ইস্টবেঙ্গল-৩(রালতে, প্লাজা-২) চার্চিল ব্রাদার্স -১(পিটার, নিকোলাস)

কলকাতা: গোটা ম্যাচ চুটিয়ে খেলেছেন। প্রচুর গোলের পাস বাড়িয়েছেন। শেষ মুহূর্তে তাঁর নিখুঁত কর্নারে মাথা ছুঁইয়েই দলকে জিতিয়েছেন উইলিস প্লাজা। তবু খেলা শেষে সহ খেলোয়াড়দের সঙ্গে উদ্‌যাপনে তিনি নেই। বরং মুখে বিরক্তির ছাপ নিয়ে দ্রুত গতিতে মাঠ ছাড়লেন ইউসা কাতসুমি। বিরক্ত হওয়ারই কথা। আল আমনা নিষ্প্রভ ছিলেন গোটা ম্যাচে। কিন্তু একের পর এক গোলমুখে বল বাড়িয়েছেন কাতসুমি। সেগুলোর কয়েকটা যদি প্লাজা গোলে রাখতে পারতেন, তাহলে শনিবার ইস্টবেঙ্গল অন্তত ৬ গোল দিতে পারত আই লিগের সবচেয়ে নীচের দল চার্চিল ব্রাদার্সকে।  তার ওপর কাতসুমির প্রায় নিশ্চিত একটা গোল পায়ের কাছে এসে নষ্ট করেছেন ত্রিনিদাদ অ্যান্ড টোবাগোর স্ট্রাইকার।

তা তো হয়ইনি। বরং প্লাজার জোড়া গোলে দল জেতায় তাঁকে নিয়েই সহ খেলোয়াড় আর সমর্থকদের উল্লাস। স্বস্তি খালিদেরও। প্লাজার ওপর ভরসা রাখার স্বস্তি। আর স্বস্তি লালহলুদ কর্তাদের। চার্লসের বদলি খুঁজলেও আপাতত প্লাজার বদলির কথা ভারতে হবে না। এদিনের হিরো অফ দ্য ম্যাচ চার্চিলের তরুণ গোলকিপার জেমস খিতান। অসাধারণ সব সেভ করলেন তিনি। কিন্তু তাতে প্লাজার দোষ কাটে না। বরং দুর্বল চার্চিলের বিরুদ্ধে অন্তত চারটি গোল না করতে পারার আফশোস তাঁর থেকে যাওয়া উচিত। আর এদিনের পাওয়া গোলে তাঁর আত্মবিশ্বাস বাড়ল কি না, তা দেখার জন্য পরের ম্যাচ অবধি অপেক্ষা না করে উপায় নেই।

তবে, ইস্টবেঙ্গল জনতার দুশ্চিন্তা থেকেই গেল ডিফেন্স নিয়ে। দুর্বল চার্চিলের আক্রমণেও প্রায় সবসময়ই ফাঁকা লাগল লালহলুদ ডিফেন্স। আরেক ডিফেন্সিভ ব্লকার বাজিকে তুলেই নিতে হল খালিদকে। খেলার শুরুতে আক্রমণের ঝড় তুলেছিল চার্চিল। খুঁজেই পাওয়া যাচ্ছিল না ইস্টবেঙ্গলকে। সেই সময়ই গোল করে এগিয়ে যায় গোয়ার দলটি। ২ মিনিট পরেই গোল করে সমতা ফেরান রালতে। প্লাজার পাস থেকেই। প্রথমার্ধের ইনজুরি টাইমে দলকে এগিয়ে দেন প্লাজা। ম্যাচের ৫০ মিনিটে খেলার গতির বিরুদ্ধে চমৎকার লবে গোল শোধ করেন নিকোলাস। আর শেষের কথা তো আগেই বলা হয়ে গেছে।

ডিফেন্স ছাড়াও আরও একটা বিষয় নিয়ে ভাবতে হবে খালিদকে। ডার্বিতে কিনোয়াকির পর এদিন কালু ওগবা আটকে দিলেন আমনাকে। ম্যাড়মেড়ে হয়ে গেল লালহলুদের আক্রমণ। আই লিগের সব প্রতিদ্বন্দ্বীরা যে চার্চিলের মতো দুর্বাল নয়, তা জানার জন্য ফুটবল বিশেষজ্ঞ হওয়ার প্রয়োজন নেই।

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here