ওয়েবডেস্ক: আপাতত লিগে এক নম্বরে। সোমবার রাত আটটায় খেলা আই লিগের সবচেয়ে পেছনে থাকা দলটার সঙ্গে। যে দলটা এখনও কোনো পয়েন্ট পায়নি। তবু তাদের হালকা ভাবে নিচ্ছেনা ইস্টবেঙ্গল শিবির। এদিন কোচ-ফুটবলারদের সাংবাদিক বৈঠকে উঠে এল সেই ছবিটাই।

অনুশীলনের পরে খালিদ জামিল জানালেন, ‘ এটা আইলিগের অন্যতম কঠিন ম্যাচ হতে চলেছে । ওদের দলে তিনজন ভারতীয় ফুটবলার এসেছে, এছাড়া ওদের নতুন বিদেশিরাও খুব ভালোমানের। আমাদের জন্য ম্যাচটা সহজ হবে না। তবে রাত আটটাতে খেলা, এটা আমাদের জন্য পজিটিভ দিক হতে পারে। সেসময় তাপমাত্রা একটু ​কম হবে।’ নিজের দল সম্পর্কে আশাবাদী বর্তমান কোচ। বললেন , ‘কাল প্রথমেই গোল তুলে নিতে পারলে আমাদের কাজটা সহজ হবে। ছেলেদের আত্মবিশ্বাসী হতে বলেছি। তবে অতিরিক্ত আত্মবিশ্বাস যেন খেলাতে প্রভাব না ফেলে  সে বিষয়েও সতর্ক থাকতে হবে।’ কোচ আরও জুড়লেন , ‘দলে আপাতত চোট-আঘাত সমস্যা নেই। তবে, প্লাজাকে নিয়ে ম্যাচের দিন সকালেই সিদ্ধান্ত হবে । এরপরেও আমাদের আরও দশটা ম্যাচটা খেলতে হবে, তাই তাড়াহুড়ো করতে চাইছি না ।’ সঙ্গে আরও শুনিয়ে রাখলেন , ‘ প্লাজা ছাড়াই তো আমরা শেষ ম্যাচ জিতেছি। দলের বাকি সকলে ফিট ও চনমনে। দিনের শেষে তিন পয়েন্টটাই আসল।’ খালিদের আরও মন্তব্য , ‘ আমরা জেতার জন্যই ঝাঁপাবো। জেতা ছাড়া আমাদের কাছে অন্যকোনও অপশন নেই। বাজ্জো-আমনার ভুমিকাটা কাল গুরত্বপূর্ণ হতে চলেছে। ছেলেদের শেষ মুহূর্ত অবধি লড়তে হবে।’ কাতসুমির মতে, ‘ কাল আমরা শুরুতেই গোল করতে চাই। দলের সকলেই এই ম্যাচটার গুরত্বটা জানে।এখান থেকে কোনও মতেই পয়েন্ট নষ্ট করা যাবে না। ‘ লালহলুদের জাপানি মিডফিল্ডার আরও বললেন,  ‘ তিলক ময়দানের এই মাঠটা একটু শক্ত হলেও ফুটবল খেলার পক্ষে আদর্শ। বল হোল্ড করে খেলতে হবে।ওরা কাউন্টার অ্যাটাকে বিপদজনক হতে পারে। আমাদের ঘরের মাঠে চার্চিল খুব ভাল লড়াই করেছিল। তাই ওদেরকে সমীহ করতেই হয়’ । আমনা বললেন , ‘ সকলকে নিজেদেরকে ছাপিয়ে যেতে হবে। ম্যাচে মনোসংযোগ হারালেই বিপদ। ‘ আমনার সুরেই এডু জানালেন, ‘ ওদের স্ট্রাইকাররা বল পেলেই আমাদের উপর চাপ সৃষ্টি করবে। তাই ওদের অর্ধে আমাদের খেলতে হবে। মনে রাখতে হবে যে বারাসতে আমরা নিজেদের ভুলেই  দুগোল খেয়েছিলাম। কাল যেকোনও মুল্যে গোল খাওয়া আটকাতে হবে।’

রবিবার বেনৌলিয়ামের মাঠে ঘন্টাখানেক অনুশীলন করে ইস্টবেঙ্গল। প্লাজা অনুশীলনে নামলেও বল পায়ে দেননি। ফিজিক্যাল ট্রেনার গার্সিয়া ও ফিজিওর কাছে বাড়তি কসরত করতে দেখা যায় ওকে।  এছাড়া , অনুশীলনের শেষ লগ্নে সেটপিস ও কর্নারের উপর জোর দেন লালহলুদ কোচ। হোটেলে ফিরে ক্লান্তি কাটাতে আইসবাথে ডুবে থাকেন ইস্টবেঙ্গলের ফুটবলাররা।

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here