কলকাতা: অবশেষে খালিদ বিদায় পর্ব শেষ হল ইস্টবেঙ্গলে। আনুষ্ঠানিক ভাবে সচিব কল্যাণ মজুমদার জানিয়ে দিলেন, খালিদকে সব রকম সাহায্য করা হলেও, তাঁর পারফরম্যান্সে খুশি নন ক্লাব কর্তারা। তাই তাঁকে ছেড়ে দেওয়া হচ্ছে। আগামী মরশুমে ইস্টবেঙ্গলের টিডি হচ্ছেন সুভাষ ভৌমিক। নতুন মরশুমে কে কোচ হবেন, সেটা টিডি-ই ঠিক করবেন। এ প্রসঙ্গে সুভাষ জানালেন, তাঁর কাছে নাকি তেইশটি বায়োডাটা আছে। সেগুলির থেকেই তিনি কোচ বাছবেন।

তবে মঙ্গলবার ক্লাবের শীর্ষকর্তা খালিদ বিদায়ের ইঙ্গিত দিয়েই ছিলেন। তাই এই সিদ্ধান্ত নিয়ে বড়ো রকমের কোনো অনিশ্চয়তা ছিল না। কিন্তু যেটা এদিনের আলোচ্য বিষয় হয়ে দাঁড়াল, তা হল- খালিদের সঙ্গে ক্লাবের চুক্তি নিয়ে শীর্ষকর্তা নীতু সরকার ও সচিব কল্যাণ মজুমদারের পরস্পর বিরোধী মন্তব্য।

মঙ্গলবার নীতু সরকার বলেছিলেন, খালিদের সঙ্গে ক্লাবের এক বছরের চুক্তি আছে, সেই চুক্তিপত্র ফেডারেশনের কাছে পাঠানোও আছে। এদিন কিন্তু কল্যাণবাবু বললেন, খালিদের সঙ্গে ক্লাবের দু’বছরের চুক্তিই আছে।

সে যাই হোক, ইস্টবেঙ্গলে খালিদ জমানা শেষ হল। দলকে কলকাতা লিগ চ্যাম্পিয়ন করেছেন তিনি। আই লিগ শেষ হওয়ার দুই ম্যাচ আগে পর্যন্ত লালাহলুদ চ্যাম্পিয়ন হওয়ার দাবিদার ছিল। সুপার কাপের ফাইনালেও উঠেছে। ফলে খালিদের পারফরম্যান্সে কেন ক্লাব খুশি নয়, সেটা স্পষ্ট হল না।

সুভাষ ভৌমিক এদিন বললেন, সুপার কাপের সেমিফাইনাল অবধি সব ঠিকই ঠিল, তারপরই নাকি খালিদ পালটে যান। সবার সঙ্গ খারাপ ব্যবহার করতে থাকেন।

সাংবাদিক সম্মেলনে সুভাষের কাছে জানতে চাওয়া হয়, দলে অনেক খালিদের ফুটবলার আছে, তাতে কোনো অসুবিধা হবে কিনা। আসিয়ানজয়ী কোচ বলেন, সবাই টাকার জন্য খেলে। ‘সব পালটে দেব’।

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here