নন্দী বেশ কয়েকটা সেভ করতেন।

প্রথমার্ধেও চিত্রটা যেমন ছিল, দ্বিতীয়ার্ধেও তাই। ৬৩ মিনিটে দলের হয়ে চতুর্থ গোল লিটমানের। ক্রমাগত আক্রমণ বাড়াতে থাকে তাঁরা। এই অর্ধে বেশ কয়েকবার মোহনবাগান বিপদ আটকান গোলকিপার কল্যাণ চৌবে। তবে খেলার শেষ দিকে নিজের দ্বিতীয় গোল সম্পূর্ণ করেন হিটমানের। সংযোজিত সময়ে মোহন কফিনে ষষ্ঠ পেরেকটি পোঁতেন হোফরে।

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য দিন !
আপনার নাম লিখুন