কলকাতা: রবিবার ছিল মোহনবাগানে মনোনয়নপত্র স্ক্রুটিনির দিন। আর সেই দিনেই দেখা গেল আশ্চর্য কিছু দৃশ্য। ক্লাবে একসঙ্গে ঢুকলেন সচিব অঞ্জন মিত্র, মাঠ সচিব পদে শাসক শিবিরের প্রার্থী স্বাধীন মল্লিক সঙ্গে সহ সচিব পদে বিরোধী শিবিরের প্রার্থী সৃঞ্জয় বসু। তিনজনেই হাসিঠাট্টায় মশগুল। সৃঞ্জয়ের হাত স্বাধীন মল্লিকের কাঁধে। কিছুক্ষণ পরে দেখা গেল মাঠ সচিবের ঘরে গল্পগুজব করছেন অঞ্জন-কন্যা তথা শাসক গোষ্ঠীর যুব ফুটবল উন্নয়ন সচিব পদের প্রার্থী সোহিনী মিত্র চৌবে ও সৃঞ্জয় বসু। তবে কি দুই গোষ্ঠীর মদ্যে কোনো বোঝাপড়া হয়েই গেছে?  জানার উপায় নেই কারণ এদিনই নিজের শিবিরের লোকদের অঞ্জন মিত্র বলে দিয়েছেন পুরোদমে নির্বাচনের প্রস্তুতি নিতে।

অন্যদিকে এদিনই নির্বাচন দেখাশোনার দায়িত্বে থাকা তিন প্রাক্তন বিচারপতির কমিটি জানিয়ে দিয়েছেন মনোনয়ন দেওয়া ৫৬ জনের মধ্যে ২ জনের মনোনয়ন পত্র বাতিল হয়েছে। তাদের মধ্যে শাসক গোষ্ঠীর কর্মসমিতি পদের এক প্রার্থী রয়েছেন আর রয়েছেন কুনাল ঘোষ। কুনাল ঘোষ সহ সচিব পদে মনোনয়ন জমা দিয়েছিলেন। জানা গিয়েছে নিয়ম অনুযায়ী প্রত্যেক প্রার্থীর একজন প্রস্তাবক লাগে, সেই প্রস্তাবককে অন্তত তিন বছর ক্লাব পরিচালনার সঙ্গে যুক্ত থাকার অভিজ্ঞতা থাকতে হয়। কুনালের প্রস্তাবকের কয়েক মাস কম অভিজ্ঞতা ছিল। যদিও কুনাল পিছু না হঠে আবেদন করেছেন। তাঁর বক্তব্য, তিনি প্রথম ক্লাব নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন এবং তাঁকে যে মনোনয়নপত্র দেওয়া হয়েছিল, তাতে সব বিধিনিয়ম উল্লেখ ছিল না। ক্লাবের গোটা রুলবুক তিনি পড়ে উঠতে পারেননি, তাই তাঁকে নির্বাচনে লড়ার সুযোগ দেওয়া হোক। বিচারপতিরা কোনো সিদ্ধান্ত এদিন না জানালেও তাঁর আবেদন গ্রহণ করেছেন।

মনোনয়নপত্র প্রত্যাহারের শেষ দিন ৩ অক্টোবর।

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য দিন !
আপনার নাম লিখুন