ronmes-laliga

বার্সেলোনা – ২         রেয়াল মাদ্রিদ – ২ 

ওয়েবডেস্ক: অমীমাংসিত ভাবে শেষ হল মরশুমের শেষ ‘এল ক্লাসিকো’। তবে এ দিনের ম্যাচে কিন্তু সবাইকে ছাপিয়ে গেলেন রেফারি আলেখান্দ্র জোসে হার্নান্দেজ হার্নান্দেজ। বড়ো ম্যাচের দায়িত্ব এ দিন ঠিক মতো পালন করতে ব্যর্থ হলেন তিনি। যার ফল, যত সময় যায় ম্যাচ থেকে নিজেকে হারিয়ে ফেলেন রেফারি। ম্যাচের ওপর নিয়ন্ত্রণ কমে যাওয়ার ফলে দু’দলের খেলোয়াড়রা বেশ কয়েকবার জড়িয়ে পড়লেন বাক-বিতন্ডায়। ভুল সিদ্ধান্ত দিয়ে দু’দলকেই বঞ্চিত করলেন তিনি।

hernandez-laliga

এদিন ঘরের মাঠে অবশ্য শুরু থেকেই আক্রমণাত্মক ছিল বার্সেলোনা। ম্যাচের মাত্র তিন মিনিটে সুয়ারেজের শট রেয়ালের ডিফেন্ডারের গায়ে লেগে প্রতিহত হয়। প্রতি আক্রমণে নিজেদের ঝলক প্রদর্শন করার চেষ্টা করে রেয়ালও। রোনাল্ডোর শট গোলকিপারের হাতে পরাস্ত হয়। তবে ঘরের মাঠে চাপ রেখে ফল পেয়ে যায় বার্সেলোনা। দশ মিনিটের মধ্যে সুয়ারেজের অনবদ্য ভলিতে এগিয়ে যায় কাতালান জায়েন্টরা। এগিয়ে গিয়ে ক্রমশও আক্রমণ বাড়াতে থাকে তারা। তবে এরই মধ্যে খেলার বিপক্ষে গিয়ে, প্রতি-আক্রমণে রেয়ালের হয়ে সমতা ফেরান ক্রিস্টিয়ানো রোনাল্ডো।

suarezlaligamatch

প্রথমার্ধের শুরুটা যদি বার্সেলোনার হয়, তবে শেষটা অবশ্যই রেয়ালের। গোলশোধ করে আক্রমণে ঝাঁজ বাড়াতে থাকে রেয়াল। ফের সুযোগ পেয়ে গিয়েছিলেন রোনাল্ডো, তবে তাঁর শট একটুর জন্য লক্ষ্যভ্রষ্ট হয়। সুযোগ হাতছাড়া করেন মাঝমাঠের অন্যতম স্তম্ভ টনি ক্রুসও। গোল প্রায় করেই ফেলেছিলেন রোনাল্ডো। তবে তাঁর অবধারিত শট বাঁচিয়েদেন বার্সা গোলকিপার টের স্টেগান। এ দিন প্রথমার্ধে সেইরকম চমক দেখাতে পারেননি লিয়োনেল মেসি। র‍্যামসকে ফাউল করার জন্য দেখলেন হলুদ কার্ড। প্রথমার্ধের শেষদিকে অবশ্য শারীরিক শক্তির প্রদর্শন কিছুটা বেশি হয়, ফলে অতিরিক্ত সময়ে মার্সেলোকে ইচ্ছাকৃত মুখে মারার ফলে লাল কার্ড দেখেন বার্সেলোনার সারজি রবার্টো। ফলে দশজনে হয়ে বিরতিতে যায় বার্সেলোনা।

দ্বিতীয়ার্ধে শুরু থেকেই আক্রমণ রেয়ালের। অবশ্য চ্যাম্পিয়ন্স লিগের ফাইনালকে মাথায় রেখে এবং প্রথমার্ধে গোল করার সময় কিছুটা চোট পাওয়ার ফলে, পরিবর্তিত করা হয় রোনাল্ডোকে। তবে এরই মধ্যে প্রতি-আক্রমণে গিয়ে ফের গোল বার্সেলোনার। মেসির অনবদ্য গোলে ম্যাচে দ্বিতীয়বারের জন্য এগিয়ে যায় তাঁরা। যদিও মেসিকে পাস বাড়ানোর আগে সুয়ারেজ যে ফাউলটি করেছিলেন, তা রেফারির চোখ এড়িয়ে যায়। এগিয়ে গিয়ে, ব্যবধান বাড়ানোর লক্ষ্যে নিয়মিত আক্রমণ শানাতে থাকে বার্সা। ফের সুযোগ পেয়েছিলেন মেসি। অবশ্য তাঁর অবধারিত গোল বাঁচিয়ে দেন রেয়াল গোলকিপার কেইলর নাভাস। প্রতি আক্রমণে ম্যাচে ফেরার ইঙ্গিত দেয় রেয়ালও। যার ফল গ্যারেথ বেলের বিশ্বমানের গোলে ম্যাচে ফিরে আসে রেয়াল মাদ্রিদ। জয়ের জন্য শেষদিকে আরও মরিয়া হয়ে ওঠে, লস ব্ল্যাঙ্কসরা।

balelaliga

এরই মাঝে পেনাল্টি না পাওয়ায় ক্ষোভে ফেটে পরে রেয়াল শিবির। ভিডিও-য়ে পরিস্কার দেখা যায়, বক্সে মার্সেলোকে ফাউল করেছেন বার্সার জর্ডি আল্বা। শেষমেশ আক্রমণে উঠে এলেও গোলের মুখ খুলতে পারেনি কোনো দলই।

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here