prafulla patel

নয়াদিল্লি: ভারতে প্রথম ফিফা বিশ্বকাপ(অনূর্ধ্ব ১৭) সফল ভাবে শেষ হওয়ার তিনিদিন পরেই বড়ো ধাক্কা ভারতীয় ফুটবলে। এআইএফএফ প্রেসিডেন্ট পদ থেকে প্রফুল প্যাটেলকে সরিয়ে দিল দিল্লি হাইকোর্ট। ২০১৬ সালের ডিসেম্বরে সর্বসম্মত ভাবে এআইএফএফ-এর প্রেসিডেন্ট নির্বাচিত হন প্রফুল। সেই নির্বাচন প্রক্রিয়ায় ইন্ডিয়ান স্পোর্টস কোড মানা হয়নি বলে মন্তব্য করেছে দিল্লি হাইকোর্ট।

এদিনের রায়ে দিল্লি হাইকোর্ট পাঁচ মাসের মধ্যে এআইএফএফ-এর নির্বাচন করানোর নির্দেশ দিয়েছে। এই অন্তর্বর্তীকালীন সময়ে দেশের মুখ্য নির্বাচন কমিশনার এসওয়াই কুরেশিকে ফেডারেশনের প্রশাসক পদে নিযুক্ত করেছে আদালত। কুরেশিই এখন ফেডারেশনের প্রসিডেন্টের ভূমিকা পালন করবেন। বিচারপতি এস রবীন্দ্র ভাট এবং বিচারপতি নাজমি ওয়াজিরির দুই সদস্যের বেঞ্চ এই রায় দিয়েছে।

রাহুল মেহরা নামে এক আইনজীবী প্রফুল প্যাটেলের নির্বাচনের বিরুদ্ধে জনস্বার্থ মামলা করেছিলেন। সেই মামলাতেই এই রায় দিল আদালত।

সন্তোষমোহন দেব থেকে প্রিয়রঞ্জন দাসমুন্সি থেকে প্রফুল প্যাটেল। ভারতীয় ফুটবলে দীর্ঘদিন ধরে প্রসিডেন্ট পদে একই ব্যক্তি থেকে যাওয়ার ইতিহাস প্রায় চিরকালীন। কিন্তু বিশ্বকাপ, আইএসএল ইত্যাদির ফলে ওই পদে সাম্প্রতিক কালে যে গ্ল্যামার যুক্ত হয়েছে, তা আগে কখনও ছিল না। সঙ্গে যুক্ত হয়েছে কর্পোরেট সংস্থা ও ফিফার বিনিয়োগ। ফলে রাজনৈতিক লবিগুলিরও এই সংস্থাটি নিয়ে উৎসাহ বেড়েছে। জাতীয় কংগ্রেসের পরিবার থেকে উঠে আসা, বর্তমানে জাতীয়তাবাদী কংগ্রেস পার্টির রাজনীতিবিদ প্রফুল প্যাটেলের একক ক্ষমতাভোগের পথে তাই কাঁটা ছড়ানোর উদ্যোগ শুরু হয়ে যায় গত ডিসেম্বর থেকে।

এখন প্রশ্ন, ফিফা কী বলে। কারণ এই ধরনের অভিযোগের ক্ষেত্রে বহু সময়েই ফিফা, সংশ্লিষ্ট দেশের ফুটবল সংস্থার উপর নিষেধাজ্ঞা জারি করেছে। কিন্তু ভারতের ক্ষেত্রে এই অভিযোগ নতুন। তার উপর ভারতে ফুটবল-বাণিজ্য বাড়ানোর জন্য ফিফার আগ্রহও অপার। তাই ফিফা এই মুহূর্তে হয়োতো নিষেধাজ্ঞার পথে যাবে না, এমনটাই মত ওয়াকিবহাল মহলের।

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here