ফকল্যান্ড যুদ্ধে হারের প্রতিশোধ নিল ‘ঈশ্বরের হাত’

0

খবরঅনলাইন ডেস্ক: চার বছর আগেই দুই দেশের মধ্যে ফকল্যান্ডের যুদ্ধ সংঘটিত হয়। দক্ষিণ অতলান্তিক মহাসাগরে ফক‌ল্যান্ড দ্বীপপুঞ্জ নিয়ন্ত্রণ করবে কে, সেই নিয়েই এই যুদ্ধ। যুদ্ধে ব্রিটিশ বাহিনীর কাছে নাস্তানাবুদ হয় আর্জেন্তিনা।

যুদ্ধে ছ’শো আর্জেন্তিনীয় সৈনিকের মৃত্যুতে আর পাঁচ জন সাধারণ আর্জেন্তিনীয়র মতোই শোকস্তব্ধ ছিলেন দিয়েগো আর্মান্দো মারাদোনাও। স্বাভাবিক ভাবেই ১৯৮৬-এর বিশ্বকাপের সময়ে দু’টি দেশ আদৌ ভালো বন্ধু ছিল না।

এই যুদ্ধে হারের বদলা ফুটবল দিয়েই নিতে হবে, সেই ব্যাপারে প্রতিজ্ঞাবদ্ধ ছিল আর্জেন্তিনার গোটা দল।

মেক্সিকো বিশ্বকাপে সে বার খুব সাধারণ দল নিয়ে গিয়েছিল আর্জেন্তিনার। কিন্তু তাদের দলে ছিলেন স্বয়ং ঈশ্বর। তর্কাতীত ভাবে তখনকার ফুটবল বিশ্বের সেরা খেলোয়াড়। ফলে মারাদোনার ওপরে বাড়তি চাপ ছিল দলকে টেনে তোলার জন্য।

মারাদোনা কিন্তু সত্যিই দুর্দান্ত খেলেছিলেন। ওই বিশ্বকাপে আর্জেন্তিনার মোট গোলের মধ্যে ৭১ শতাংশের ক্ষেত্রে কোনো না কোনো ভাবে তিনি জড়িত ছিলেন।

গ্রুপ স্টেজে দুর্দান্ত খেলে আর্জেন্তিনা। দাপটের সঙ্গে খেলে গ্রুপ ‘এ’-এর শীর্ষ স্থান অর্জন করে আর্জেন্তিনা। অন্য দিকে ইংল্যান্ড গোল পার্থক্যের ভিত্তিতে কোনো রকম ভাবে গ্রুপ ‘এফ’ থেকে নক আউট স্টেজে যোগ্যতা অর্জন করে।

কিন্তু প্রি কোয়ার্টার ফাইনালের ম্যাচে দুই দলের ভাগ্য কিছুটা বদলে গেল। একদিকে ইংল্যান্ড পারাগুয়েকে ৩ গোলে ওড়াল। অন্য দিকে কোনো রকম ভাবে ১ গোলে উরুগুয়েকে হারাল মারাদোনার আর্জেন্তিনা। কোয়ার্টার ফাইনালে মুখোমুখি আর্জেন্তিনা আর ইংল্যান্ড।

মারাদোনা এই ম্যাচের প্রসঙ্গে একবার বলেন, “ম্যাচের আগে যে রকম উত্তেজনা ছিল, তাতে মনে হয়েছে আমরা আবার একটা যুদ্ধে যাচ্ছি।”

প্রথমে ‘হ্যান্ড অব গড’

প্রথমার্ধ গোলশূন্য থাকল। বিরতির পর খেলা শুরু হতেই সব থেকে বিতর্কিত সেই মুহূর্ত। ইংল্যান্ড ডিফেন্সকে ভেদ করে বল নিয়ে এগিয়ে যাচ্ছিলেন মারাদোনা। তিন ব্রিটিশ ডিফেন্ডারকে পাশ কাটিয়ে সতীর্থ স্ট্রাইকার খোর্খে বালদানোকে বল বাড়িয়ে দেন তিনি।

কিন্তু বালদানো বলটাকে নিয়ন্ত্রণে আনার আগেই সেটা এক ব্রিটিশ ডিফেন্ডারের পায়ে লেগে পেনাল্টি বক্সে চলে যায়।

ব্রিটিশ গোলকিপার পিটার শিল্টন বলের দিকে তেড়ে আসেন, অন্য দিক থেকে দৌড়ে আসেন মারাদোনা। উচ্চতায় মারাদোনার থেকে অনেকটাই বেশি ছিলেন শিল্টন। তাই কোনো মিরাকল ছাড়া শিল্টনকে এড়িয়ে গোল করা সম্ভব ছিল না মারাদোনার।

কিন্তু মিরাকলই হল বটে। শিল্টনের সামনে লাফ দিয়ে কিছু একটা করে বলটাকে গোলে ঢুকিয়ে দিলেন মারাদোনা। টিভি ফুটেজ তখনকার দিনে অনেকটা দুর্বল থাকলেও গোলটা স্বাভাবিক ছিল না ভালো করেই বোঝা যায়। তৎক্ষণাৎ প্রতিবাদ শুরু করে ব্রিটিশ ফুটবলাররা। তবে তাতে কোনো লাভ হয়নি।

রিপ্লেতে পরিষ্কার দেখা যায়, ১০ নম্বর জার্সিধারীর মাথায় নয়, বরং বাঁ হাতের ঘুষিতে গোলে ঢুকে গিয়েছে বল। তখনকার দিনে তো ভিডিও রেফেরাল ব্যবস্থা ছিল না। তাই আর্জেন্তিনাকে প্রথম গোলটা দিয়ে দিতে কোনো কার্পণ্য করেননি রেফারি। ৫১ মিনিটে এগিয়ে যায় আর্জেন্তিনা।

ম্যাচের পরে মারাদোনা বলেন, “মারাদোনার মাথা দিয়ে কিছুটা আর কিছুটা ঈশ্বরের হাত দিয়ে গোলটা হয়েছে।”

এর পর হল শতাব্দীর সেরা গোল

কিন্তু তিনি দিয়েগো মারাদোনা যে। ‘ঈশ্বরের হাত’-এর মতো বিতর্কিত ঘটনা দিয়ে কেন শেষ হবে ম্যাচ। তাই এর কয়েক মিনিট পর ফুটবল ইতিহাসের অন্যতম সেরা ‘বিস্ময় গোল’ উপহার দিলেন মারাদোনা।

নিজেদের অর্ধে বল ধরে স্বপ্নের দৌড়ে একের পর এক ইংরেজ ফুটবলারকে ধরাশায়ী করে শিলটনকে হারিয়ে গোল করেন তিনি। সেই সময়ে ধারাভাষ্যকার বলে ওঠেন, ‘‘নিজেদের চোখে অলৌকিক দেখলাম আমরা। এমন অবিশ্বাস্য গোলও হয়, কে ভাবতে পেরেছিল!’’ 

ইংল্যান্ডের স্ট্রাইকার গ্যারি লিঙ্কার ম্যাচের পর বলে দেন, “এমন গোলের পর মনে হচ্ছিল হাততালি দিই। এত সুন্দর গোল কী ভাবে করা যায়!”

ফকল্যান্ড যুদ্ধের প্রসঙ্গ

ম্যাচের ৮১ মিনিটে নিয়মরক্ষার একটি গোল করেন গ্যারি লিঙ্কার। কিন্তু তাতে আর্জেন্তিনার জয় আটকানো যায়নি। ২-১-এ ম্যাচটা জিতে যায় তারা।

২০০০ আত্মজীবনী ‘এল দিয়েগো’-তে এই ম্যাচের স্মৃতি রোমন্থন করতে গিয়ে ফকল্যান্ড যুদ্ধের প্রসঙ্গে আনেন মারাদোনা।

মারাদোনা লেখেন, “মনে হচ্ছিল কোনো ফুটবল দল নয়, একটা দেশকে হারাচ্ছেন। ম্যাচের আগে আমরা বার বার জুনিয়ারদের বলছিলাম যে যুদ্ধের সঙ্গে ফুটবলের কোনো সম্পর্ক নেই, কিন্তু ভেতর ভেতর আমরা এটাও উপলব্ধি করেছি যে ওরা আমাদের বাচ্চাদের কী নির্মম ভাবে মেরেছে এই যুদ্ধে।”

“এটা আমাদের প্রতিশোধ ছিল। আমরা যুদ্ধের সঙ্গে ফুটবলকে মিশিয়ে না দেওয়ার কথা যেটা বলতাম, সেটা পুরো মিথ্যে কথা। ওটা সম্ভব ছিল না। এটা কোনো ভাবেই একটা সাধারণ ফুটবল ম্যাচ হতে পারত না।”

সেমিফাইনালে বেলজিয়ামকে ২-০ গোলে হারানোর পর ফাইনালে পশ্চিম জার্মানিকে ৩-২ ব্যবধানে হারিয়ে সে বার বিশ্বকাপ ঘরে তোলে আর্জেন্তিনা।

খবরঅনলাইনে আরও পড়ুন

দিয়েগো মারাদোনার পূর্ণাবয়াব স্ট্যাচু বসাচ্ছে গোয়া সরকার

dailyhunt

খবরের সব আপডেট পড়ুন খবর অনলাইনে। লাইক করুন আমাদের ফেসবুক পেজ। সাবস্ক্রাইব করুন আমাদের ইউটিউব চ্যানেল

বিজ্ঞাপন