East Bengal Football Club

ইস্টবেঙ্গল – ০                                        ক্যালকাটা কাস্টমস – ০

ওয়েবডেস্ক: মুখ থুবড়ে পড়ল ইস্টবেঙ্গলের জয়রথ। শুক্রবার কলকাতা লিগে দ্বিতীয় মাচে ক্যালকাটা কাস্টমসের সঙ্গে ড্র করল লাল-হলুদ বাহিনী। ঘরের মাঠে বড়ো দল যেমন শুরু করে ইস্টবেঙ্গলও তাই করেছিল। অর্থাৎ গতিকে সম্বল করে আক্রমণে চাপ। কিন্তু মাঝমাঠ কিছুটা ছন্নছাড়া। অবশ্য কাস্টমসের লড়াইকে কিন্তু কুর্নিশ জানাতেই হয়। পুঁজি মতো লড়াই। সঙ্গে তাদের বিদেশিদের পারফরমেন্সও খুব একটা খারাপ নয়। অন্তত আজকের ম্যাচের দিক দিয়ে। তবে ইস্টবেঙ্গলের কপাল সত্যি খারাপ। ফুটবলে এমন দিনের প্রমাণ অতীতে প্রচুর রয়েছে। যেখানে দাপিয়ে খেলেও জয়ের মুখ না দেখা।

অবশ্য প্রথমার্ধের ১৩ মিনিটে সহজ সুযোগ হাতছাড়া ডিকার। ফাঁকা হেডার মিস করেন তিনি। সুযোগ পেয়েছিলেন গগনদীপও কিন্তু কার্যকর করতে ব্যর্থ তিনিও। তবে প্রথমার্ধের শেষ দিকে দু’দলের গোলকিপারের প্রশংসা না করলে নয়। প্রথমে ৩৭ মিনিটে কাস্টমসের নজরকাড়া খেলোয়াড় স্ট্যানলির অবধারিত গোলমুখ শট বাঁচান ইস্টবেঙ্গল কিপার রক্ষিত। এর রেশ কাটতে না কাটতেই, ৩৯ মিনিটে ডিকার ভলিতে নেওয়া শট বাঁচান কাস্টমসের শুভম। যার ফলে বিরতিতে দু’দলের নায়ক কিন্তু গোলকিপাররাই।

দ্বিতীয়ার্ধে অবশ্য শুরু থেকেই আক্রমণে ঝাঁজ ইস্টবেঙ্গলের। যার কারণ পরিবর্ত খেলোয়াড় আল আমনা। অভিজ্ঞতা যে সবসময় দলের চালনাশক্তি হতে পারে তা দ্বিতীয়ার্ধের খেলা দেখেই স্পষ্ট। তবে ঠাণ্ডা মাথায় কাস্টমসের ডিফেন্স কিন্তু নিজেদের খেলাটা ঠিক খেলে গেল। একইসঙ্গে প্রতি-আক্রমণে বিপক্ষকে চাপে রাখা। যার ফল অ্যাম্পংয়ের মাঝমাঠ থেকে নেওয়া শট বাঁচান রক্ষিত। নির্ধারিত সময় অবশ্য জয় আনতেই পারতেন লাল-হলুদ স্ট্রাইকার গগনদীপ। কিন্তু সঠিক সময়ে সুযোগ কাজে লাগাতে ব্যর্থ তিনি। তবে এই ম্যাচেও কিছুটা বিতর্ক থেকে যেতে পারে। যার কারণ আট মিনিট অতিরিক্ত সময়। এখানেও ইস্টবেঙ্গল জয়ের মুখ দেখতে ব্যর্থ। শেষ বাঁশি বাজার কিছু মুহূর্ত আগে ফাঁকা হেডার বাইরে মারেন ব্র্যান্ডন।

ফলে, কলকাতা লিগে ৯-য়ে নয় করার লক্ষে কিছুটা কিন্তু পিছিয়ে পড়ল মশাল বাহিনী।

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য দিন !
আপনার নাম লিখুন