কলকাতা: দুই প্রধানের কোনো চেনা কর্তাই মুখ ফুটে বলেননি ‘আইএসএল খেলব’-এমন কথা। তবে ইস্টবেঙ্গলে কর্পোরেট বিনিয়োগকারী আসার পর সমর্থকদের মধ্যে আশা তৈরি হয় আইএসএল খেলার ব্যাপারে। কোয়েস কর্তা আইজ্যাক বলেন, তাঁরা আইএসএল খেলার চেষ্টা করছেন। বাগান সচিব অঞ্জন মিত্র বলেছিলেন, ইস্টবেঙ্গল খেললে, তাঁরাও খেলবেন ওই লিগ। সব মিলিয়ে গত মরশুমের শুরুর পরিবেশটাই যেন ফিরে এসেছিল ময়দানে। যেখানে সমর্থকরা ভাবছেন, তাঁর প্রিয় দল এবার নীতা আম্বানির লিগ খেলবে।

তবে তফাৎ একটা ছিল। গতবার যেমন দুই প্রধানের কর্তারা পরিষ্কার বলেছিলেন ১৫ কোটি টাকা ফ্র্যাঞ্চাইজি ফি দিয়ে খেলবেন না। এবার তাঁরা কেউ তেমন কোনো মন্তব্য করেননি। সে তাঁদের মনের কথা যাই হোক না কেন। অন্যদিকে প্রায় ফ্লপ শোয়ে পরিণত হওয়া আইএসএল-কে বাঁচাতে নীতা আম্বানিও চাইছিলেন দুই প্রধান ওই লিগে খেলুক। কিন্তু শেষ পর্যন্ত সম্ভবত তা হচ্ছে না।

আরও পড়ুন: লালহলুদ জার্সি গায়ে দেওয়ার লড়াইতে মোনাকোর প্রাক্তনী আর মদরিচদের প্রতিবেশী

সব কারণ জানা কঠিন। কারণ, আইএসএলের দলগুলির সঙ্গে আইএমজিআর ঠিক কোন কোন শর্তে চুক্তি করেছে, তার সবটাই প্রায় গোপন। সেই সব শর্তগুলির অনেকগুলি নিয়েই আপত্তি রয়েছে দুই প্রধানের। বিষয়টি তাঁরা খুল্লমখুল্লা প্রকাশ্যে আনতে না চাইলেও, ঘটনা তেমনই। বেসরকারি লিগ পরিচালকদের সব শর্ত মেনে চলার বান্দা শতবর্ষপ্রাচীন দুই ক্লাবের দুঁদে কর্তারা নন। তাই তাঁরা যতদিন সম্ভব, এই লিগ থেকে দূরে থাকার চেষ্টা করে যাচ্ছেন। যদিও আগামী মরশুম থেকে একটাই লিগ চালু হয়ে গেলে পরিস্থিতি পালটাবে। নিজেদের পালটাতে হবে ক্লাবকর্তাদেরও।

কিন্তু এবার মোহন-ইস্ট আইএসএল না খেলার পেছনে মূল ভূমিকা এটিকে-র। ‘এক শহর এক ক্লাব’ শর্ত অনুযায়ী এই মরশুম পর্যন্ত কলকাতা থেকে আইএসএল খেলার অধিকার একমাত্র এটিকে-র। এই শর্ত না মানলে গোয়েঙ্কার দলকে বিপুল পরিমাণ ক্ষতিপূরণ দিতে বাধ্য আইএসএল পরিচালক সংস্থা আইএমজিআর(যেটা তারা দিতে প্রস্তুত নয়)। শিলিগুড়ি বা অন্য কোনো শহর থেকে আইএসএল খেলার গল্পটাও ভুয়ো। কারণ দুই বড়ো ক্লাবই কলকাতার ঠিকানায় রেজিস্টার্ড। অন্য শহরকে হোম গ্রাউন্ড দেখানোর সুযোগ আইএসএলের চুক্তিতে নেই। তাই বেঁকে বসেছে এটিকে। তার ওপর ফ্রাঞ্চাইজি ফি দেওয়া নিয়ে দুই প্রধানের ন্যায্য দাবি তো আছেই।

সব মিলিয়ে কোনো মিরাক্যাল না ঘটলে(আইএমজিআর-এর শীর্ষস্তর থেকে কোনো বিশেষ উদ্যোগ না নেওয়া হলে) এ বছর আইএসএল খেলা হচ্ছে না দুই প্রধানের। সূত্রের খবর, ফেডারেশন সভাপতি প্রফুল প্যাটেল নাকি লালহলুদের এক শীর্ষকর্তাকে আগামী বছরের জন্য প্রস্তুত হতে বলে দিয়েছেন।

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here