কলকাতা: ইউবি-জট কাটার লক্ষণ নেই। ইস্টবেঙ্গলের দীর্ঘদিনের প্রধান স্পনসর এই গোষ্ঠীটি এই মরশুমে ইস্টবেঙ্গলকে টাকা দিতে চাইছে না। দিলেও অত্যন্ত কম টাকা দেওয়ার সম্ভাবনা। কিন্তু চুক্তি ভেঙে বেরোতেও চাইছে না তাঁরা। কারণ আগামী মরশুমে ইস্টবেঙ্গল আইএসএল খেলবে। সেক্ষেত্রে তাঁরা সহজেই একটি ক্লাব পেয়ে যাবে। তখন অনেক কো স্পনসর আসবে। নিজেরা সেক্ষেত্রে কিছু বেশি টাকা দিয়ে প্রধান স্পনসর থেকে যাবে। তাদের দিকে থেকে বক্তব্য, ২০১৬-১৭ মরশুমের হিসেবে অসচ্ছতা রয়েছে। সেই সমস্যা মেটাতে পারেনি ক্লাব। অন্যদিকে ইস্টবেঙ্গল যদি চুক্তি ভেঙে বেরিয়ে আসে, তাহলে বড়ো অঙ্কের ক্ষতিপূরণ দিতে হবে ক্লাবকে। সেটা সম্ভব নয়। তাই ইউবি-র সঙ্গে কথা বলে মরশুম শুরুর আগেই গাঁটছড়া ভাঙতে চলেছে লালহলুদ।

ওএনজিসির সঙ্গে কথা প্রাথমিক ভাবে এগোলেও সেটা থমকে রয়েছে। কারণ ইস্টবেঙ্গল কোম্পানির সঙ্গে গাঁটাছড়া বাঁধার ক্ষেত্রে ওই রাষ্ট্রায়ত্ত সংস্থার কিছু আইনি জটিলতা রয়েছে। বিষয়টা অনিশ্চিত হলেও কর্তারা হাল ছাড়েননি। এক কর্তা বেঙ্গালুরুতে পড়ে রয়েছেন।

কিন্তু নতুন মরশুমের দল চালাতে হবে, খেলোয়াড়দের টাকা দিতে হবে, বিদেশিদের সঙ্গে চুক্তি করতে হবে। তাই কয়েকটি কোস্পনসরের সঙ্গে চুক্তি চূড়ান্ত করে ফেলেছেন লালহলুদ কর্তারা। কিন্তু ইউবি-র জটিলতা কাটার আগে তাঁরা মুখ খুলতে চাইছেন না। যা জানা যাচ্ছে। লাক্স কোজি বা টেকনো ইন্ডিয়া লালহলুদের নতুন কোস্পনসর হতে চলেছে। দুটি সংস্থাও কোস্পনসর হতে পারে। নাম ভাসছে ইয়েস ব্যাঙ্কেরও। তবে সেটায় তেমন জোর নেই। কোস্পনসরদের থেকে ৩ কোটি টাকা করে নেওয়া হচ্ছে বলে জানা গেছে।

শুব শিগগিরই ক্লাবের তরফ থেকে ঘোষণা করা হবে কোস্পনসরদের নাম।

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here