চেন্নাই ম্যাচের আগে খবর অনলাইনের মুখোমুখি ইস্টবেঙ্গলের প্রধান ভরসাআল আমনা।

চেন্নাই ম্যাচ। এ প্রথম নিজেদের শহরের বাইরে খেলতে হচ্ছে। ম্যাচ জিততে কতটা আশাবাদী?

আমনা: আইলিগ জিততে হলে সব শহরেই আমাদের জেতাটা অভ্যাস করতে হবে। তাই, চেন্নাই ম্যাচটাও জিততে হবে। তিনপয়েন্ট ছাড়া আমাদের মাথাতে আর কিছু নেই।

চেন্নাই শেষম্যাচ জিতে চুড়ান্ত আত্মবিশ্বাসী। এর উপরে নতুন মাঠ, নতুন পরিবেশ? আমনা কতটা চাপে?

আমনা: কলকাতাতে খেলতে আসার আগেই জেনেছিলাম, এবার ইস্টবেঙ্গলকে আইলিগটা দিতে হবে। কলকাতার চাপের সঙ্গেও তাই নিজেকে মানিয়ে নিয়েছি। এখানে নতুন মাঠ, এটা একটু সমস্যার হতে পারে। তবে, আমাদের দলে সকলে পেশাদার ফুটবলার। দ্রুত এই মাঠের সঙ্গে মানিয়ে নিয়ে আমাদের খেলটা পরিবর্তন করতে হবে।

প্লাজা গোলে ফিরেছে, কাটসুমি গত ম্যাচে দুর্দান্ত ফুটবল খেলেছে। আপনাদের জুটি তো জমে গেছে:

আমনা: কাটসুমি,  প্লাজা দুজনেই কোয়ালিটি ফুটবলার। প্লাজা প্রথম দুম্যাচে গোল পায়নি, তবে মাঠে খুব পরিশ্রম করেছে। এটাই তো একটা ফুটবলারের দরকার। সারাক্ষণ পরিশ্রম করে গেলে ফল পাওয়া যাবে। দলের বাকি ফুটবলাররাও ওর পাশে ছিল। প্লাজাই কিন্তু গোল করে আমাদের জেতাল। আর কাটসুমির সঙ্গে বোঝাপড়াটাও ঠিক সময়ে ‘পিক ফর্মে’ গেছে। আর একটু সময় দিলে আমরা অপ্রতিরোধ্য হয়ে উঠব।

আপনার বয়স চৌত্রিশ, কিন্তু মাঠে যেভাবে দাপিয়ে বেড়ান, গতিতে পরাস্ত করেন, তাতে তো বছর পঁচিশের যুবক মনে হত বাধ্য। রহস্যটা কী?

আমনা: বয়স শুধুমাত্র একটা সংখ্যা। বিশ্বফুটবলে বহু বিখ্যাত ফুটবলার উনচল্লিশ-চল্লিশ বছরেও দাপিয়ে বেড়িয়েছেন। ফুটবলটাকে উপভোগ করতে পারলে, নিজেকে ফিট রাখতে পারলে বয়সটা কোনও ফ্যাক্টরই নয়। অনুশীলনে নিজের একশ শতাংশ দিতে হবে, তাহলেই সাফল্য আসবে। ডাইরি থেকে ‘ক্যাসুয়াল অ্যাপ্রোচ’ নামক শব্দদুটো বাদ দিতে হবে।

অনুশীলনের বাইরে দেখছিলাম প্রকাশ, রাহুলদেরকে নিয়মিত টিপস দেন। কী সেগুলো?

আমনা: দেখুন , আমি এই দলের একটা সিনিয়র ফুটবলার। বিশ্বের বহু দেশে খেলেছি। অভিজ্ঞতাও হয়েছে প্রচুর। সেগুলোই ওদের সঙ্গে শেয়ার করি। মাঠের বাইরের জীবনশৈলীর উপরেও একজন ফুটবলারের সাফল্য নির্ভর করে। আর, সিনিয়র ফুটবলার হিসেবে এটা আমার কর্তব্যও। বিদেশি-ভারতীয় কিংবা সিনিয়র-জুনিয়র ভেদাভেদ থাকলে কখনও দল হিসেবে নিজেদের মেলে ধরা যায় না।

কালও মাঠে লালহলুদ সমর্থকরা আমনা-আমনা চিৎকার করবে কিন্তু।

আমনা: এই আমনা-আমনা চিৎকারটা কিন্তু কোচের লাস্ট মিনিট ভোকাল টনিকের থেকেও বেশি কার্যকর। শুনলাম, ক্লাব থেকেও অ্যাওয়ে ম্যাচ দেখতে আসা সমর্রকদের জন্য ফ্রি-টিকিটের বন্দোবস্ত করা হয়েছে। এটা অসাধারণ কাজ, ওরাই  কিন্তু পরোক্ষভাবে আমাদেরকে বাঁচিয়ে রেখেছে।

কলকাতা লিগে আমনার গোলে জয় এসেছে বহু ম্যাচে। আইলিগে আমনার পা থেকে সেরকম ধারাবাহিক গোল আসবে কবে?

আমনা: আমি গোল করার থেকে, গোল করাতে বেশি ভালবাসি। এটাই তো একজন ক্রিয়েটিভ মিডফিল্ডারের কাজ। আর, আমাদের দলে গোল করার লোকের অভাব নেই।  কালও দেখবেন অন্য কেউ গোল করে জেতাবে।

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here