টালিগঞ্জকে ৫ গোল দিয়ে ডার্বি প্রস্তুতি লালহলুদের

0

ইস্টবেঙ্গল-৫(প্লাজা-৩ হ্যাটট্রিক, নিখিল পুজারি, রালতে)   টালিগঞ্জ অগ্রগামী-০

কলকাতা: যা ভাবা হয়েছিল, তাই রইল ডার্বির সমীকরণ। ড্র করলেই টানা আটবার কলকাতা লিগ জিতবে লালহলুদ। মোহনবাগানকে লিগ জিততে হলে, হারাতে হবে ইস্টবেঙ্গলকে।

তবে শুধু এটুকু বললে, ইস্টবেঙ্গল বনাম টালিগঞ্জ অগ্রগামী ম্যাচ সম্পর্কে কিছুই বলা হবে না। এবারের কলকাতা লিগে এই প্রথম এত বড়ো ব্যবধানে জিতল জিতল ইস্টবেঙ্গল। এর আগেও তাঁরা ৫ গোল দিয়েছে। কিন্তু পিয়ারলেসের বিরুদ্ধে সেই ম্যাচে গোল হজমও করতে হয়েছিল। এদিন সেসব হয়নি।

প্রথমার্ধে কিছুটা ছন্নছাড়া দেখাচ্ছিল খালিদ জামিলের দলকে। কিন্তু দ্বিতীয়ার্ধে সে সব উধাও। সুভাষ ভৌমিকের দলের রক্ষণও যথেষ্ট নড়বড়ে হয়ে গেছে ততক্ষণে। ফলে প্রায় অনায়াসেই হয়ে গেল আরও চার-চারটি গোল।

এবং উইলিস প্লাজা। মহামেডান ম্যাচে গোল করে আত্মবিশ্বাস ফিরে পেয়েছিলেন ত্রিনিদাদ অ্যান্ড টোবাগোর স্ট্রাইকার। এদিন যেন আরও এক ধাপ এগিয়ে গেলেন। প্রথমার্ধে গোল করে দলকে এগিয়ে দিলেন। দ্বিতীয়ার্ধে হ্যাটট্রিক সম্পূর্ণ করলেন। যেন মোহনবাগানকে বললেন, “আমি আসছি”। সত্যি, তাঁকে নিয়ে ডার্বির জন্য আলাদা পরিকল্পনা রাখতেই হবে শঙ্করলালকে। বিশেষত টালিগঞ্জের তিন ডিফেন্ডারের মাঝখান দিয়ে প্লাজা যেভাবে দ্বিতীয় গোলটি করলেন, তা নতুন করে জাত চিনিয়ে দিল তাঁর।

প্লাজা মাঠ থেকে উঠে যাওয়ার পর আর দুটি গোল করলেন নিখিল পুজারি ও রালতে। তার আগে অবশ্য দুটি গোলের সুযোগ একটুর জন্য নষ্ট করেছেন রালতে।

শেষে আবার শুরুর কথা। মোহনবাগান এবং ইস্টবেঙ্গল, ৮ ম্যাচে দুই দলেরই পয়েন্ট ২২। কিন্তু অনেক বেশি গোল দিয়ে লিগ শীর্ষে লালহলুদ। অতএব বলাই যেত লিগ জয়ের দৌড়ে অ্যাডভান্টেজ ইস্টবেঙ্গল। কিন্তু ডার্বি সবসময়ই আলাদা ব্যাপার। অন্য সব সমীকরণ সেখানে গৌণ।

উত্তর দিন

আপনার মন্তব্য দিন !
আপনার নাম লিখুন