মোহনবাগান- ৩(ডিকা, আক্রম, ফৈয়াজ)    শিলং লাজং-০

ওয়েবডেস্ক: সনি নর্দে নেই। কিন্তু বাকি যে সব বিদেশি রয়েছে, তাঁদের সবাইকে একসঙ্গে অনেকদিন পর একসঙ্গে পেলেন বাগান কোচ। পেতেই বোঝা গেল, সনি থাকলে এবারের কতটা ভয়ঙ্কর হতে পারত এবারের সবুজমেরুন। বোঝা গেল, কারণ শিলং-এর ঠান্ডায় প্রায় জবুথবু হয়ে খেলেও স্রেফ ট্যাকটিকাল ফুটবলে লাজং-কে ঘরের মাঠে ৩-০ বধ করল শঙ্করলালের ছেলেরা।

গোটা খেলায় বেশিরভাগ সময়ই বল ছিল লাজং ফুটবলারদের পায়ে। বেশ কয়েকটি সুযোগও পেয়েছিল তাঁরা। কিন্তু বাগানের ডিফেন্সের চমৎকার পারফরম্যান্সের গুরুত্ব তাতে কমে না। তার সঙ্গে ছিলেন বরফ ঠান্ডা মাথার ওয়াটসন এবং অনেকদিন পর ফিট হয়ে পুরো ম্যাচ খেলা কিনোয়াকি। সব মিলিয়ে যেটা দাঁড়াল,তাতে গোলের প্রায় সবকটা সুযোগই কাজে লাগাল বাগান।

ম্যাচের ৩০ মিনিটে কর্নারে মাথা ছুঁইয়ে দলকে এগিয়ে দিলেন ডিকা। আই লিগে ৮ গোল হয়ে গেল তাঁর। খেলার শেষের দিকে যখন সবুজমেরুনের দমে ঘাটতি পড়ার কথা, তখন কাউন্টার অ্যাটাকে দুটি গোল জুটিয়ে নিলেন শঙ্করলালের ছেলেরা। আক্রম যে গোলটা করলেন তাঁর সিংহভাগ কৃতিত্ব রেইনারের হলেও গোটা ম্যাচটা চমৎকার খেললেন লেবানিজ স্ট্রাইকার। গোল পেয়ে বেবেতোর ঢঙে সদ্যোজাত পুত্রকে তা উৎসর্গ করলেন তিনি। ৮৯ মিনিটে লম্বা দৌড়ে একটা গোল করলেন ফৈয়াজও।

খেলা শেষ হওয়ার মিনিট পাঁচেক আগে নেমে দৌড় ও টাচে নজর কাড়লেন নেপালি তরুণ বিমল।

১২ ম্যাচে ২০ পয়েন্ট হয়ে গেল বাগানের। ইস্টবেঙ্গলেরও সমান সংখ্যাক ম্যাচে সমান পয়েন্ট। কিন্তু গোল পার্থক্যে এখন তিন নম্বরে গঙ্গাপারের ক্লাব।

উত্তর দিন

আপনার মন্তব্য দিন !
আপনার নাম লিখুন