২০১৮ সালের মোহনবাগান রত্ন প্রদীপ চৌধুরি

কলকাতা: ওপরে যুদ্ধং দেহি, তলায় গটআপ? মোহনবাগানের শাসক ও বিরোধী শিবিরের সম্পর্কটা কি এখন সেই জায়গাতে দাঁড়িয়ে? তেমন হলে কিন্তু অবাক হওয়ার কিছু নেই।

এদিনের মোহনবাগান দিবস ছিল ঘটনাহীন। যা যা হওয়ার ছিল, তাই তাই হয়েছে। সুষ্ঠু ভাবেই হয়েছে। কিন্তু স্পনসর ঘোষণা হয়নি। অথচ দুই গোষ্ঠীর লড়াইয়ের আবহে মোহনবাগান দিবসের দিন স্পনসর ঘোষণা করে ভোট টানার কৌশল নিতেই পারতেন সচিব অঞ্জন মিত্র। সে পথে তিনি হাঁটেননি। অথচ ক্লাবের ওয়াকিবহাল মহল বলছে, স্পনসরের সঙ্গে বোঝাপড়া সম্পূর্ণ হয়েই আছে।

অন্যদিকে লড়াইয়ের আবহ বজায় রাখতে এদিন বিরোধী গোষ্ঠীর বেশিরভাগ নেতাই আসেননি। আসেননি টুটুবাবুও। কিন্তু সৃঞ্জয় বসু ও দেবাশিস দত্ত এসেছিলেন। শুধু তাই নয়, যাকে নিয়ে অঞ্জনবাবুর সবচেয়ে বেশি ক্ষোভ, সেই দেবাশিস তাঁর হাত ধরে মঞ্চ অবধি নিয়ে গেলেন। অন্যদিকে সৃঞ্জয়-দেবাশিসের আসতে দেরি হচ্ছিল বলে ৪৫ মিনিট পরে শিরু হল সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান।

রকমসকম দেখে অনেকেই বলছেন দুই শিবিরের বোঝাপড়ার চেষ্টা জোর কদমে চলছে। সব কিছু মিটে যাওয়া কেবল সময়ের অপেক্ষা।

তবে মাঠের রাজনীতি বলে কথা, কুশীলবরা সকালেও বুঝতে পারেন না, বিকেলে তিনি কী করবেন!

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here