ডুডু-ক্রোমায় ভরসা নেই, বিদেশি স্ট্রাইকারের খোঁজে মরিয়া লালহলুদ

0
5133

কলকাতা: স্ট্রাইকারের সমস্যা গোটা মরশুম ভুগিয়েছে ইস্টবেঙ্গলকে। মরশুমের শেষ দিকে এসে ডুডু কিছুটা ভরসা যুগিয়েছেন বটে। কিন্তু তিনি যে বৃদ্ধ হয়েছেন, তা তাঁর খেলা থেকেই পরিষ্কার। সুপার কাপের শেষ ম্যাচে তাঁকে খেলা শেষ হওয়ার আগেই তাঁকে তুলে নিতে হয়েছে। আগামী মরশুমে তাঁর ওপর পুরোদস্তুর ভরসা রাখতে পারছে না লালহলুদ শিবির। আর ক্রোমাকে শেষবেলায় দলে নেওয়া হয়েছিল স্রেফ বিদেশির অভাব মেটাতে। তাঁকে দিয়ে যে হবে না, তা ভালোই জানেন লালহলুদ কর্তারা।

এই অবস্থায় মরিয়া হয়ে বিদেশির খোঁজ করছেন লালহলুদের কর্তারা। এ ব্যাপারে তাঁদের পরামর্শ দিচ্ছেন টেকনিক্যাল ডিরেক্টর সুভাষ ভৌমিক। কিছুদিন আগেই ক্লাবে ট্রায়ালদিয়ে গেছেন মোজাম্বিকের এজে কলিন্স। তাঁকে পছন্দ হয়নি ক্লাবের। এখন একের পর এক বায়োডাটা জমা পড়ছে ইস্টবেঙ্গলে।

কয়েকদিন আগেই সিরিয়ান বংশোদ্ভূত ব্রাজিলিয়ান স্ট্রাইকার জোনাটাস বেলুসোর সিভি জমা পড়েছে। মাসে দশ লক্ষ টাকা চেয়েছেন তাঁর এজেন্ট। বিদেশিদের পক্ষে টাকাটা খুব বেশি না হলেও, ক্লাবকর্তারা চাইছেন কিছুটা কম টাকার বিদেশি। এশিয়ান ফুটবলার পেলে সেই সমস্যা কিছুটা মেটে। পাশাপাশি এশিয়ান কোটার ব্যাপারটাও তাঁদের মাথায় রাখতে হচ্ছে। কারণ, এবার থেকে সম্ভবত আই লিগের ক্লাবগুলি আট জন বিদেশি নথিভুক্ত করতে পারবে। সেক্ষেত্রে এশিয়ান কোটার সংখ্যাও বাড়বে। অন্যদিকে আমনার সঙ্গে কথা কিছুটা এগোলেও এখনও চুক্তি চূড়ান্ত হয়নি।

এই অবস্থায় ইস্টবেঙ্গলের দল গঠনের ক্ষেত্রে খুব গুরুত্বপূর্ণ এক ব্যক্তির ছেলের তরফ থেকে দুটি বায়োডাটা জমা পড়েছে ইস্টবেঙ্গলে। বিদেশি ফুটবলারের এজেন্ট হিসেবে ময়দানে তিনি খুবই পরিচিত। দুই ফুটবলার যথাক্রমে কাতার ও ইরানের। একজন স্ট্রাইকার এবং একজন অ্যাটাকিং মিডফিল্ডার। বহু চেষ্টা করেও তাঁদের নাম জানা যাচ্ছে না। মুখে কুলুপ এঁটেছেন কর্তারা।

তবে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নিতে একটু সময় লাগবে। সুপার কাপের ব্যস্ততা মিটলেই সবার সিভি নিয়ে বৈঠক করবেন ক্লাবকার্তারা এবং সুভাষ ভৌমিক। সেই বৈঠকে খালিদ থাকবেন কিনা, এখনও স্পষ্ট নয়।

এক ক্লিকে মনের মানুষ,খবর অনলাইন পাত্রপাত্রীর খোঁজ

মতামত দিন

Please enter your comment!
Please enter your name here